সোনালী ব্যাংক লিমিটেডের ডিএমডি হলেন মিরসরাইয়ের এম এ কাইয়ূম

মুহাম্মদ ফিরোজ মাহমুদ।।
মিরসরাইয়ের কৃতী সন্তান এম এ কাইয়ূম। গত ৩০ এপ্রিল তিনি রাষ্ট্রের বৃহত্তম বাণিজ্যিক ব্যাংক সোনালী ব্যাংক লিমিটেডের শীর্ষস্থানীয় নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক(ডিএমডি) পদে পদোন্নতি অর্জন করেন। এর আগে তিনি সোনালী ব্যাংক লি.  চট্টগ্রাম বিভাগীয় জেনারেল ম্যানেজার(জিএম) পদে সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি চট্টগ্রাম জেলার মীরসরাই উপজেলার মিঠানালা ইউনিয়নের মধ্যমমুরাদপুর গ্রামের সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে সন্তান।

দ্বারবক্স ভুঁইয়া বাড়ির মরহুম ছৈয়দুল হক মাস্টার ও মরহুমা নাজুমের নেছা পরানের বড় ছেলে তিনি। তাঁর শৈশব-কৈশর-তারুণ্যের দুরন্ত সময়গুলো কেটেছে সবুজ শ্যামল এ গ্রামে। লেখাপড়ার হাতেখড়ি মলিয়াইশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। এরপর তিনি মলিয়াইশ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৯৭৪ সালে বিজ্ঞান বিভাগে এসএসসি পরীক্ষায় কৃতিত্বের স্বাক্ষর রাখেন। ভর্তি হন চট্টগ্রাম সরকারি কমার্স কলেজে। সেখান থেকে এইচএসসি পাস করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৮০ সালে বিকম(সম্মান) ও ১৯৮২ সালে এমকম ডিগ্রি অর্জন করেন। এরপর তিনি ১৯৮৩ সালে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে সিএ কোর্স সম্পন্ন করেন। ১৯৮৪ সালের ১৮ নভেম্বর সোনালী ব্যাংক লিমিটেডের ফিনান্সিয়াল এনালিস্ট হিসেবে যোগ দেয়ার মাধ্যমে তিনি কর্মজীবন শুরু করেন।

তিনি ব্যাংকিং সেক্টরে গুরুত্বপূর্ণ ডিএআইবিবি ডিপ্লোমা ডিগ্রিও অর্জন করেন। পরবর্তীতে চট্টগ্রাম অঞ্চলে ৩৪ বছর ব্যাংকিং পেশায় বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করে সর্বশেষ এ বৃহত্তম বাণিজ্যিক ব্যাংকের ডিএমডি পদে নিযুক্ত হন। পেশাগত দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি তিনি তাঁর নিজ গ্রামের মলিয়াইশ উচ্চ বিদ্যালয় প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রী পরিষদের সিনিয়র সহ-সভাপতি বর্তমানে সভাপতি(ভারপ্রাপ্ত) ও সামাজিক সংগঠন দুর্বার প্রগতি সংগঠনের পৃষ্ঠপোষক সহ বিভিন্ন সামাজিক প্রতিষ্ঠানে   অবদান রেখে যাচ্ছেন।

এম এ কাইয়ুম বলেন, তিনি মিরসরাইয়ের সন্তান-নিজের এলাকার মাটির কাছে তার অনেক ঋণ। তাই আগামী দিনগুলাতে নিজের কর্মক্ষেত্রে দায়িত্ব পালন করার মাধ্যমে দেশের আর্থ সামাজিক উন্নয়নে তাঁর অবস্থান থেকে অবদান রাখার পাশাপাশি নিজ এলাকার সামাজিক ক্ষেত্রেও অবদান রাখাতে চান। এম এ কাইয়ূম তাঁর এ অর্জনে  সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*