নিজামপুর কলেজের হারানো ঐতিহ্য ও গৌরব আর ফিরে আসবে কি?

মঈনুল হোসেন টিপু

ঐতিহ্যবাহী নিজামপুর কলেজ সরকারী হওয়ার খবর শুনে বেশ ভালো লাগলো। আমি এই কলেজের ছাত্র না, এই কলেজের বিখ্যাত আমতলায় ছাত্রত্বের অধিকার নিয়ে বসতে পারি নি, কিংবা ১৪ নং হলে কখনো ক্লাসও করতে পারি নি। তবে এই কলেজে আমার অনেক বন্ধু আছে, বেশ কয়েকজন পরিচিত শিক্ষক আছেন। এই কলেজের পাশের পথ ধরে বাড়িতে যাওয়া আসা করি আর নিজ এলাকায় হওয়ায় এই কলেজের প্রতি আলাদা একটা টান আছে এবং অনেকটা নিজের কলেজই মনে হয়।
.

একসময় শুধু চট্টগ্রাম নয়, সারা বাংলাদেশে নিজামপুর কলেজের নাম ছিলো, মফস্বলে বাংলাদেশের সেরা কলেজের একটি ছিলো নিজামপুর কলেজ। ফলাফলও তাই বলে। সেসময়ের কুমিল্লা বোর্ডে প্রত্যেক বছরই স্ট্যান্ড করা ছাত্র-ছাত্রী থাকতো চার-পাঁচজন। পার্শ্ববর্তী সীতাকুন্ড, ফটিকছড়ি, ফেনী, নোয়াখালী, সন্দ্বীপসহ অনেক এলাকা থেকে এসে ছাত্ররা এই কলেজে পড়তেন।
.
কিছুদিন আগে এক অনুষ্ঠানে এই কলেজের এক কৃতি ছাত্র ডঃ আবু ইউসুফের সাথে দেখা হয়েছিলো। তিনি সেময়ের (১৯৮৬ সাল) কুমিল্লা বোর্ডে ফার্স্ট স্ট্যান্ড করেছিলেন। তাঁর ব্যাচে শুধু তিনি না এই কলেজ থেকে স্ট্যান্ড করেছিলেন আরো ৪ জন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় প্রথম হওয়া এই মানুষটি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেছেন, অস্ট্রেলিয়ার এক ইউনিভার্সিটিতে শিক্ষকতা করেছেন। এখন রাজস্ব বোর্ডের উপরস্থ কর্মকর্তা, সাথে শিক্ষকতা করছেন AIUB তে। উনার বাড়ি নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ, তিনি ওখান থেকে এসে এই কলেজে ভর্তি হয়েছিলেন। সে সময়ে প্রতি বছরই চার পাঁচজন স্ট্যান্ড করা ছাত্র থাকতো। চট্টগ্রাম কলেজ, কমার্স কলেজের সাথে ফলাফলে কম্পিটিশন হতো।


.
ডঃ আবু ইউসুফ স্যার শুধু উনার ব্যাচের প্রতিষ্ঠিত কয়েকজনের নাম বললেন, আর তাতেই আমি হতবাক। এত এত প্রতিষ্ঠিত মানুষের শিক্ষার ভিত্তি গড়ে দিয়েছে এই কলেজ!
.
শুধু কি একাডেমিক পড়াশোনা? সে সময়ের সুষ্ঠ ধারার ছাত্র রাজনীতি, জাতির আন্দোলন সংগ্রামে এই কলেজের ছাত্ররা নেতৃত্ব দিয়েছেন সামনে থেকে। অনেক বাঘা বাঘা রাজনীতিবিদ এই কলেজের মাঠে বক্তৃতা দিয়ে গলা ফাটিয়েছেন। যারা এই কলেজে রাজনীতি করতো তাদের আলাদা একটা মর্যাদা ছিলো, রাজনৈতিক ক্ষেত্রেও সুনাম কুড়িয়েছেন অনেকেই।
.
কিন্তু তারপর হঠাৎ ছন্দপতন। এ নিয়ে এই কলেজের স্বর্ণালী যুগের সবার আফসোস প্রতিনিয়ত শুনি। কিন্তু কেন ? অনেকই বলেন নোংরা রাজনীতির বলি এই কলেজ, আবু ইউসুফ স্যার জানালেন মোনায়েম বিল্লাহর মত প্রিন্সিপালের অভাব, কেউ বলেন শিক্ষাকে বাণিজ্যিক দৃষ্টিতে দেখার কুপ্রভাব।
.
গত কয়েকবছরের এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফল যদি বিশ্লেষণ করা হয়, তবে পরিসংখ্যান বলবে তেমন ভালো না। আবার নতুন চালু হওয়া অনার্সের রেজাল্ট এবং ডিগ্রির রেজাল্ট ভালো। তবে এইচএইচসি রেজাল্টে সমস্যা কেন ?
.
এই কলেজে বর্তমানে যারা শিক্ষকতা করছেন তাদের কোয়ালিটি, আন্তরিকতা, মেধা যথেষ্ট ভালো। উনাদের অনেকেই সৃজনশীল কাজের সাথে যুক্ত। আমি অনেক শিক্ষককে দেখেছি তাদের নিজ নিজ অবস্থান থেকে শিক্ষায় ও সমাজে অবদান রাখতে। এই মানুষগুলো একটা টিম হয়ে কাজ করলে ঐতিহ্য আবারো হয়তো ফিরে আসবে।
.
আমি এক স্যারকে জিজ্ঞেস করেছিলেম, ইন্টারের রেজাল্ট খারাপ হয় কেন? স্যার বললেন ভালো কাঁচামাল না পেলে, ভালো পণ্য হবে কিভাবে? অনেকেই ভালো রেজাল্ট করে ভর্তি হয়ে যায় শহরের কলেজে। ভালো ছাত্রেরও সংকট আছে।
.
একবার ঢাকা যেতে যেতে পাশের সিটে এক ভদ্রলোকের সাথে কথা হচ্ছিলো। ভদ্রলোকের বাড়ি সন্দ্বীপ, বহুজাতিক প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা। গাড়ি নিজামপুর কলেজ অতিক্রম করতেই দীর্ঘশ্বাস নিলেন। বললেন, এই কলেজের পাশে অনেকগুলো হোস্টেল ছিলো, সেখানকার একটায় থাকতেন। কত সমৃদ্ধ ছিলো এই এলাকা।
.
একসময় কলেজকে ঘিরে এমন সুনাম ছিলো যে এরশাদের আমলে মিরসরাই, সীতাকুন্ড, সন্দ্বীপকে নিয়ে নিজামপুর নামে পৃথক একটি জেলা গঠনের দাবী উঠেছিলো।
.
কিন্তু যে নিজামপুরের এত ঐতিহ্য ছিলো। সে নিজামপুরে বর্তমানে কোন অতিথিকে আপ্যায়ন করার মত একটি ভালো হোটেলও নেই। একটি কলেজকে কেন্দ্র করে যে অর্থনীতি গড়ে উঠার কথা, সমৃদ্ধ হওয়ার কথা সেটি হয়েছে কই!
.
আবু ইউসুফ স্যারের কথায় আবার ফিরে আসি। উনি বললেন, এই কলেজে যদি পুনর্মিলনী হয় কিংবা পুরাতনদের আরেকটু মর্যাদা দেয়, তবে বর্তমান ছাত্রদের অনুপ্রেরণা আর দৃষ্টান্তের অভাব থাকতো না। সত্যিই তো, আমাদেরও জানা দরকার প্রতিষ্ঠিত মানুষদের কথা।
.
সরকারীকরণ আমি মনে করি নিজামপুর কলেজের পুণ:জাগরণের পথে বড় মাইলফলক। ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে প্রতিযোগিতামূলক মনোভাব আর পরিবেশ গড়ে উঠলে, এই কলেজের সমৃদ্ধ অতীতের মত ভবিষ্যৎও যথেষ্ট ভালো হবে। আমরা সবাই সেই সুন্দর ভবিষ্যতের অপেক্ষায়…….

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*