মিরসরাই উপজেলা যুবলীগের নেতৃত্বে আসতে সাবেক ছাত্রলীগ নেতাদের দৌড়ঝাঁপ

নিজস্ব প্রতিবেদক>>

নেতৃত্বের আলোচনায় আবারও সরব হয়ে ওঠেছে মিরসরাই উপজেলা যুবলীগ।শুরু হয়েছে প্রার্থীদের দৌঁড়ঝাপ।সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক পদে রয়েছেন একাধিক প্রার্থী। শেখ হাসিনার জন্মদিনে আলাদা আলাদা শোড়াউন করেছে দুটি গ্রুপ।
আগামী নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে সম্মেলনের মাধ্যমে যুবলীগের নেতৃত্ব নির্বাচনের কথা জানান মিরসরাই উপজেলা যুবলীগ বর্তমান আহ্বায়ক কমিটি।সম্মেলন এবং নেতৃত্ব উভয় দিক বিবেচনা চারদিকে যুবলীগের সম্ভাব্য প্রার্থীদের আনাগোনা চারিদিকে বেড়েছে বহুগুনে। তবে বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে সম্মেলন না হয়ে সিলেকশানে কমিটির হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে একাধিক সূত্রে জানা গেছে।

উপজেলা যুবলীগের নেতৃত্ব নির্বাচনের ক্ষেত্রে সভাপতি পদে আলোচনায় রয়েছে তিনটি নাম।যাদের প্রত্যেকেই সাবেক ছাত্রনেতা। তারা হলেন মিরসরাই উপজেলা যুবলীগের যুগ্ন-আহবায়ক মোশাররফ হোসেন মান্না, যুগ্ম আহবায়ক মাহফুজ আলম ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক মাইনুর ইসলাম রানা।
অন্যদিকে সাধারণ সম্পাদক পদে আলোচনায় রয়েছেন মিরসরাই উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক ইমরান হোসেন সোহেল, সাবেক যুগ্ম আহবায়ক ইব্রাহীম খলিল ভূঁইয়া,চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক উপ-ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মেজবা বাবু ও উত্তরজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য মেজবাউল করিম সোহেল। এছাড়া সাধারণ সম্পাদক প্রার্থীতা ঘোষনা করেছেন হিঙ্গুলী বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সংসদের সভাপতি শাহরিয়ার সোহেল।
সভাপতি ও সাধারণ পদের প্রত্যেকেই মিরসরাই উপজেলা এবং চট্টগ্রাম উত্তরজেলা ছাত্রলীগের সাবেক দায়িত্বশীল ছিলেন।নেতৃত্বের প্রশ্নে যুবলীগের নেতাকর্মীরা দুঃসময়র ছাত্রলীগের রাজনীতিতে জড়িত ছাত্রনেতাদের মূল্যায়নের দাবি জানান।
উপজেলা যুবলীগের সভাপতি পদে আলোচিতদের অন্যতম একজন মোশাররফ হোসেন মান্না।১৯৯৪ সালে রাজনীতিতে আসা মোশাররফ হোসেন মান্না ছিলেন জোরারগঞ্জ টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক ভিপি এবং জি এস।ছিলেন উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এবং ছিলেন চট্টগ্রাম উত্তরজেলা ছাত্রলীগের নেতৃত্বে।সর্বশেষ তিনি দায়িত্ব পালন করছেন মিরসরাই উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক হিসেবে। অন্যদিকে সভাপতি পদে আলোচনায় রয়েছেন মাহফুজ আলমের নাম। যিনি ১২ নং খৈয়াছরা ইউনিয়ন ছাত্রলীগ, চট্টগ্রাম সরকারি কর্মাস কলেজ ছাত্রলীগ,মিরসরাই উপজেলা ছাত্রলীগ এবং চট্টগ্রাম উত্তরজেলা ছাত্রলীগের নেতৃত্বে থেকে গড়েছেন রাজনৈতিক ক্যারিয়ার।বর্তমানে দায়িত্ব পালন করছেন উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক হিসেবে। সভাপতি পদে আলোচনায় রয়েছেন সাবেক ছাত্রনেতা মাইনুর ইসলাম রানার নাম। তৃণমূল রাজনীতি থেকে বেড়ে ওঠা রানা ছিলেন সরকারহাট উচ্চ বিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি,নেতৃত্বে মেধার পরিচয় দিয়ে নির্বাচিত হয়েছিলেন চট্টগ্রাম উত্তরজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি,এরপর দীর্ঘ ৫ বছরের ও বেশী সময় পালন করেছেন মিরসরাই উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়কের দায়িত্ব। তাঁর নেতৃত্বে উপজেলার ১৮টি ইউনিটের ছাত্রলীগের কমিটি গঠন হয়েছে এবং মিরসরাই ছাত্রলীগের ইতিহাসে সফল আহবায়কও তিনি।

মাইনুর ইসলাম রানা বলেন, বঙ্গবন্ধুর আর্দশে দীক্ষিত হয়ে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে পড়াশোনাকালীন ছাত্রলীগের মাধ্যমে রাজনীতির হাতেখড়ি হয়। স্কুল জীবন থেকে প্রায় ১৮-২০ বছর ধরে আমার প্রিয় নেতা ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের রাজনৈতিক আদর্শ আমাকে অনুপ্রাণিত করে। আমি মোশাররফ হোসেনের একজন আস্থাভাজন কর্মী হিসেবে তার সান্নিধ্যে গিয়ে প্রিয় নেতার সকল প্রকার সিদ্ধান্তের বাস্তবায়নের চেষ্টা করছি। যতদিন বেঁচে থাকবো প্রিয় নেতার আদর্শে রাজনীতি করে যাবো।
তিনি আরো বলেন, দলের দুঃসময়ে রাজপথে অগ্রভাগে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছি। অনেক হামলা-মামলার শিকার হয়েছি। শত জেল জুলুম নির্যাতনের পরেও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ থেকে বিচ্যুতি হইনি। ২০১৩-২০১৪ সালে বিএনপি-জামায়াতের জ্বালাও পোড়াও কর্মকান্ড সর্বস্তরের নেতা-কর্মীদের সাথে নিয়ে প্রতিহত করেছি, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, সাবেক মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি’র স্বপ্নের আধুনিক ও পরিকল্পিত মিরসরাই গঠনে কাজ করবো। তারুণ্যের অহংকার আইটি বিশেষজ্ঞ ইঞ্জিনিয়ার মাহবুবুর রহমান রুহেলের ভিশন মাদকমুক্ত মিরসরাই ও দক্ষ জনশক্তি গঠনে সচেষ্ট থাকবো।

এদিকে সাধারণ সম্পাদক পদে আলোচিত নাম ইমরান হোসেন সোহেল।যিনি দায়িত্ব পালন করেছেন দূর্গাপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি হিসেবে এবং দায়িত্ব পালন করেছেন মিরসরাই উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক হিসেবে।
সাধারণ সম্পাদক পদে বেশ আলোচনায় ইব্রাহীম খলিল ভূঁইয়া।যিনি দায়িত্ব পালন করেছেন উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক হিসেবে। প্রার্থীতা ঘোষণা করে তিনি উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে চষে বেড়াচ্ছেন।

এছাড়া সাধারণ সম্পাদক পদে আলোচনায় রয়েছেন মেজবা বাবু এবং মেজবা সোহেলের নাম।দীর্ঘদিন ছাত্ররাজনীতিতে সক্রিয় থাকা দুই সাবেক ছাত্রনেতা এবার নির্বাচিত হতে চান উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক।সাধারণ সম্পাদক পদে আলোচনায় থাকা মেজবা বাবু জড়িত ছিলেন তৃণমূল ছাত্রলীগে,এরপর দায়িত্ব পালন করেন চট্টগ্রাম উত্তরজেলা ছাত্রলীগের উপ-ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক হিসেবে। তিনি ক্লিন ইমেজের ছাত্রনেতা হিসেবে সকলের আস্থা অর্জন করেন।

অন্যদিকে মেজবাউল করিম সোহেলও আলোচনায়। ছাত্র রাজনীতি করে ওঠা আসা সোহেল দায়িত্ব ছিলেন ৫নং ওচমানপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি এবং দায়িত্ব পালন করেছেন চট্টগ্রাম উত্তরজেলা ছাত্রলীগের সদস্য হিসেবে।

এই যুবলীগের নেতৃত্ব নিয়ে দুঃসময়ের ছাত্রদের মূল্যায়নের দাবি জানান বিভিন্ন ইউনিটের সভাপতি সম্পাদকবৃন্দ।

৮ নং দুর্গাপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি সলিম উদ্দিন বলেন,দুঃসময়ে ছাত্রলীগ করা নেতাদের যুবলীগে মূল্যায়ন করা প্রয়োজন।
কেননা দুঃসময়ে বীর চট্টগ্রামের কিংবদন্তী নেতা ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের পাশে ভ্যানগার্ড হিসেবে এরাই ছিলো।আগামী উনার যোগ্য উত্তরসূরী মাহবুব রুহেলের হাতকে শক্তিশালী করতে হলে ত্যাগীদের মূল্যায়ন প্রয়োজন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*