বঙ্গোপসাগরের সাহেরখালী মোহনায় জেগে উঠা নতুন বালুচর!

মঈনুল হোসেন টিপু

চারদিকে সমুদ্রের জলরাশি,মাঝখানে জেগে উঠেছে এক নতুন চর।বঙ্গোপসাগরের বুকে জেগে ওঠা এই চর আবার জোয়ারের পানিতে তলিয়ে যায়।আর ভাটার সময় দেখা মিলে নরম বালিমাটির জেগে উঠা এই নতুন চর।সমুদ্রের নোনাজলের ঢেউ আচড়ে পড়ে এর চারপাশে।আবার জোয়ার এলেই হারিয়ে যায় সাগরের বুকে।

জেগে উঠা এই বালুচরটি চট্টগ্রামের মিরসরাই উপজেলার সাহেরখালী উপকূলের বঙ্গোপসাগরের মোহনায় অবস্থিত।বিগত দুই বছর যাবৎ আস্তে আস্তে প্রাকৃতিকভাবে জেগে উঠেছে এই চর।

চরের পুরোটাই বালুময় বলে স্থানীয় লোকজন আর জেলেরা এর নাম দিয়েছে বালুচর।ভাটার সময় এই বালুচরের মাঝে দাঁড়িয়ে উপভোগ করা যায় বিশাল সাগরের সৌন্দর্য।যতক্ষণ ভাটা থাকে ততক্ষণ ইচ্ছেমত এই চরের চারপাশে হাঁটা যায়,পা ছোঁয়ানো যায় লোনা পানিতে।অনেকেই দলবেঁধে ঘুরতে আসে,কেউ বেশ কিছুক্ষণ ফুটবল খেলে।কেউবা আবার বালিচরের বুকে নিজের পদচিহ্ন রেখে যায়,লিখে যায় তাদের নাম।

আবার একটু পরে জোয়ারের পানিতে মিলিয়ে যায় পদচিহ্ন, মুচে যায় নাম।সাগরের বুকে হারিয়ে যায় পুরো বালুচর।প্রতিদান এভাবে জেগে উঠা আর সাগরের পানিতে তলিয়ে যাওয়ার খেলা চলে বালুচরে।

এই বালুচরটির ব্যাপারে এখনো মানুষ তেমন জানে না।প্রথম প্রথম যখন এ চরটির অস্তিত্বের টের পাওয়া যাচ্ছিলো তখন স্থানীয় জেলেরা এটাকে খুবই রহস্যময় মনে করতো।সাগরের বুকে কিভাবে চর জেগে উঠে এ বিস্ময় ছিলো অনেকের মাঝে।আস্তে আস্তে এই বালুচরের দৈর্ঘ্য বাড়তে থাকে।

সাহেরখালী স্লুইসগেটের পাশে বালুচর নিয়ে কথা হচ্ছিলো এখানকার স্থানীয় লোকজন আর জেলেদের সাথে।তারা জানান বিগত দুই বছর যাবৎ এই জেগে উঠা নতুন চরটি দেখছেন।মাছ ধরার এক নৌকার মালিক আনোয়ার হোসেন জানালেন, এই চরটি আয়তনে পূর্ব পশ্চিমে প্রায় দুই কিলোমিটাররের মত।আর উত্তর দক্ষিণে অনেক বড়,আনুমানিক আট-দশ মাইল হবে।সাগরে নিয়মিত মাছ ধরে এমন একজন জেলে লালুই জলদাশ জানান,সাহেরখালী খালের মোহনা থেকে পশ্চিমে সাগরে গিয়ে সামান্য দক্ষিণে গেলে এই চরটির শুরু আর দক্ষিণে অনে দূর পর্যন্ত বিস্তৃত।জোয়ার এলে পুরোটা ডুবে যায়,তখন এর উপর দিয়ে নৌকাও চলে।

নিজামপুর কলেজের অনার্স চতুর্থ বর্ষের কয়েকজন বন্ধু মিলে এসেছিলেন বালুচর দেখতে।তাদের একজন শামসুল আরেফিন জানান,এই বালুচরের কথা লোকমুখে শুনেছি।জোয়ার ভাটার সময় জেনে,এখানকার পরিচিত এক মাঝির নৌকা ভাড়া করে বন্ধুরা মিলে মজা করতে এখানে এসেছি।বাড়ির পাশে এরকম বালির সৈকত সত্যিই বেশ দারুণ।

যেভাবে যেতে হবে:

যাওয়ার জন্য মূলত দুটো পথ আছে।একটি সাহেরখালী স্লুইসগেট, আরেকটি ডোমখালী স্লুইসগেট।তবে এই চরটি একেবারেই বিচ্ছিন্ন আর সমুদ্রের মাঝে বিধায় যেতে হয় নৌকায়।সাহেরখালী স্লুইসগেট থেকে নৌকায় উঠলে খাল পেরিয়ে সমুদ্রের মোহনায় প্রবেশ করে যেতে হবে দক্ষিণে,আর ডোমখালী স্লুইসগেট থেকে যেতে হবে খানিকটা উত্তরে।দরদাম করে ইঞ্জিনচালিত নৌকা ভাড়া করে যেতে হবে,ভাড়া ৩০০-৬০০ টাকার মধ্যেই নিবে।তবে শর্ত একটাই ভাটার সময় যেতে হবে,জোয়ারের সময় গেলে এর অস্তিত্বই খুঁজে পাওয়া যাবে না।

খালের বুক চিরে ইঞ্জিনচালিত নৌকায় বসে যেতে যেতে উপভোগ করা যাবে দুদিকের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য।চোখে পড়বে জেলেদের মাছ ধরা আর মাছ নিয়ে সাগর থেকে ফেরার দৃশ্য।কখনো কখনো দেখা মিলতে পারে উরি খেতে আসা হরিণের দল।আর সাগরের বড় বড় ঢেউ শিহরন জাগাবে পুরোটা সময়।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*