অসংখ্য ভুলে ভরা পাঠ্যবই- দোষীদের জবাবদিহির আওতায় আনতে হবে

এম মাঈন উদ্দিন…

আমাদের শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী ও কর্মকর্তাদের কথাবার্তা শুনলে মনে হয়, বর্তমান সরকার আমাদের শিক্ষাব্যবস্থাকে চরম উচ্চতায় নিয়ে পৌঁছে দিয়েছেন। কিন্তু শিক্ষা মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন ক্ষেত্রে যেসব চরম নৈরাজ্যের কথা গণমাধ্যম সূত্রে মাঝে মধ্যে আমরা জানতে পারি, তা আমাদের রীতিমতো উদ্বিগ্ন ও হতবাক করে। তা ছাড়া নানা ক্ষেত্রে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ব্যর্থতাও শেষ নেই। এর মধ্যে সবচেয়ে দুঃখজনক ব্যর্থতা হচ্ছে আমরা আমাদের শিক্ষার্থীদের হাতে নির্ভুল পাঠ্যবই তুলে দিতে পারছি না। এটা ক্ষমাহীন এক ব্যর্থতা। কারণ অসংখ্য ভুলে ভরা পাঠ্যবই শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেয়ার অপর অর্থ তাদের ভুল শেখানো, যা কিছুতেই মেনে নেয়া যায় না। কার্যত ঘটছেও তাই।

অসংখ্য ভুলে ভরা চলতি বছরের প্রাথমিক ও নিম্ম মাধমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পাঠ্যবই। মলাট ঝকঝকে হলেও, ভেতরে ছাপার মান খুবই নিম্ম মানের। এর মধ্যে প্রথম শ্রেণীর ‘আমার বাংলা বই’-এর বর্ণ পরিচয় অংশে ‘ওড়না’ বিতর্ক; পঞ্চম শ্রেণীর ‘আমার বাংলা বই’ এবং ‘বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়’ বইয়ে বানান ভুল, প্রথম শ্রেণীর আমার বাংলায় ১১ নম্বর পৃষ্ঠায় ‘ছাগল আম খায়’-এর মতো হাস্যকর তথ্য রয়েছে। এ ছাড়া তৃতীয় শ্রেণীর ‘আমার বাংলা বই’-এ পদ্য বিকৃতি করাসহ রয়েছে নানা ধরনের ভুলভ্রান্তি। বিষয়টি নিয়ে ফেসবুকসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে চলছে সমালোচনার ঝড়।
পঞ্চম শ্রেণীর বইয়ে ‘সমুদ্র’ বানানকে লেখা হয়েছে ‘সমুদ’। প্রথম শ্রেণীর বাংলা বইয়ের লেখা ও ছবিতে ‘ছাগল গাছে উঠে আম খাচ্ছে’ বোঝাতে চেয়েছেন লেখক। বাংলা পাঠ্যবইয়ের ১১ নম্বর পৃষ্ঠা অ-তে অজ (ছাগল) বোঝাতে গিয়ে ছাগলের ছবি জুড়ে দেয়া হয়েছে। তৃতীয় শ্রেণীর হিন্দুশিক্ষা বইয়ে পেছনে লেখা Do not Heart Anybody, বাক্যটি Heart বানানটি হবে Hurt এবং Heart I Anybody শব্দ দু’টির প্রথম অক্ষর ক্যাপিটাল লেটারের অক্ষরের না হয়ে হবে স্মল লেটার। কুসুমকুমারী দাশের বিখ্যাত কবিতা আদর্শ ছেলের মূল লাইনটি হলো এমন : ‘আমাদের দেশে হবে সেই ছেলে কবে’, সেখানে তৃতীয় শ্রেণীর বাংলা বইয়ে উল্টো করে লেখা হয়েছে, ‘আমাদের দেশে সেই ছেলে কবে হবে?/কথায় না বড় হয়ে কাজে বড় হবে?
এ ধরনের নানা ভুলের উল্লেখ দেখতে পাই দেখা গেছে। পাঠ্যবইয়ে এ ধরনের ভুলকে কখনো ক্ষমার চোখে দেখা যায় না। এ ধরনের ভুলের যেন পুনরাবৃত্তি না ঘটে সে ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আরো সচেতন হতে হবে। সেই সংশ্লিষ্ট ভুলের জন্য সংশ্লিষ্টদের শাস্তির আওতায় আনাও জরুরি।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*