নিরবে না ফেরার দেশে চলে গেলেন সকলের প্রিয় মুক্তিযোদ্ধা জামসেদ আলম

এম. জামশেদ আহমেদ >>>

মোঃ জামসেদ আলম মিরসরাই উপজেলার ঐতিহ্যবাহি মলিয়াইশ উচ্চ বিদ্যালয়ের ১৯৭৫ ব্যাচের শিক্ষার্থী ছিলেন। পশ্চিম মিঠানালা গ্রামে ছিল স্থায়ী নিবাস। আমার এক বছরের সিনিয়র ছিলেন তিনি। তাঁর পিতা প্রখ্যাত আলেম মৌলানা সুলতান আহমদ ঐতিহ্যবাহী সুফিয়া নুরিয়া মাদ্রাসায় পীরে কামেল মৌলানা আদুল গণির সাথে মোদারেছিন ছিলেন। তিনি বন্ধুবৎসল, অমায়িক ও মিশুক প্রকৃতির ছিলেন। সুদর্শন, আকর্ষনীয় চেহারা ও সাদা মনের মানুষ ছিলেন।নামের সাথে মিল থাকায় আমাকে বেয়্যাই বলে সম্বোধন করতেন। বড় ভাইয়া শেহাব উদ্দিন, রেদোয়ান ভাই ও তাহের ভাইয়ের সাথে বিশেষ বন্ধুত্ব ছিলো। গল্প করা পছন্দ করতেন। আড্ডা জমিয়ে ফেলতেন। প্রায়ই রেদোয়ান-তাহের ভাইদের আমিনুর রহমান মাষ্টার বাড়ীতে আসতেন। কম বয়সে ১৯৭১ এর মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন। সাহসী কিশোর মুক্তিযোদ্ধা বলা যেতে পারে। নবম শ্রেণীতে পড়ার সময় হতে সহোদর বড় ভাইকে নিয়ে বিদ্যালয়ের হোস্টেলে থাকতেন। পরিবারের বাহিরে মুক্তভাবে কিভাবে খাচ্ছেন, রাঁধছেন, কি খাচ্ছেন, শ্রেণীকক্ষের বাহিরে বা কি করছেন ইত্যাদি স্বাতন্ত্র জীবনবোধ ছাত্র-ছাত্রীদের আলাদা কৌতুহল ও নজর কেড়েছিল।

রাজনীতিতে বেশ সোচ্চার ছিলেন। ১৯৭১ সনের মহান মুক্তিযুদ্ধের আগে ও পরে স্কুল পর্যায়ে ছাত্র রাজনীতি ছিল। প্রত্যক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে ছাত্র সংসদ গঠন করা হতো। ১৯৭৩ সনে প্রথমবারের মত মলিয়াইশ উচ্চ বিদ্যালয়ে ছাত্র সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে দুটো প্যানেল অংশগ্রহণ করে। (১) কাইয়ুম-জামসেদ পরিষদ: মুজিববাদ সমর্থিত ছাত্রলীগ। (২)আলী-মাহফুজ পরিষদ:আ.স.ম. রবের জাসদ সমর্থিত ছাত্রলীগ। জামসেদ আলম ভাই কাইয়ুম-জামসেদ পরিষদের জি.এস.(সাধারন সম্পাদক)পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেন। আমি উক্ত পরিষদের সমর্থিত ছিলাম। প্রতিবাদী শ্লোগান স্বাধীনতার মূলমন্ত্রে সমগ্র জাতিকে উজ্জীবিত করেছিল। ছাত্রদের কাছে মনমাতানো শ্লোগান বেশ আকর্ষণ করতো। মিছিল-শ্লোগান যে যত বেশী জমাতে পারতো, তত বেশী সমর্থন পেতো। আমি বেশ জোরে জমিয়ে শ্লোগান দিতে পারতাম। কাইয়ুম-জামসেদ পরিষদকে জেতানোর জন্য আমার পরিচালনায় সমস্বরে উচ্চারিত হতো:-শেখ শেখ শেখ মুজিব লও লও লও সালাম……কাইয়ুম-জামসেদ পরিষদ:সবার সেরা পরিষদ। কাইয়ুম-জামসেদ যেখানে:আমরা আছি সেখানে, ভোট দিব কোনখানে:কাইয়ুম-জামসেদ যেখানে। ইনশাআল্লাহ জিতে যাবে কাইয়ুম- জামসেদ….ইত্যাদি। (২) শ্লোগানগুলো যেন এখনো কানে বাজে। একটু গন্ডগোল হলেও কাইয়ুম-জামসেদ পরিষদ কিন্তু তাদের স্বপক্ষে জেতার রায় পেয়েছিল। জামসেদ আলম ভাই মলিয়াইশ উচ্চ বিদ্যালয় ছাত্র সংসদের জি.এস. (সাধারন সম্পাদক)নির্বাচিত হয়েছিলেন। উল্লেখ্য ১৯৭৩ এর পূর্বে ও পরবর্তীতে অদ্যাবধি অত্র বিদ্যালয়ে ছাত্র সংসদ নির্বাচনের কথা জানা যায় নাই। এলাকার জন্য ইতিহাস বলা যেতে পারে।

তিনি ষাটোর্ধ্ব বুড়ো হয়েছিলেন কিনা বুঝা যেতোনা। চেহারা, মুখের অবয়ব, স্লিম শরীর, মাথায় কালো চুল ইত্যাদি মিলিয়ে যৌবনে যেমন দেখেছিলাম সারাজীবন তেমনই সুদর্শন ছিলেন। দিন কয়েক আগে বড় ভাইয়া শেহাব উদ্দিন খবর দিলেন, জামসেদ বেয়্যাই ভীষণ অসুস্থ!চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। ২১ জুন দুপুর ১২ টা ২০ মিনিটের সময় তিনি পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে না ফেরার দেশে চলে যান। ওইদিন বিকাল সাড়ে ৫ টায় পশ্চিম মিঠানালা গ্রামে তাঁকে পারিবারিক কবরস্থানে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করা হয়। জি.এস. জামসেদ আলম এর কথা কেউ কোন সময় বলছেনা। তাঁর পরিষদকে জিতানোর জন্য কত শতবার না শ্লোগান দিয়ে বিদ্যালয় প্রাঙ্গন মুখরিত করেছি। আজ সবেই স্মৃতি।

১৯৭১ এর রনাঙ্গনে মহান মুক্তিযুদ্ধের অকুতোভয় সৈনিক।কিশোর বয়সে অস্ত্র হাতে দেশ মার্তৃকার স্বাধীনতার জন্য যুদ্ধ করেছেন। মুক্তিযুদ্ধে জয়ী হলেও জাতির আর একটি দুর্দিনে মৃত্যুকে জয় করতে পারেন নাই। নীরবে চলে গেলেন।

বাঙ্গালীর ঐতিহ্যে মজাদার খাবার পরিবেশনে কুটুম্ব রেঁস্তোরা চট্টগ্রাম শহরে বেশ সুখ্যাতি অর্জন করেছে। জানতে পেরেছি, জামশেদ ভাই কুটুম্বের মালিকের আত্মীয়। কুটুম্বরা জীবনের শেষ সময় হাসপাতালে দেখাশুনাসহ দাফন-কাফনে সার্বিক সহযোগিতা করেছে। স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ‘শেষ বিদায়ের বন্ধু’ আন্তরিকতার সাথে তাঁকে দাফন-কাফনের দায়িত্ব পালন করে। ইতিমধ্যে শেষ বিদায়ের বন্ধু সংগঠন মিরসরাই গন্ডি পেরিয়ে অন্য উপজেলা ও জেলায় দাফন-কাফনের কার্য্য সম্পাদন করেছে। কুটুম্বদের কুটুম্বিতা ও শেষ বিদায়ের বন্ধু’ সংগঠনের আন্তরিকতা বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। যেন মানবতার নতুন ইতিহাস সংযোজিত হয়েছে।

বর্তমান করোনাকালীন সময়ে বাসায় থাকুন।নিরাপদ থাকুন!সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন! নিজের সুরক্ষা নিজের হাতে! ইত্যাদি চলছে।একবারও তাঁকে দেখতে কিংবা জানাযায় অংশ নিতে পারলামনা। বড় বেশী নিষ্ঠুর হয়ে গেলাম। আমি বিচলিত! শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছি। আল্লাহ তাঁকে বেহেস্ত নসীব করুন। আমিন।

লেখক: এম. জামশেদ আহমেদ, সহকারী মহা ব্যবস্থাপক, বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক, চট্টগ্রাম।প্রাক্তন ছাত্র-মলিয়াইশ উচ্চ বিদ্যালয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*