নৈতিক ও সামাজিক প্রশ্নে টিভি মিডিয়া

সোহেল আহমদ…

শিশু-কিশোরদের মেধা ও মনন বিকাশে টিভি মিডিয়া অপরিহার্য ভূমিকা রাখে। যুগের সাথে তাল মিলিয়ে দেশের শহর ও গ্রামাঞ্চল সমানতালে ডিজিটালায়নের দৌড়ে আগুয়ান। বিশ্বায়নের এ যুগে ঘরে ঘরে ডিশ সংযোগসহ টিভি যেন এক অপরিহার্য বস্তু। মানুষকে চাকরি বা অন্যান্য প্রয়োজনের তাগিদে পরিবার, স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে দূরে বসবাস করতে হয়। ফলে দিন দিন যৌথ পরিবার ভেঙে একক পরিবারের সংখ্যা বাড়ছে। শিশু, কিশোররা সঙ্গীহীনতায় ভুগছে; একে-অন্যে শেয়ারিং-কেয়ারিং, একত্রে খেলাধুলা ইত্যাদির পথ সঙ্কুচিত হচ্ছে। পূর্ববর্তী প্রজন্মের শিশু-কিশোরদের দুরন্তপনা, হইহুল্লুড় তাদের কাছে আজ রূপকথার গল্পের মতো মনে হচ্ছে। তারা মনে করে, অ্যাডভেঞ্চার আর দুরন্তপনা টিভির নানা গেইমশোর মাঝেই যেন তাদের জীবন সীমাবদ্ধ। এ যেন শিশু-কিশোরদের ফার্মি স্টাইলে জীবনযাপন! নেই খেলার মাঠ; নির্মল খোলা বাতাসে হেঁটে বেড়ানোর স্থানটুকুুও আজ হিংস্র জমি খেকোদের হামলার শিকার।
এক দিকে মাত্রাতিরিক্ত বই, হোমওয়ার্ক, মডেল টেস্ট, ক্লাস টেস্টের চাপ, অন্য দিকে সামাজিক ও পারিপার্শি¦ক নানা মানসিক বিকাশের উপাদানের অভাবে বিকাশ যেমন বাধাগ্রস্ত হচ্ছে, তেমনি অনেকেই মানসিকভাবে বিকারগ্রস্তও হচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে অনেকের হিসাবে একমাত্র ভরসা টিভি মিডিয়া। সত্যিই তাই। বিকল্প কোনো উপায় না পেয়ে শিশু-কিশোররা বিনোদনের খোরাক মেটাতে একমাত্র টিভি মিডিয়াকেই বেছে নিয়েছে। ফলস্বরূপ আমরা শুনতে পাই আট বছরের শিশুর মুখে প্রেম-ভালোবাসার রোমান্টিক গান বা সংলাপ। নানা সিরিয়ালের চরিত্র অনুসরণ ও নামসর্বস্ব ড্রেস কেনার বাহানা। শিশু-কিশোরদের এমন কাজে আমরা বুঝতে পারছি, টিভি মিডিয়া শিশুকে যেকোনো শিক্ষা দিতে রাখতে পারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা।
কিন্তু পরিতাপের বিষয়, আমাদের মিডিয়াগুলোর দৌড় অন্য পথে। জানি না, কোন অদৃশ্য শক্তির ইশারায় তাদের এ ভিন্ন পথে চলার আয়োজন। ইদানীং কয়েকটি বিজ্ঞাপন ও দেশীয় কিছু ধারাবাহিক নাটকে শিশুদের বিকারগ্রস্ত করার কিছু অপচেষ্টার চিত্র পাওয়া যায়। প্রচারিত এসব বিজ্ঞাপন দেখে অনেকের হয়তো মজাই লাগে, কিন্তু ভেবে দেখুন আপনার
সন্তান যখন এমন বিজ্ঞাপন দেখে ওই কাজটি করবে, তখন ঠিকই দাঁত কিড়মিড় করে রাগ সামলানোর চেষ্টা করবেন। আমরা জানি, মিথ্যা বলা মহাপাপ। সব ধর্মেরই মিথ্যার বিরুদ্ধে অবস্থান। এরপরও কেনো আমাদের এসব আয়োজন। একটি বিজ্ঞাপন তৈরির হাজারও উপসঙ্ঘ থাকার পরও কেন আমরা মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে তা তৈরি করছি। বুঝলাম, ব্যবসায়ের খাতিরেই না বুঝে তারা এটা করছেন, কিন্তু প্রচারের আগেও তো তা যাচাই-বাছাইয়ের প্রয়োজন আছে। প্রেমকাহিনীনির্ভর অনেক নাটকে মিথ্যার প্রতিযোগিতা যেন চলে। অফিসে থেকে বলা হয় বাসায়, বাসায় থেকে বলা হচ্ছে অফিসে। পার্কে থেকেও বলা হচ্ছে মর্গে। সম্প্রতি এক নাটকে প্রেমিকের সাথে পার্কে ঘুরা অবস্থায় অফিসের বসের ফোন এলে নির্দি¦ধায় মেয়েটি বলে বাসায় জরুরি কাজে আটকা পড়েছে। এসব থেকে শুধু আমাদের বিনোদন পাওয়ার চিন্তা করলেই চলবে না, বরং ছেলেমেয়েরা তা থেকে কী শিক্ষা পাচ্ছে সেটা নিয়েও ভাবতে হবে। মনে করে দেয়ার বিষয়, মিথ্যার এসব আয়াজনে ন্যায়-অন্যায়, সত্য-মিথ্যার পার্থক্য আমরা আজ ভুলতে বসেছি। সিদ্ধি হাসিলের জন্য যেকোনো উপায়ই সঠিক বলে আমরা শিশু-কিশোরদের শেখাচ্ছি। দিন কয়েক পরে যে এই শিশু-কিশোররা বাবা-মা বা গুরুজনের সাথে এমন কার্যকলাপ শুরু করবে না, তার কি কোনো গ্যারান্টি আছে? আমাদের টিভি মিডিয়াকে আরো চিন্তাশীল, দায়িত্ববান ও আন্তরিকতার পরিচয় দিতে হবে। মনে রাখতে হবে, গঠনমূলক যেকোনো কাজের সুনাম চিরদিনের। অল্প সময়ের বাহবা বা টাকা কামানোর ধান্দা কমাতে হবে। ন্যায়-অন্যায়, হালাল-হারাম, সত্য-মিথ্যার পরিণাম ও পার্থক্য বুঝতে হবে। দেশপ্রেমিক চরিত্রবান প্রজন্ম তৈরির লক্ষ্যে দেশসেবায় মশগুল হওয়াটাই আজ সময়ের দাবি।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*