আবহমান বাংলায় চিরায়িত বসন্ত

আজমল হোসেন

শীতের শুষ্কতা ও পান্ডুর বিবর্ণতা মুছে গিয়ে আজি বাংলার প্রকৃতিতে বসন্তের আগমন। ফুল ফুটুক আর নাই ফুটুক আজ বসন্ত কথাটি কানে বাজছে বারংবার। ষড় ঋতুর দেশ বাংলাদেশ। প্রকৃতির চিরায়িত নিয়মানুযায়ী পরিবর্তন ঘটছে ঋতু বৈচিত্র্যের। তেমনি আজ বাংলার প্রকৃতিতে শীত ঋতুকে মাড়িয়ে আগমন বসন্তের। প্রকৃতির অবারিত প্রাঙ্গনে বসন্তের আহবান আন্তরিক ও উদার। ঋতু চক্রের সব অবগুণ্ঠন উন্মোচনের পর দেখা যায় বসন্তের রঙিন অবয়ব। বসন্ত ঋতু-ঋতু রাজ, বসন্ত ঋতু-নাট্যের শেষ কুশীলব প্রকৃতি রাজ্যের স্বঘোষিত রাজা। বসন্ত রাজ্যে মানুষ ও প্রকৃতির সম্পর্ক অবিচ্ছেদ্য। বাংলার প্রকৃতিতে বসন্ত আসে সাড়ম্বরে। প্রকৃতি-রাজ্যে বসন্তের সংবাদ সে নিজেই বহন করে, প্রচার করে। প্রকৃতি তার সমস্ত ঔজ্জ্বল্য, রূপ, রস, ও সুরে প্রকাশ করে বসন্তের আগমনী বার্তা। বাংলা পঞ্জিকা অনুসারে ফাল্গুন চৈত্র এ দু মাস জুড়ে বসন্তের ব্যাপ্তি। শীতের সর্বরিক্ত উদাসী মুর্তির ভাঙনের প্রান্তে বসন্ত দেবপ্রতিম কান্তি নিয়ে আবির্ভূত হয়। শীতে গাছের পাতা ঝরে পড়ে, গাছ গুলো মনে হয় যেন একেকটা মরা বৃক্ষ। বসন্তের ছোঁয়ায় সে মারা ঢালগুলো যেন ফিরে পায় প্রাণের সঞ্চালন। পাতাঝরা গাছের ঢালে নতুন সবুজ পত্র পল্লবের সমাগম, শিমুল-পলাশ-কৃষ্ণচূড়ার শাখায় দেখা মেলে রঙিন কুঁড়ি,ফুল। এসবে বাঙালী যেন ফিরে পায় নতুন প্রাণের পরশ। নির্জন দুপুরে কোকিলের অবিশ্রান্ত কুহুতানে বসন্ত সচকিত করে বিস্তৃত চরাচরকে। দখিনের মৃদুমন্দ বাতাসে বসন্ত ছড়িয়ে রাখে তার কোমলতা। বৃক্ষ, লতা গুল্ম সবই পুষ্পিত সমারোহে বসন্তের উপচে পড়া সৌন্দর্যকে বিভূষিত করে। মূলত বসন্তের রং উড়ে বেড়ায় প্রজাপতির ডানায়। বসন্তের সুর ঝরে পড়ে কোকিলের কন্ঠে। বসন্তের উচ্ছ¡াস নিয়ে লাপিয়ে চলে ঘাসফড়িং। বসন্তের প্রাণ ছড়িয়ে থাকে দূর্বাঘাস থেকে অরণ্য বিটপীতে। বাংলার আত্মীয় পল্লীতে বসন্ত তার বিচিত্র ফুলের মৌ মৌ গন্ধে নিবিড় এক ঐক্যে জড়িয়ে নেয় এ ঘর আর ও ঘরকে, এ পাড়া ও পাড়াকে, এ মহল্লা ও মহল্লাকে। ধুলিময় গ্রামীণ রাস্তায় অসংখ্য ঝরাপাতার অকৃত্রিম স্তুপ নীচে, আর উপরে তাকালেই দেখা যায় কী প্রান দীপ্তি নিয়েই বসন্তের আগমন ঘটেছে। ঘাসে, মাঠে, গাছে বসন্ত সমারোহ আসে। বস্তুত বসন্ত সরবেই আসে। কোকিল তার আগমনকে সুরময় করে তোলে। বসন্ত উপলক্ষে গ্রামে গ্রামে বসে মেলা, হাটে ঘাটে প্রান্তরে যাত্রা, গান, প্রভৃতি। গ্রামীন বসন্তের এ রূপ আবহমান কালের ঐতিহ্যের সাথে লগ্ন।
নাগরিক জীবন পরিসরে প্রকৃতির অবারিত সৌন্দর্য-বৈভব অন্তর্হিত। সিটি কর্পোরেশনের উদ্যোগে শহরের শোভা বর্ধনকারী বৃক্ষসারি আর বিচ্ছিন্নভাবে পার্ক-উদ্যানেই বসন্ত তার সৌরভ সৌন্দর্যের বিক্ষিপ্ত প্রকাশ ঘটায়। শহরের কর্মব্যস্ত মানুষ হাঠাৎ-ই যেন দুর্লভ কোকিলের কন্ঠ শুনতে পায়, বহু পরিচিত রাস্তার ধারে হঠাৎ-ই একদিন চোখ থমকে যায় কৃষ্ণচূড়া কিংবা রাধাচূড়া কিংবা জারুলে- আর তখনই নাগরিক সমাজ বুঝতে পারে বসন্ত এসেছে। ভাবুকের তখন পুরো শহরকেই মনে হতে পারে জীর্ণ-শীর্ণ, আর বসন্তরাজের কাছে তার অনুনয় থাকে, “বসন্ত, তুমি এসেছ হেথায়- বুঝি পথ হল ভুল, এলে যদি তবে জীর্ণ শাখায়, একটি ফুটাও ফুল।” তখন অকৃপন বসন্ত সে ভাবুকের ডাকে সাড়া দেয়, এমনকি এই সাড়া আকিঞ্চন বারান্দায় ঝুলন টব কিংবা ছাদের শৌখিন টবে পর্যন্ত পৌছায়। শহরের গলিতে উন্মক্ত পরিসরে এ সময় দেখা যায় মেলার আয়োজন, শৌখিন মধ্যবিত্তের বসন-ভূষণে দেখা যায় বিবিধতা- রঙের আধিক্য।
পঞ্জিকার পাতার নির্দিষ্টতার পূর্বেই প্রকৃতি তার অবারিত-অকৃপণ কোলে বসন্তকে বরণ করে নেয়। তবে ঠাকুরবাড়ীর ঐতিহ্যের ধারাবাহিকতায় সংস্কৃতিবান বাঙালী পহেলা ফাগুনে বিচিত্র আয়োজন সমারোহে বরণ করে নেয় বসন্তকে। কলকাতা এবং ঢাকা কেন্দ্রীক ছিল প্রথমে এই উৎসব। কিন্তু সাম্প্রতিক এক যুগের মধ্যে এটি বিস্তার লাভ করেছে প্রতিটি মফস্বলে পর্যন্ত। আয়োজনের ব্যাপ্তিতে-বৈচিত্র্যে, রঙে-রূপে, গানে-সুরে এবং বিশেষ করে আবাল-বৃদ্ধ-বণিতার অংশগ্রহন ও সমাগমে ‘বসন্ত বরণ’ পরিণত হয়েছে সর্বজনীন উৎসবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদ, ছায়ানট ও অন্যান্য সাংস্কৃতিক সংগঠন বিচিত্র অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে সম্পন্ন করে বসন্ত বরণ অনুষ্ঠান। আর এতে ঘটে অসংখ্য লোকসমাগম। বাসন্তি রঙের শাড়ি,পাঞ্জাবি পরে মুখর হতে দেখা যায় তরুণ তরুণীদের। গাঁদা ফুলের গুচ্ছে, চন্দ্রমল্লিকার সযতœ বিন্যাসে তরুণীর এলোকেশে লাগে বসন্ত। প্রকৃতির ঋতুসমূহ নিজস্বতায় রাঙিয়ে যায় প্রকৃতিকে, অভিষিক্ত করে মানবমনকে। কিন্তু বসন্তের মত এতটা রাঙাতে পারেনা কোন ঋতুই।

আজমল হোসেন, মিরসরাই
০১৮১৭১২১৭১২

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*