বিপদ বনাম বন্ধুত্ব

সৈয়দ আজমল হোসেন…

ঘড়ির কাটায় সময় রাত দুটো। কলেজ হোস্টেলের সকলেই ইতিমধ্যে ঘুমিয়ে পড়েছে। এই সময়টার অপেক্ষায় ছিল শরীফ। এবার তার বেরুবার পালা। ইদানিং রোজই সে হোস্টেল থেকে বের হয়ে যায়। ঠিক এই সময়ে। তার চোখের ঘুম নাই হয়ে গেছে বেশ কয়েক দিন আগে থেকে। আজো তার ব্যতিক্রম হয়নি। ঘড়ির কাটায় দুটো বাজতেই খাট থেকে অতি সন্তর্পণে নেমে পড়ল।লাইট না জ্বালিয়ে মোবাইলের হালকা আলোতে এগিয়ে গেল দরজার দিকে। কোন প্রকার শব্দ ছাড়াই দরজা খুলে বের হয়ে গেল শরীফ। চাঁদ রাত। আধো আলো, আধো অন্ধকার। ঝকঝকে চাঁদের আলোতে অন্ধকারের আবির্ভাব ঘটাচ্ছে উড়ে এসে জুড়ে বসা ভাসমান মেঘ। হোস্টেলের সামনে মাঠ। মাঠের পাশে দীঘি। দখিনা বাতাসে দীঘির জলে জেগে উঠছে ঢেউ। চাঁদের আলো, দীঘির জল এই দু মিলে সৃষ্টি করেছে এক রোমাঞ্চকর দৃশ্যের। এ দিকে তার খেয়াল নেই একদম। তার পূর্ণ মনযোগ কলেজের ছাদে। এদিক অধিক না তাকিয়ে সোজা চলে গেল কলেজের করিডরে। কয়েক মিনিট পায়চারি করে সিঁড়ি বেয়ে উপরে উঠে গেল। আর নেমে এল প্রায় সাড়ে চারটার দিকে। এভাবে প্রতিদিন ছাদে উঠা নামা চলতে থাকে শরীফের।

ছোটবেলা থেকেই একটু একগুয়ে স্বভাবের ছিল শরীফ। পুরো নাম শরীফুল ইসলাম ফারুকী। মোটাসোটা আর নাদুস নুদুস গোছের। গোলগাল চেহারা। বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র। ইন্টারমিডিয়েট সেকেন্ড বর্ষে পড়ে। আর যাই হোক, হারকে সে মানবে না এটাই তার জিত। কলেজের সর্বোচ্চ রেজাল্ট তার থাকতেই হবে। দুষ্টুমিতেও কলেজ সেরা সে। দুনিয়ার যতো দুষ্টুমি সবই তার আয়ত্ত্বে। সাধারণ জ্ঞান, সাম্প্রতিক বিশ্ব বলতেই তার নখ দর্পণে সব। তাকে নিয়ে গর্বিত পুরো কলেজ। একবার ক্লাসে একটা জটিল সূত্রের প্রমাণ করে দেখাচ্ছিলেন স্যার। সূত্রটি এতই জটিল যে এলোমেলো হয়ে যায় স্যারের মাথা। ভূলভাল প্রমান করে দিলেন। ক্লাসের সবাই যখন নোট করতে ব্যস্ত, শরীফ তখন ভূল ধরা নিয়ে ব্যস্ত। দাঁড়িয়ে গেল সে। আর স্যারের ভূল ধরিয়ে দিল সহজ ভাষায়। এরকম হাজার প্রমাণও রয়েছে তার শানিত মেধার। গত বছর সে সেরা মেধাবী হিসেবে উপজেলা সেরা মেধা পুরস্কার অর্জন করেছে। পুরস্কার  গ্রহনের সময় তার দু গাল বেয়ে অবিরাম ধারায় বইছিল লোনা জলের ঝর্ণা। বাঁধ দিয়েও ধরে রাখতে পারেনি এই স্বয়ংক্রিয় ঝর্নার জল। মুহূর্তেই বেজে উঠলো হাজার হাজার করতালি।

দু মাস আগের শরীফ আর এখনকার শরীফের মধ্যে আকাশ পাতাল তফাৎ। যে শরিফ আগে রুটিন করে পড়ত, খেলত, ঘুমাত আজ তার জীবন এলোমেলো, বিপন্ন। এখন তাকে সারাক্ষণ গভীর চিন্তায় ডুবে থাকতে দেখা যায়। এখন সে নিয়ম মাফিক খাওয়া দাওয়া করে না। পড়াশুনা করেনা তেমন। একা একা থাকে। মাঝে মাঝে বিড় বিড় করে যেন কার সাথে কথা বলে। রাত জেগে অপেক্ষায় থাকে দুটোর। তার এই সমসাময়িক অবস্থার আঁচ করতে পারে তার সবচে’ কাছের বন্ধু সায়েফ। পুরো নাম আকরাম খান সায়েফ। একি ক্লাসে একি বিভাগে পড়ে সে ও। সায়েফ এখন ঘুমের ভান করে থাকে দুটো পর্যন্ত।  আর অপেক্ষা করে কখন শরিফ হোস্টেল থেকে বের হবে। শরিফ আজো ঠিক দুটো আস্তে আস্তে  রুম থেকে বের হল। আজ তাকে ফলো করছে সায়েফ। শরীফ সোজা ছাদে উঠে গেল পিছু পিছু সায়েফ ও। ছাদে উঠে ওদিক অধিক তাকাল শরিফ। সায়েফ লুকিয়ে রইলো একটি পিলারের আড়ালে। কিছুক্ষণ মূর্তির মত দাড়িয়ে থেকে বিড়বিড় করে কথা বলতে শুরু করল। অস্পষ্ট শব্দ শুনতে পাচ্ছে সায়েফ। নিশব্দে এক এক পা করে এগিয়ে গেল সায়েফ আর পিছন থেকে ঝেঁকে দিল শরিফকে। চমকে উঠল শরিফ।

মাস খানেক আগের কথা, একদিন আমি গভীর রাতে হোস্টেল থেকে বের হয়েছিলাম। আমি যখন দীঘির পাড়ে গেলাম কিছু একটা আমাকে ভয় দেখাল, আর আমি সেন্সলেস হয়ে গেলাম। যেখানে সকালে তোরা আমাকে সেন্সলেস অবস্থায় পেয়েছিলি। সেই থেকে সারাক্ষণ সুন্দরি একটা মেয়ে আমাকে ডাকে। এতই সুমধুর কণ্ঠে ডাকে না গিয়ে আমি থাকতে পারি না। ওর ডাক আমাকে উতাল করে তুলে। অপেক্ষায় থাকি সবাই ঘুমানোর। আর সবার চোখে ঘুম লাগলেই বের হয়ে পড়ি ওর সাথে দেখা করতে। তখন থেকে প্রতিদিন তার সাথে আমার কথা হয়। আমি যখন ক্লাসে থাকি ও বাইরে থেকে আমাকে ডাকে। পড়ায় মন বসাতে পারিনা আমি। ওর জন্য আমি পাগল হয়ে থাকি। ওকে আমার করে দিতে পারবি চিরদিনের জন্য?” – সায়েফকে বলতে লাগলো শরিফ।

শরিফ মানসিক রোগে ভুগছে, তা বুঝতে কারর’ই বাকি রইলো না। সায়েফ শরিফের পরিবার আর শিক্ষকদের বুঝিয়ে বলল ব্যাপারটা। সিদ্ধান্ত নেয়া হল তাকে মানসিক হাসপাতালে নেয়া হবে। কয়েক দিন পর তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হল। তার মাথায় অপারেশন করা হল। তার কিছুদিন পর শরিফ সুস্থ হয়ে উঠলো। সব কিছু স্বাভাবিক হয়ে গেল। সে এখন আর রাতে বের হয়ে যায় না। সে এখন আর দেখেনা সেই মেয়েটিকে। সায়েফের প্রতি কৃতজ্ঞতায় ভরে উঠেছে শরিফের মন। তার মত বন্ধু না থাকলে হয়ত তার আর ভাল হয়ে উঠা হত না!
(সমাপ্ত)

সৈয়দ আজমল হোসেন
সাংবাদিক (চলমান মিরসরাই)
সদস্য- মীরসরাই প্রেস ক্লাব

3 comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*