বরেণ্য চলচ্চিত্র পরিচালক মোস্তফা মেহমুদের জানাযা সম্পন্ন


নিজস্ব প্রতিবেদক..
বাংলাদেশের চলচ্চিত্র অঙ্গনের বরেণ্য চলচ্চিত্র পরিচালক মোস্তফা মেহমুদের নামাযের জানাযা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। বুধবার (১২ এপ্রিল) বিকাল সাড়ে ৩টায় উপজেলার মিঠানালা ইউনিয়নের ফকিরহাট বাজারের বর্ণমালা স্কুল প্রাঙ্গণে তাঁর নামাযের জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাযায় অংশ নেয় উপজেলার সর্বস্তরের জনগন। গত ৯ এপ্রিল দিবাগত রাত ১২টার সময় নিজ বাড়িতে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮০ বছর। তিনি দুই ছেলে, আত্মীয়-স্বজনসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

নামাযের জানাযায় উপস্থিত ছিলেন, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন, উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক নুরুল আমিন, যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল আবছার চেয়ারম্যান, মেজর (অবঃ) মোস্তফা, মিঠানালা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল খায়ের, দুর্গাপুর ইউনয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম খোকা, ডাক্তার আহমেদ মঈনুল ইসলাম, দুর্গাপুর ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি খোরশেদ আলম চৌধুরী, উপজেলা কাজী সমিতির উপদেষ্টা কাজী আতাউর রহমান প্রমুখ।

জানা গেছে, ১৯৭২ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি মোস্তফা মেহমুদ পরিচালিত এফডিসি থেকে মুক্তি পায় স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম ছায়াছবি ‘মানুষের মন’। এতে অভিনয় করেন নায়ক রাজ রাজ্জাক, ববিতা ও আনোয়ার হোসেন। এ ছবির ব্যবসায়িক সাফল্যে বাংলাদেশের চলচ্চিত্র নতুন ভাবে জেগে ষাট, সত্তর ও আশির দশকে তার পরিচালিত ১৫টি পূর্ণদৈর্ঘ্য বাংলা ছায়াছবি মুক্তি পায়। তিনি পাকিস্তান আমলে ছয়টি এবং স্বাধীনতার পর নয়টি ছবি পরিচালনা করেন। ১৯৬৬ সালে জহির রায়হানের আগ্রহে ‘বেহুলা’ ছায়াছবিতে সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ শুরু করেন। ১৯৬৮ সালে মিতা ফিল্মসের ব্যানারে মোস্তফা মেহমুদের পরিচালিত প্রথম ছবি ‘মোমের আলো’ মুক্তি পায়। ১৯৮২ সালের ফেব্রুয়ারিতে কবরী ও বুলবুল আহমেদ অভিনীত ‘স্বামীর সোহাগ’ ছবির পর তিনি চলচ্চিত্র জগৎ থেকে নিজেকে গুটিয়ে নেন। চলচ্চিত্রকে বিদায় জানিয়ে তিনি চলে আসেন নিজ জন্মস্থান মিরসরাইয়ের মিঠানালায়। মোস্তফা মেহমুদ পরিচালিত উল্লেখযোগ্য সিনেমার মধ্যে রয়েছে ‘মায়ার সংসার’, ‘অবাক পৃথিবী’, ‘জয় পরাজয়’, ‘মধুমিতা’, ‘মাটির মানুষ’ ও ‘মণিহার’।

১৯৩৬ সালের ১৬ জানুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন বরেণ্য এ পরিচালক। ২০১০ সালের ২১ জানুয়ারি মারা যান সহধর্মিণী ফিরোজা মেহমুদ। আশির দশক পর্যন্ত তিনি চলচ্চিত্র পরিচালনার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। এরপর সিনেমা পরিচালনা ছেড়ে দিয়ে কিছুদিন তিনি গার্মেন্টস ব্যবসার জড়িত ছিলেন। একটা সময় পর চলচ্চিত্রকে বিদায় জানিয়ে তিনি চলে যান জন্মস্থান মিরসরাইয়ের মিঠানালায়।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*