বারইয়ারহাট পৌরসভায় আবর্জনার স্তুপে সড়ক দখল!

এফ করিম>>>

বারইয়াহাট-রামগড় সড়কের পাশে আবর্জনার স্তুপ রেখে ক্রমান্বয়ে তা দখল করে স্থাপনা নির্মাণ করছে অনেক প্রভাবশালী। এতে করে সড়কের এ অংশের পথচারীর দুর্ভোগের অন্ত নেই । বারইয়াহাট পৌরসভার রেলগেইট অংশ বারইয়াহাট ডিগ্রী কলেজ অংশ পর্যন্ত পথচারীদের কষ্ট করে চলাচল করতে হচ্ছে । রেলগেইট অংশ থেকে সিনজি গাড়ীর যত্রতত্র পার্কিং যা রাস্তার মাঝপথ পর্যন্ত অবস্থান নিয়েছে । যে যার মত করে গাড়ী পার্কিং করছে, যাত্রী উঠানামা করছে, নিজের ইচ্ছা মত গাড়ী ইউটার্ন করে নিচ্ছে । এতে করে সৃষ্টি হচ্ছে নিত্য যানযট, যার ভোগান্তীর স্বীকার হতে হয় সাধারন পথচারীদের ।

এই সব বিড়ম্বনা আজকে একদিনে তৈরী হয়নি, কিন্তু কোন কতৃপক্ষের যেন এ ব্যাপরে মাথাব্যবথা নেই । আছে বাজার কমিটি এবং পৌরসভা কতৃপক্ষ্য, কিন্তু নেই কারো কোন সুদৃষ্টি । একজন অন্যজনের উপর দোষ চাপিয়ে দিয়ে দায়ভার শেষ করতে চান । কিন্তু এই দায়ভারের ভুক্তভোগি হয় সাধারণ মানুষ ।

তাছাড়া সিএনজি স্ট্যান্ড পার হলেই আছে কাঠ ব্যবসায়ীদের সারি সারি কাঠের স্তুপ। যেখানে কাঠের স্তুপ গুলো রাস্তা ছুঁই ছুঁই করার অপেক্ষায় আছে । তাই বাধ্য হয়েই পথচারীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মূল সড়কের উপর দিয়ে চলাচল করতে বাধ্য হয়, যেখানে আশংকা থাকে মারত্মক দূর্ঘটনা ঘটার ।

রামগড়-খাগড়াছড়ি রুটের যানবাহন চলাচলের অন্যতম সহজ মাধ্যম হল ঢাকা-চট্টগ্রাম এর পুরাতন এই মহাসড়ক, যার ফলে প্রতিদিন চলাচল করছে হাজার হাজার যানবাহন।

বারইয়াহাট ডিগ্রী কলেজ গেইট ( পূর্ব ) অংশ থেকে ১০০ গজ দক্ষিনে সৃষ্টি হয়েছে আবর্জনার স্তুপ । প্রথম শ্রেণীর পৌরসভা হলেও বারইয়াহাট পৌরসভার ময়লা আবর্জনার নিস্কাষনের জন্য নির্দিষ্ট কোন স্থান নেই , যার ফলে যেখানে সেখানে ফেলা হচ্ছে এইসব আবর্জনা ।

পৌরসভার বিভীন্ন অংশ থেকে সংগৃহিত এই সব আবর্জনা দীর্ঘ দিন ধরে ফেলতে ফেলতে তা বড় আকারের স্তুপে পরিণত হয়েছে । এবং এই আবর্জনার স্তুপ শেষ পর্যন্ত রাস্তা উপর এসে গড়িয়ে পড়েছে । দুর্ঘন্ত ও অস্বস্থির মধ্য দিয়ে চলাচল করেছে সাধারণ পথচারী। আবর্জনা এড়িয়ে সাধারণ পথচারী চলাচল করতে হলে বাধ্যগত মূল সড়কের উপর দিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে । এই সড়কে প্রতিদিন হাজার হাজার যানবাহন চলাচল করছে, ফলে যে কোন মুহূর্তে ঘটে যেতে পারে মারাত্মক দূর্ঘটনা ।

তাছাড়া এই পথে প্রতিদিন ৮/১০ টি স্কুল কলেজের শত শত ছাত্রছাত্রী ছাড়াও সাধারণ পথচারীদের পদচারনা নিত্যদিনের। দুর্ঘন্ত, অস্বস্থি আর অনিরাপদ সড়কে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলতে হয় প্রাত্যহিক পথচলা। আবর্জনার স্তুপ যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে তা অল্প কিছুদিনের মধ্যে সড়ক দখল করে নিতে পারে তা বলার অবকাশ রাখে না।

সংকুচিত সড়কের ফলে যানবাহন গুলো ওভারটেকিং এর সময় পথচারীর চলাচলের পথ দখল করে নেয়, আর বাকী যে অংশটুকু থাকে তা আবর্জনার স্তুপ আর কাঠ ব্যবসায়ীদের দখলে ।

এই বিষয়ে বারইয়ারহাট পৌরসভার মেয়র নিজাম উদ্দিন ভিপি বলেন, আমি এখন কাউন্সিল নিয়ে ব্যস্ত রয়েছি। বিষয়টি নিয়ে কাউন্সিলের পর সরেজমিনে গিয়ে প্রদক্ষেপ গ্রহণ করবো।

Share

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*