তারা মানুষ নয় তারা রোহঙ্গিা!

রবি হোসাইন…

বিশ্ব পরিস্থিতি এখন যুদ্ধ আর উচ্ছেদের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। সিরিয়া জুড়ে বছর ব্যাপী যুদ্ধ আর সহিংসতার মধ্যেই মিয়ানমারে শুরু হয়েছে রোহিঙ্গা মুসলিমদের জাতিগত নিধন করার ঘৃন্য চেষ্টা।

আরাকান (রাখাইন) রাজ্য মিয়ানমারের পশ্চিমের একটি প্রদেশ। এই প্রদেশে ঐতিহাসিকভাবে রোহিঙ্গাদের বাস। কিন্তু মিয়ানমারের জান্তা সরকারের এক আইনে রোহিঙ্গারা নাগরিকত্ব হারিয়ে ফেলে। এরপর থেকে নানা সময়ে রোহিঙ্গা মুসলিমরা পরিকল্পিত গণহত্যার মুখোমুখি হচ্ছে। মিয়ানমারের বিভিন্ন সূত্র নিশ্চিত করছে মিয়ানমারের সরকারী বাহিনী ও বৌদ্ধদের বর্বরতার। স্থানীয় সরকার, কেন্দ্রীয় সরকার, পুলিশ ও নিরাপত্তা রক্ষী বাহিনীর মদদে রাখাইন বৌদ্ধ সন্ত্রাসীরা পরিকল্পিত ভাবে প্রতিটি রোহিঙ্গাকে বার্মা (মিয়ানমার) থেকে বের করে দেয়ার অভিপ্রায়ে গণহত্যার উন্মাদনায় মেতে উঠেছে। মসজিদ সহ পুড়িয়ে দিচ্ছে তারা।

বিবিসিকে মিয়ানমারের এক পত্রিকা বলছে, “রাখাইন প্রদেশে পুরো গ্রাম কিংবা আংশিক নগর পুড়ে ভস্মীভুত হবার মতো ঘটনা ঘটেছে।” বলার অপেক্ষা রাখেনা যে আসল সংখ্যা ও বাস্তবতা আরো অনেক ভয়াবহ।

অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে ৫০০০ রোহিঙ্গার বসতি পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। উপগ্রহ (স্যাটেলাইট) থেকে তোলা  মুসলিম অধ্যুষিত অংশে ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞের ছাপ দেখা যায়। এই ধ্বংষযজ্ঞের পেছনে উঠে আসছে নতুন একটি তথ্য। এই শহর থেকেই তেল ও গ্যাসের পাইপ-লাইন বার্মা থেকে চীনে যাবার কথা।সে কারণে জায়গাটা খালি করার তাগিদেই বৌদ্ধরা এতটা সহিংস হয়ে উঠেছে। একদিকে রোহিঙ্গাদের উচ্ছেদের পাশাপাশি তেল ও গ্যাসের পাইপ-লাইন ও কোন বাধার মুখে পরল না।

মায়ানমারের ভেতর থেকে তথ্য আসছে ভয়ংকর সব নির্যাতনের। মুসলিম অধ্যুষিত গ্রাম ও শহরাংশে তাদের আঁটকে রেখে আগুনের গোলা ছোঁড়া হচেছ। মৃত্যু আতংকে পালাতে চেষ্টা করা মুসলিমদের উপর রাখাইন বৌদ্ধ সন্ত্রাসী ও সরকারী বাহিনী তাদের উপর নির্বিচারে গুলিবর্ষণ করছে।

রাখাইন সন্ত্রাসীরা আবার রোহিঙ্গা মেয়েদের তুলে নিয়ে ধর্ষণ করছে। পাশবিক নির্যাতনের পর তাদের মেরে ফেলা হচ্ছে।নির্মমতার সর্বোচ্চ স্তরে পৌছে গেছে মায়ানমারের সেনাবাহিনী। মিয়ানমারের রোহিঙ্গাদের সম্পূর্ণ নির্মূল করে দেয়ার যে তৎপরতা তা ভাবিয়ে তুলেছে বিশ্ববাসীকে।

রোহিঙ্গারা প্রাণভয়ে পালাচ্ছে সাগরে কিংবা জঙ্গলে। সেখানেও রক্ষা নেই। প্রতিদিন শতাধিক রোহিঙ্গার সলিল সমাধি হয়েছে বঙ্গোপসাগরে। অনেকে দালালের সাহাযে আসছেন বাংলাদেশে। সেখানেও তারা বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষীদের বাধার সম্মুখীন হচ্ছে। রোহিঙ্গাদের জন্যে এ পৃথিবীর কোথাও এক  টুকরো জায়গা নেই।

মিয়ানমারের সরকার ক্ষতিগ্রস্থ এলাকাগুলোতে বিদেশীদের প্রবেশ করতে দিচ্ছে না। তারা অপরাধ গুলো লুকিয়ে রাখতে চায়। ঘুমন্ত বিশ্ব বিবেককে  ফ্রান্সে বোমা হামলায় দুজন নিহতের সংবাদ যতটা বিচলিত করে হাজার হাজার রোহিঙ্গার উপর চালানো নির্মম নির্যাতন অতটা বিচলিত করে না। এই মানবতা বড়ই একপেশে।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*