জেবি স্কুলের ছাত্র সাকিব হত্যায় প্রধান আসামী সরোয়ারসহ ৩ জনের মৃত্যুদন্ড


এম মাঈন উদ্দিন>>>

মিরসরাই উপজেলার জেবি উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্র ফারহান সাকিব (১৫) হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ৩ জনকে মৃত্যুদন্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন, কাজী সরওয়ার উদ্দিন, শহীদুল ইসলাম ও মীর হোসেন। এছাড়া যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে অপর আসামি হোসনে মোবারক রুবেলকে।

বৃহস্পতিবার (১ আগস্ট) চট্টগ্রামের জেলা ও দায়রা জজ মুন্সি মোহাম্মদ আব্দুল মজিদ এই রায় দেন। আসামিদের মধ্যে মামলার প্রধান আসামী কাজী সরওয়ার এখনো পলাতক। তবে বাকিরা জেল হাজতে রয়েছেন। চট্টগ্রামের জেলা পিপি আকম সিরাজুল ইসলাম এসব তথ্য জানিয়েছেন।

এছাড়া মামলার বিভিন্ন ধারায় একইসঙ্গে কাজী সরওয়ার উদ্দিন, শহীদুল ইসলাম ও মীর হোসেনকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ও ১ বছরের জেল দেওয়া হয়েছে। হোসনে মোবারক রুবেলকেও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ও ১ বছর জেল দেওয়া হয়। প্রধান আসামি কাজী সরওয়ার উদ্দিনকে দেওয়া হয় আরও ১০ বছরের জেল।

মামলার বাদি নিহত সাকিবের বড় ভাই শহীদুল ইসলাম রুবেল বলেন, আল্লাহর দরবারে শুকরিয়া আদায় করছি। অবশেষে আমার ভাইয়ের খুনিদের সাজার রায় হয়েছে। এই রায়ে আমাদের পরিবার সন্তুষ্ট। আমি প্রশাসনের কাছে কাছে জোর দাবী জানাচ্ছি প্রধান আসামী সরোয়ারকে দ্রæত গ্রেপ্তার করে ফাঁসির রায় কার্যকর করা হোক।

সাবিক স্মৃতি সংসদের সভাপতি শাহ আব্দুল্লাহ আল রাহাত বলেন, সাকিবের খুনিদের বিরুদ্ধে আদালত যে রায় দিয়েছে আশা করছি আপিলেও এই রায় বহাল থাকবে এবং দ্রুত ফাঁসি কার্যকর করবে। তাহলে আর কোন সাকিবকে নৃশংসভাবে খুন করতে সাহস করবে না।

হত্যার শিকার ফারহান সাকিব জোরারগঞ্জের উত্তর মোবারকঘোনা এলাকার মো. নাছির আহম্মদের ছেলে। তিনি জোরারগঞ্জ জেবি স্কুলের ১০ম শ্রেণির ছাত্র ছিলেন।

২০১৫ সালের ৬ জুন জোরারগঞ্জের উত্তর মোবারকঘোনা এলাকায় পূর্ব শত্রুতার জেরে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে ফারহান সাকিবকে হত্যা করা হয়।

এ ঘটনায় তার বড় ভাই শহিদুল ইসলাম রুবেল বাদি হয়ে পাঁচজনকে আসামি করে জোরারগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন।

জানা যায়, ২০১৫ সালের ৬ জুন মাসে পূর্ব শত্রুতার জেরে ফারহান সাকিবকে অপহরণ করা হয়। এরপর উপজেলার করেরহাট ইউনিয়নের নয়াটিলা পাহাড়ে নিয়ে জবাই করে হত্যা করে আসামিরা। এই ঘটনায় ফারহানের বড় ভাই শহীদুল ইসলাম বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয় একই বছর নভেম্বরে। মোট ১১ জনের সাক্ষী পর্যালোচনা করে আদালত এই রায় দিলেন।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*