আজ মনে হচ্ছে,সিকাগোর আন্দোলন হয়েছিল

শাহ আব্দুল্লাহ আল রাহাতঃ

শ্রমিকদের মৃত্যুর পর মামলা দিয়ে নাটকের দৃশ্য সাজানোর জন্য,,আমাদের দ্বারা অনেক কিছুই সম্ভব,,মৃত মানুষের নামে মামলা,,সেই মামলায় বাদী আসবে,,সাক্ষী আসবে,,কাহিনী হবে,,শুধু কাহিনী,
তারপর বুক ভরা কষ্ট আর শোক কে শক্তিতে পরিণত করে,,কিছু মানুষ রাস্তায় নামবে এই নাটকের অবসানের জন্য,,,,হয়তো আব্দুস সালাম,আরশাদ হোসেন আর
মনসুরুল হকের বাড়িতে এখনো হয়তো শোকের শেষ হয়নি,,আর শেষ হওয়ার কথা টা চিন্তা করা ও বিকৃত মস্তিষ্কের নামান্তর,,,কারন যার চলে যায়,,,সে বুঝে হায়!
কি যে কি যন্ত্রণা!!
জানি না,,,আরশাদ ভাইয়ের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী কেমন আছে??
আজ তার সন্তান হওয়ার আনন্দ,, বরং বেদনায় পরিণত হয়ে দ্বিগুন যন্ত্রণায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছে,,আর সেই অনাগত শিশু হয়তো চিরদিনের জন্য বঞ্চিত হবে পৃথিবীতে শ্রেষ্ঠ আদর,বাবার আদর থেকে,জন্মের পর থেকে তাকে বেঁচে থাকতে হবে এতিম হওয়ার যন্ত্রণা নিয়ে,,যতবারই সে মায়ের কাছে বাবার কথা জানতে চাইবে,তবারই স্বামীর ছিন্নবিচ্ছিন্ন লাশের কথা তার চোখের সামনে ভেসে ওঠবে,আর সাক্ষী হয়ে থাকবে শার্টের কলার দেখে স্বামীর লাশ চিহ্নিত করার হৃদয়বিদারক কাহিনীর বিধাব স্ত্রী হিসেবে।
আব্দুস সালাম ভাইয়ের আর সুযোগ হয় নি ছেলের ইন্টার পরীক্ষার ফলাফল জানার,,হয়তো মেহেদী হাসান ও তার বাবার মুখ চেয়ে বসে থাকবে না,বাবার জন্য অপেক্ষা করবে না,কেননা আজ সে এতিম হয়ে গেল।বাবা তাকে এতিম করে দিয়ে চলে গেল।
আর মুনসুরুল হকের পরিবার হয়তো শোক মূতির্মান হয়ে চেয়ে আছে আকাশের দিকে,,,,রক্তের সম্পর্ক আর আত্নার সম্পর্কের মানুষ গুলো দূর থেকে আহাজারি করলে ও,,তিনি আজ বধির,,শুনতে পান না।অার তাকে কখনো গাজীপুর ও যেতে হবে না।
এভাবে প্রতিটি নিহতদের পরিবার আজ যেন পরিবারের সম্বল আর প্রিয় মানুষ টিকে হারিয়ে দিশেহারা,,,বিলাপের সুরে ভারি করছে আকাশ বাতাস।
আর আমি নির্বোধ তখন হা হা হা করে অট্ট হাসা হাসি,,মাঝে আবার আকাশের দিকে চেয়ে থাকি।আমার এক বন্ধু আমাকে বলেছিল,যে নির্বোধ সে কীভাবে অন্যর বোধ জ্ঞান সৃষ্টি করবে??
মানুষের ছিন্নবিচ্ছিন্ন লাশ আর এসব যন্ত্রণা,হৃদয়বিদারক দৃশ্য যদি মানুষের মনে বোধ জ্ঞান সৃষ্টি করতে না পারে,বিবেক জাগ্রত করতে না পারে,তাহলে আমার সামান্য লেখনি আর কতটুকু বোধ সৃষ্টি করতে পারে,
যেখানে ছিন্নবিচ্ছিন্ন মৃত লাশের নামে মামলা হয়,সেখানে বিবেক কিংবা বোধ জাগ্রত হওয়ার পরিবর্তে বরং অারো ঘুমিয়ে পড়ে,,
বেশী বলার নেই,,শুধু একটুকুই বলবো,,
মানবতা যেন টাকার কাছে বিক্রি না হয়,,,কারখানার মালিক পক্ষ থেকে বাঁচানোর জন্য কেন কতগুলা নিহত আহত মানুষের নামে মামলা দিয়ে দেশে তামাশা সৃষ্টি করা হচ্ছে??
আমরা কতুটুকু বেঈমান হলে সম্ভব??
এসব মানুষের রক্ত দিয়ে চুষে চুষে গড়া প্রতিষ্ঠান আজ তাদের মৃত্যুর পর তাদের মামলা উপহার দিয়েছে,,
আল্লাহ আপনাদের বেহেস্ত নসিব করুক,
আমিন

#নির্বোধ
#লেখক

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*