সফলতার ঝুঁড়ি কাঁধে বহন করে দ্বিতীয় বারের মতো চেয়ারম্যান হওয়ার পথে এগিয়ে নয়ন


আব্দুল্লাহ রাহাত>>>

কথায় বলে সফলতা কিংবা ব্যর্থতার হিসাব করতে নেই।তবে রাজনীতি মাঠে কিংবা জনপ্রতিনিধিদের ঘাড়ে ব্যর্থতার দায়ভার যেন বেশি চাপে।রাজনীতি মাঠ থেকে জনপ্রতিনিধি হওয়াটা যেমন টিকে থাকার লড়াই ঠিক তেমনি একটি দীর্ঘ কন্টকময় পথ পাড়ি দেওয়ার সংগ্রাম।

এই সংগ্রামে টিকে থেকে একজন রাজনীতিবীদ হতে পারেন জনপ্রতিনিধি।তারপর শুরু হয় ব্যর্থতা কিংবা সফলতার হিসাব।সে হিসাব কষতেই মিরসরাইয়ের ১৮ টি ইউনিটের সফল এবং কর্মঠ জনপ্রতিনিধিদের তালিকায় সবার প্রথমে ওঠে আসে করেরহাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এনায়েত হোসেন নয়নের নাম।

করেরহাট ইউনিয়নের পশ্চিম জোয়ারে এক মুসলিম সম্রান্ত পরিবারের জন্ম এই রাজনীতিবীদের।বাবা মরহুম রফিক আহমেদ স্বাধীনতার পূর্বে এই ইউনিটের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন।স্বাধীনতা ৪০ দশকে বাবার সেই সিংহাসনে আহরণ করেন চেয়ারম্যান এনায়েত হোসেন নয়ন।মাতা চশমেয়ারা বেগম ছিলেন একজন গৃহিণী।দাদা সি এন সি জাফর ছিলেন চট্টগ্রাম উত্তরজেলা আওয়ামী লীগের অন্যতম বর্ষিয়ান রাজনীতিবিদ।রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান হওয়ায় খুব ছোটবেলা থেকেই সান্নিধ্য পান চট্টগ্রামের প্রবীণ এবং বর্ষিয়ান রাজনীতিবীদ,আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের।মাত্র মাত্র ১২ বছর বয়সে সপ্তম শ্রেণীতে পড়া অবস্থায় করেরহাট কে এম উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়ে দশম শ্রেণী পর্যন্ত এই দায়িত্ব পালন করেন।তারপর ১৯৮৯ এসএসসি পাস করার পর ভর্তি হন চট্টগ্রাম সরকারি সিটি কলেজ।এইচএসসি পাশের পর ঢাকা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে অর্নাস প্রথম বর্ষের ছাত্রলীগের আহবায়ক এর দায়িত্ব পালন করেন তিনি।অর্নাস মাষ্টার্স শেষে ভর্তি হন মিরপুর ল কলেজে।নির্বাচিত হন মিরপুর ল কলেজ ছাত্র সংসদের ভিপি।পড়াশোনা শেষ করে আবারো ফিরে আসেন নিজ এলাকায়।তৎকালীন ৪ দলীয় বি এন পি-জামাত জোট সরকারের আমলে করেরহাট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হয়ে আনুষ্ঠানিক ভাবে আওয়ামী রাজনীতিতে পদচারণা শুরু হয় এনায়েত হোসেন নয়নের।এরপর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-প্রচার সম্পাদক নির্বাচিত হন তিনি।দীর্ঘ দশ বছর পালন করেন এই দায়িত্ব।তারপর ২০১২ সালে মিরসরাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন এই রাজনীতিবিদ।ধীরে ধীর জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন মিরসরাই উপজেলার আওয়ামী রাজনীতিতে।সে সুবাধে ২০১৫ সালে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন পেলে ও অভ্যন্তরীণ কোন্দলে সে বার ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত না হওয়ার বাসনা থেকে গেছে এই চেয়ারম্যানের।তবে সবশেষে ২০১৬ সালে ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের আস্থাভাজন হয়ে দলীয় মনোনয়ন পেয়ে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় প্রথমবারের নির্বাচিত হয়েছিলেন করেরহাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান।

এরপরের দৃশ্যপট শুধুই বদলে যাওয়ার।একটি জরাজীর্ণ এবং মাদকাসক্ত জনপদকে রাঙিয়ে তুলেছেন শান্তির জনপদে।গত ৪ বছরে করেরহাট ইউনিয়নের ৯টি ওর্য়াডের দৃশ্যমান বহু প্রকল্পের পিছনের কারিগরের নাম এনায়েত হোসেন নয়ন।যিনি শিক্ষা,স্বাস্থ্য,চিকিৎসা এবং পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতায় ব্যাপক পরিবর্তন নিয়ে আসেন।ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়কে করে তুলেন তথ্য এবং প্রযুক্তি নির্ভর।বিধবা ভাতা,বয়স্ক ভাতা সহ নানা খাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন তিনি।নারীর ক্ষমতায়ন,সামাজিক নিরাপত্তা বেস্টনীতে অবদানের জন্য বেশ প্রশংসা কুড়িয়েছেন এই জনপ্রতিনিধি।নারীর আর্থিক কর্মসংস্থানের জন্য ব্যক্তিগত অর্থায়নে অসহায় দরিদ্র মা বোনদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ ও বিভিন্ন কর্মসংস্থান সৃষ্টি করেন নয়ন চেয়ারম্যান।এছাড়া অটিজম নারী শিশুদের জন্য ব্যক্তিগত উদ্যোগে নাবিল বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন তিনি।করেরহাট ইউনিয়নের বিভিন্ন ওর্য়াডের গ্রামীণ সড়ক এবং গুরুত্বপূর্ণ সড়ক সহ অবকাঠামোগত ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হয় চেয়ারম্যান নয়নের আমলে।শিক্ষা ক্ষেত্র সুদূর প্রসারী ভূমিকা পালন করেন তিনি।দীর্ঘ ১৫ বছর করেরহাট গনিয়াতুল উলুম হোসানিয়া মাদ্রাসার সভাপতির দায়িত্ব পালন করে আসছেন চেয়ারম্যান নয়ন। এছাড়া সভাপতি হিসেবে গত ২ বছর যাবত দায়িত্ব পালন করেছেন হাবিলদার বাসা আঙ্গুরের নেছা উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের।এনবি শিশু একাডেমীর দায়িত্ব ছিলেন দীর্ঘ ১৫ বছর।সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বিষয় তিনি করেরহাট ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীদের জন্য কালাপানীয়া তে শেখ রাসেল নামে বেসরকারি প্রাথমকি বিদ্যালয় এবং ৯ নং ওর্য়াডে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর শিক্ষার জন্য নলখো উপজাতি পাড়ায় নিজ অর্থায়নে ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেনের নামে বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেন।তাছাড়া বারইয়ারহাট ডিগ্রী কলেজ ছাত্র সংসদের ভিপি প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন বিগত কয়েক বছর।এনায়েত হোসেন নয়ন এনজিও সংস্থার তত্ত্বাবধানে সকল ওয়ার্ডে পথশিশুদের জন্য বৈকালীন পাঠদানের জন্য ৪০ টি কেন্দ্র পরিচালনা করেন। অপকার মাধ্যমে স্বাস্থ্য সমগ্র শিক্ষা উপকরণ প্রতিবাদে বিতরণ করেন তিনি।

মিরসরাই মাদকের আস্তানাখ্যাত করেরহাটকে মাদকের রোষানল থেকে অনেকাংশে মুক্ত করতে সক্ষম হন এই চেয়ারম্যান।এই ব্যাপারে তিনি করেরহাটে এন্টি ড্রাগ অরগানাইজন যুব সমাজের চিন্তায় ধারা পরিবর্তন ও সমাজিক সচেতনতা সৃষ্টি করা,করেরহাট ইউনিয়নের ১১ টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ৫টি উচ্চ বিদ্যালয়সহ বেশ বিভিন্ন স্থানে কয়েকবার সভা-সেমিনার করা ও প্রতিটি ওয়ার্ডে জনসচেতনতার জন্য মাদক বিরোধী পোস্টার লিফলেট বিতরণ করেন তিনি।এছাড়া প্রতিটি ওর্য়াডে মানুষের মৃত্যুর পর যারা কবর খোড়ার কাজে নিয়োজিত থাকেন তাদের সবাইকে সম্মাননা স্মারক প্রদান করেন চেয়ারম্যান নয়ন।

এছাড়া একজন রাজনীতিবীদ হয়ে ও সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষের মিশে একাকার হয়ে যাওয়ার ক্ষমতা চেয়ারম্যান নয়নকে গড়ে তুলেছেন আরো বেশি অনন্য।সম্পৃক্ত রেখেছেন সামাজিক কর্মকান্ডে।অভিযান ক্লাব,উদয়ন ক্লাব,মিরসরাই প্রেস ক্লাব,করেরহাট বাজার কমিটি,চট্টগ্রাম জেলা রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি,করেরহাট ইউনাইটেড ক্লাব,মাদকমুক্তি ফাউন্ডেশন সহ আরো সামাজিক,সাংবাদিক সহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনে নিজেকে সক্রিয় রেখেছেন এই জনপ্রতিনিধি।

চেয়ারম্যান এনায়েত হোসেন নয়নের আমলর ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হওয়ার খুশি এলাকার জনসাধারণ ও।করেরহাট ইউনিয়নের বাসিন্দা ইকবাল হোসেন বলেন,করেরহাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের আমলে সর্বোচ্চ উন্নয়ন এবং শিক্ষা ক্ষেত্রে ও মাদক নির্মূলে সবচেয়ে কার্যকরি ভূমিকা পালন করেন তিনি।

একই ইউনিয়নের হাবিলদার বাসার সেলিম বলেন,করেরহাট ইউনিয়ন পরিষদ আগের চেয়ে অনেক বেশি তথ্য ও প্রযুক্তি নির্ভর হয়েছে।অতীতে করেরহাটবাসী এমন সেবা পায় নি বলে তিনি উল্লেখ করেন।এছাড়া তিনি বলেন, এনায়েত হোসেন নয়ন একজন জনবান্ধন চেয়ারম্যান।

করেরহাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এনায়েত হোসেন নয়ন বলেন,মিরসরাই মাটি ও মানুষের নেতা,আমার রাজনৈতিক গুরু ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের সান্নিধ্যে আমি ছোট বেলা থেকে পেয়েছি।আমি জানি কীভাবে মানুষের সেবা করতে হয়।আমার আমলে দৃশ্যমান যে গুলো হয়েছে কিংবা আমি কতটুকু সফল সেটা বিবেচনা করবে জনগন।আগামীতে আমার নেতা জনাব ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এবং উনার সুযোগ্য সন্তান বিশিষ্ট আইটি বিশেষজ্ঞ মাহবুব রুহেল ভাই আমাকে এবং কর্মকে মূল্যায়ন করে যদি আবার চেয়ারম্যান দায়িত্ব দেয় তাহলে আমি যে কাজ গুলো বাকি সেগুলো সমাপ্ত করে করেরহাট ইউনিয়কে বাংলাদেশের বুকে একটি রোল মডেল ইউনিয়ন হিসেবে গড়ে তুলবো।তিনি আরো বলেন,বাংলাদেশের আইটি খাতে এবং সাবমেরিন ক্যাবল সহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ খাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন মিরসরাইয়ের আগামীর কর্ণধার মাহবুব রুহেল।কিন্তু এই বিষয়টুকু অনেকের অজানা।আমাদের মিরসরাই বাসী সহ পুরো দেশবাসীকে মাহবুব রুবেলের অবদানের কথা জানানো উচিত।একটি উন্নত সমৃদ্ধ মিরসরাই গড়তে আমি মাহবুব রুহেলের ভিশন বাস্তবায়েন বদ্ধপরিকর।

রাজনীতিতে মাঠে উত্থান পতনের ইতিহাস রাজনীতিবিদদের জীবনে খুবই পরচিতি একটা ঘটনার অভিপ্রায়।চেয়ারম্যান নয়নের জীবনে এমন ঘটনার সম্মুখীন হয়েছেন অনেকবার।সর্বশেষ ২০১৯ সালে মিরসরাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে হেভিওয়েট প্রার্থী ছিলেন তিনি।সর্বশেষ আওয়ামী রাজনীতি মাঠে জীবনে সবচেয়ে বড় অর্জন হিসেবে চট্টগ্রাম উত্তরজেলা আওয়ামী লীগের প্রস্তাবিত কমিটিতে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক হিসেবে নাম লিখান এই চেয়ারম্যান।

সফলতার স্বীকৃতিস্বরুপ নানা পুরষ্কারে ভূষিত হন চেয়ারম্যান এনায়েত হোসেন নয়ন।সাম্প্রতিককালে তার কর্মদক্ষতার মাধ্যমে ১৯৩টি ইউনিয়নের মধ্যে করেরহাট ইউনিয়ন পরিষদ কর্মদক্ষতায় তৃতীয় স্থান অর্জন করে।যার ফলে পুরো মিরসরাই ব্যাপী তিনি প্রশংসার জোয়ারে ভাসছেন। বিষয়ে মিরসরাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ রুহুল আমিন বলেন, করেরহাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এনায়েত হোসেন নয়ন সক্রিয় এবং কর্মঠ। তিনি স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সকল নিয়ম কানুন মেনে চলার চেষ্টা করেন।

ধারাবাহিক সব সফলতার ঝুড়ি কাঁধে বহন করে নিয়ে এগিয়ে চলছেন এনায়েত হোসেন নয়ন।সবকিছু ঠিক থাকলে আবার ও করেরহাট ইউনিয়ন পরিষদের মসনদে বসতে পারেন এই সফল জনপ্রতিনিধি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*