চিকিৎসাবিজ্ঞানে নতুন ধারা আনবে চমেবি-ভিসি ডা. ইসমাইল খাঁন

চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (চমেবি) প্রথম ভিসি অধ্যাপক ডা. মো. ইসমাইল খান। ২০১৭ সালের মে মাসে ভিসি হিসেবে নিয়োগ পান। জন্ম মিরসরাইয়ের ১১ নং মঘাদিয়া ইউনিয়নের শেখের তালুক গ্রামের শান্তা কাজীর বাড়িতে। দেশের বিভিন্ন মেডিকেল কলেজের পাশাপাশি মালয়েশিয়ান ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্সে তিন বছর শিক্ষকতা করার অভিজ্ঞতা আছে তার। ঢাকা মেডিকেল কলেজের ফার্মাকোলজি বিভাগীয় প্রধানের পাশাপাশি উপাধ্যক্ষের দায়িত্ব পালন করেন ৪ বছর। চমেবির ভিসি হিসেবে দায়িত্ব পালনের আগ পর্যন্ত ঢাকা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি। এ ছাড়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফ্যাকাল্টি অব মেডিসিনের নির্বাচিত ডিন হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছিলেন তিনি। একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি চমেবির সার্বিক বিষয় নিয়ে কথা বলেন।

** প্রশ্ন : চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (চমেবি) শুরুটা নিয়ে বলুন?

  • ভিসি : দেশে মেডিকেল শিক্ষার শুরুটা ছিল জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মাধ্যমে। ১৯৭১ সালে দেশ স্বাধীনের পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিুবর রহমান ক্ষমতায় আসার তিন বছরের মধ্যে দেশে মেডিকেল তথা চিকিৎসাশাস্ত্র অধ্যয়নের কথা চিন্তা করে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার কথা চিন্তা করেন। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণ করতে বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর ঢাকার সাবেক পিজি হাসপাতালকে ১৯৯৮ সালের ৩০ এপ্রিল সংসদীয় অধ্যাদেশের মাধ্যমে পূর্ণাঙ্গ মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় রূপান্তরিত হয়। নামকরণ করা হয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ)। যেটা বাংলাদেশের প্রথম সরকারি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়। মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের উদ্দেশ্য হলো চিকিৎসাশাস্ত্রে উচ্চশিক্ষা ও গবেষণায় উন্নয়ন করা। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা বর্তমান ক্ষমতায় আসার পর ঘোষণা দিলেন প্রতিটি বিভাগীয় শহরে ক্রমান্বয়ে সরকারি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করা হবে। সেই পরিপ্রেক্ষিতে গেল বছরের ২০১৭ সালের শুরুর দিকে জাতীয় সংসদে চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় ও রাজশাহী মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় আইন পাস হয়। আইন পাসের পর এপ্রিলেই (২০১৭ সালের) মহামান্য রাষ্ট্রপতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য আমাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ প্রদান করেন। তখন আমি ঢাকা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্বরত ছিলাম। মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অবকাঠামো না থাকায় আপাতত ফৌজদারহাটের বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রফিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকসিয়াস ডিজিস (বিআইটিআইডি)’র তৃতীয় তলায় উপাচার্যের অস্থায়ী কার্যালয় স্থাপন করা হয়েছে। একই সঙ্গে ঢাকা মেডিকেল কলেজেও চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অস্থায়ী একটি লিয়াজোঁ অফিস স্থাপন করা হয়েছে।
    ** চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (চমেবি) ভিসি হিসেবে নিয়োগ পেয়ে কোন বিষয়টি সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়েছিলেন?
  • বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুযায়ী মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল কাজ হচ্ছে মেডিকেলের উচ্চশিক্ষা সম্প্রসারণ এবং গবেষণার উন্নয়ন সাধন। মূলত দুটি বিষয়কে সামনে রেখে আমি কাজ করছি। চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের পর চট্টগ্রাম বিভাগের মধ্যে ভৌগোলিকভাবে অবস্থিত সব সরকারি-বেসরকারি মেডিকেল কলেজ ও ডেন্টাল কলেজ এবং নার্সিং কলেজ এ ছাড়াও অন্যান্য মেডিসিন বিএসসি সংক্রান্ত সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি কার্যক্রম, শিক্ষার মানোন্নয়ন, মনিটরিং এবং সনদপ্রদান করবে চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়। যা আগে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় এবং অন্যান্য বেসরকারি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রদান করত। ভবন নির্মাণ হলে পোস্টগ্রাজুয়েশন কোর্স চালু হবে এবং গবেষণাগার চালু হবে।
    ** চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম কতটুকু?
  • স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিপত্র জারি করেন। পরিপত্র অনুযায়ী ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষ থেকে ওই সব প্রতিষ্ঠানে ছাত্রছাত্রী ভর্তির কার্যক্রম শুরু করে। যার ফলে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত ১৬টি মেডিকেল কলেজ এবং ডেন্টাল কলেজ, নার্সিং কলেজসহ মোট ২৭টি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার গুণগতমান পরীক্ষাসমূহ চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে শুরু হয়। চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে প্রথম ব্যাচ এমবিবিএস ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি হওয়া সব শিক্ষার্থীর প্রথম বর্ষের পরীক্ষা খুব কম সময়ে সম্পন্ন করা হয়। এ ছাড়াও পরীক্ষার ১৫ দিনের মধ্যে পরীক্ষার রেজাল্ট প্রদান করা হয়। যা আগে ৩ মাস সময় লাগত। চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে বর্তমানে ছয়টি সরকারি এবং ১০টি বেসরকারি মেডিকেল কলেজ পরিচালিত হচ্ছে। সরকারিগুলো চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ, কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ, রাঙ্গামাটি মেডিকেল কলেজ, কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ, নোয়াখালী মেডিকেল কলেজ এবং চাঁদপুর মেডিকেল কলেজ। এ ছাড়াও আরও ১০টি বেসরকারি মেডিকেল কলেজ অন্তর্ভুক্তি রয়েছে চট্টগ্রাম মা ও শিশু মেডিকেল কলেজ, সাউদার্ন মেডিকেল কলেজ, মেরিন সিটি মেডিকেল কলেজ, আইএএইচএস (প্রাক্তন ইউএসটিসি), বিজিসি ট্রাস্ট মেডিকেল কলেজ, চট্টগ্রাম ইন্টারন্যাশনাল মেডিকেল কলেজ, কুমিল্লার ইস্টার্ন মেডিকেল কলেজ, সেন্ট্রাল মেডিকেল কলেজ, ময়নামতি মেডিকেল কলেজ এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া মেডিকেল কলেজ। এ ছাড়াও চট্টগ্রামের দুটি ডেন্টাল কলেজসহ চারটি নার্সিং কলেজসহ মোট ২৭টি প্রতিষ্ঠান এর অন্তর্ভুক্ত।
    ** চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস ফৌজদারহাটে হওয়ার কারণ কী ?
  • চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিপত্র জারি হওয়ার পর ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছিল বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস কোথায় হবে। কখনও চট্টগ্রাম শহরের চকবাজার চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থায়ী ক্যাম্পাস স্থাপনের কথা ছিল। এমনকি বিভিন্ন উপজেলায় এ মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থায়ী ক্যাম্পাস হওয়ার গুঞ্জন চলেছিল। শেষমেষ ২০১৮ সালের ২৫ জুলাই মহামান্য রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে মন্ত্রণালয়ের চিকিৎসা শিক্ষা-১ অধিশাখার উপসচিব বদরুন নাহার স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে জানানো হয় যে, চট্টগ্রাম মহানগর এলাকায় সলিমপুর ফৌজদারহাট বক্ষব্যাধি হাসপাতাল ক্যাম্পাসের ২৩ দশমিক ৯২ একর ভূমিতে চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের জন্য জমি অনুমোদন দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এমতাবস্থায় ডিডিপি প্রণয়নসহ অন্যান্য কার্যক্রম জরুরিভাবে শুরু করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসিকে নির্দেশনা প্রদান করেছিল স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়। অনুমোদন পাওয়ার পর আমরা মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অবকাঠামো না থাকায় আপাতত ফৌজদারহাটের বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রফিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকসিয়াস ডিজিস (বিআইটিআইডি)’র তৃতীয় তলায় উপাচার্যের অস্থায়ী কার্যালয় স্থাপন করি। একই সঙ্গে ঢাকা মেডিকেল কলেজেও চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অস্থায়ী একটি লিয়াজোঁ অফিস স্থাপন করি। মাত্র ৩০ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম পরিচালনা শুরু করি। পিডব্লিউডি (গণপূর্ত অধিদপ্তর) ডিপিপি প্রণয়নের কাজ এগিয়ে যাচ্ছে। সেই ডিপিপি অনুযায়ী স্থাপনা প্রণয়ন শেষ হলে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুযায়ী উচ্চশিক্ষার লক্ষ্যে শুধুমাত্র মেডিকেল সংক্রান্ত পো স্টগ্রাজুয়েশন কোর্স চালু করা হবে। এমডি, এমএস, এমফিল, ডিপ্লোমা মেডিকেল পাস করে ডিপ্লোমা ইন টেকনোলজি এবং এমফিএস’র পোস্টগ্রাজুয়েশন কোর্স চালু করা হয়। এ ছাড়াও গবেষণাগার চালু করা হবে। একনেকে সভায় ডিপিপি প্রকল্প পাস হলে আশাকরি ২০২০ সাল থেকে অবকাঠামো নির্মাণ কাজ শুরু হওয়ার সম্ভাবনা আছে।
    ** চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় কি ধরনের সেবা দিবে বলে মনে করেন?
  • চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়টি শহরের প্রবেশমুখে প্রধান সড়কে হওয়াতে যাতায়াতের জন্য অনেক সুবিধা হয়েছে। কক্সবাজার, কুমিল্লা, রাঙ্গামাটি, চাঁন্দপুর, নোয়াখালী এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে এক রাস্তায় এ বিশ্ববিদ্যালয়ে আসা-যাওয়া করা যাবে। এ ছাড়াও চট্টগ্রামের মানুষ এতে উপকৃত হবে। এ ছাড়াও চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় নির্মাণের মাধ্যমে চট্টগ্রাম বিভাগের মেডিকেল কলেজ, ডেন্টাল কলেজ এবং নার্সিং কলেজের শিক্ষার মান্নোয়ন হবে। এ বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেল সংক্রান্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহের মান উন্নয়ন করতে তদারকি করবে। চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীভুক্ত হওয়ার ফলে মেডিকেল কলেজ, ডেন্টাল কলেজ ও নার্সিং কলেজের মান আগের চেয়ে অনেক গুণ বৃদ্ধি পাবে। চট্টগ্রাম থেকে অনেক বেশি বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক বের হবে। বর্তমানে দেশে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক বের হচ্ছে বঙ্গন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের ফলে এখান থেকে অনেক বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক বের হবে। উন্নতমানের গবেষণা হবে। চিকিৎসা বিজ্ঞানের নতুন দ্বার উন্মোচিত হবে। তাতে চট্টগ্রামবাসীর চিকিৎসা ও স্বাস্থ্য সেবায় অনেক উন্নয়ন ঘটবে। প্রধানমন্ত্রীর এ উদ্যোগ সত্যিই প্রশংসনীয়। চট্টগ্রামবাসীর একটাই অনুরোধ এ বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন সাধনই আমাদের কাম্য।
    ** বর্তমানে চমেবির অধীনে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী সংখ্যা কত?
  • আমার বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে প্রতিবছর ১৬টি মেডিকেল কলেজের এমবিবিএস শিক্ষার্থী হয় ১ হাজার ৪১১ জন। ২৭টি প্রতিষ্ঠানের সব মিলিয়ে শিক্ষার্থী সংখ্যা ২ হাজার ২০১ জন। শিক্ষার্থীরা এমবিবিএস আগে করত চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে। এ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে তারা এ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ডিগ্রি লাভ করবে।
    ** মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হওয়ার ফলে শিক্ষার্থীদের সেশন জট কমার সম্ভাবনা রয়েছে কিনা?
  • বর্তমানে চিকিৎসাশাস্ত্রে তথা এমবিবিএসে কোনো সেশন জট নেই। আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি অনুষদের ৭ বছর ডিন হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। জেনারেল বিশ্ববিদ্যালযের মতো মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে সেশন জট নেই। আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে মেডিকেল শিক্ষায় সেশনজটমুক্ত হয়েছে। এখন যে কোনো মেডিকেল শিক্ষার্থী ৫ বছরের মধ্যে এমবিবিএস কোর্স শেষ করতে পারছে। চট্টগ্রাম মেডিকেলের অধীভুক্ত হওয়ার ফলে চট্টগ্রাম বিভাগের মেডিকেল শিক্ষার্থীরা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে পরীক্ষা দিতে পারছে। কম সময়ে রেজাল্ট প্রদান করা হচ্ছে। যেমন গেল বছর যারা এমবিবিএস কোর্সে ভর্তি হয়েছে তাদের পরীক্ষা কারিকুলাম অনুযায়ী সঠিক সময়ে নেওয়া হয়েছে। পরীক্ষা শেষের ১৫ দিনের সময় রেজাল্ট দিয়ে দেওয়া হয়েছে। তাতে একজন নিয়মিত ছাত্র তার নির্দিষ্ট সময়ে চিকিৎসক হিসেবে এবং নার্স হিসেবে যোগ্যতা অর্জন করতে পারবে। ভিসি হয়েও আমি নিজে বিভিন্ন মেডিকেল কলেজ সরেজমিন পরিদর্শন করছি শিক্ষার মানোন্নয়নে। আমি নিজেই মেডিকেল কলেজের প্রফেসর তাই কোথায় কি করতে হয় আমার ভালো করেই জানা আছে।
    ** চমেবি স্থাপনের ফলে মেডিকেল কলেজসমূহের গুণগত মান উন্নয়ন হচ্ছে কিনা ?
  • প্রধানমন্ত্রী নিজেই বলেছেন, চিকিৎসাশাস্ত্রের উন্নয়নে আমি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়সমূহ নির্মাণ করেছি। মেডিকেল কলেজসমূহ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে থাকবে। শিক্ষার গুণগত মান বৃদ্ধি করানো হবে। বিভিন্ন মেডিকেল কলেজে গিয়ে আমাদের টিম দেখভাল করছে। তদারকি করে দেখছে। আমরা মেডিকেলের শিক্ষকরা মেডিকেল তদারকি করার ফলে মেডিকেলের শিক্ষকরা অনেক বেশি অনুপ্রাণিত হয়। যা জেনারেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটি তদারকি করলে হয় না। যেহেতু মেডিকেল কলেজের শিক্ষক দিয়ে তদারকি হচ্ছে আশাকরি মেডিকেল শিক্ষার গুণগত মানের হচ্ছে।
    ** বিভিন্ন মেডিকেল কলেজে নতুন নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষকদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করবে কিনা?
  • চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পর থেকে এখানে বিভিন্ন রোগ ও তার প্রতিকার নিয়ে নিয়মিত সেমিনার ওয়ার্কসপ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এরই মধ্যে ১৫টির বেশি সেমিনার ওয়ার্কসপ অনুষ্ঠিত হয়েছে। যাতে এ ক্যাম্পাসে সব শিক্ষকরা অংশগ্রহণ করেছে। এ ছাড়াও শিক্ষকদের গবেষণার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন থেকে ফান্ড নিয়ে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের গবেষণার সুযোগ করে দেওয়া হচ্ছে।
    ** চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীভুক্ত প্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীদের ব্যাপারে আপনার পরামর্শ?
  • আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় অধীভুক্ত চট্টগ্রাম বিভাগের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহের শিক্ষার্থীদের ব্যাপারে আমার তিনটি পরামর্শ হচ্ছে- ভালো জ্ঞানসম্পন্ন, দক্ষতার সঙ্গে এবং গুণগন মানসম্পন্ন মেডিকেল শিক্ষার্থী হওয়ার যোগ্যতা অর্জন করা। কারণ এ গুণের মানুষ হিসেবে ভালো মানুষ হয়ে যাতে জনগণকে চিকিৎসা সেবা দিতে পারে এটাই আমার পরামর্শ। চিকিৎসা পেশা এমন একটা জিনিস যেখানে চিকিৎসকরা হৃদয়টা দিয়ে ভালো আচরণের মাধ্যমে চিকিৎসা সেবার জ্ঞানটুকু মেডিকেল চিকিৎসাশাস্ত্র থেকে অর্জন করতে পারে।

সূত্র আলোকিত বংলাদেশ

Share

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*