ভ্রমন-ঘুরে এলাম নীলগিরি…

এম মাঈন উদ্দিন…

আমি ও মিশু অনেকক্ষণ গাড়ির অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে আছি কর্ণফুলী ব্রীজে। আগেই গাড়ির টিকেট নিয়েছে রণি। যানজটে আটকা পড়েছে গাড়ি। তাই বহদ্দারহাট বাস টার্মিনাল থেকে আসতে দেরি হচ্ছে। আমরা দুজন উঠবো নতুন ব্রীজ থেকে। কিছুতেই অপেক্ষার প্রহর শেষ হচ্ছে না। অবশেষে রাত ৮ টায় গাড়িতে উঠলাম। মইজ্জারটেক যাওয়ার পর গাড়ি অনেক্ষণ দাঁড়িয়ে আছে। কারণ একজনের টিকেট করা সিটে অন্যজন বসে গেছে। কিছুতেই সে উঠছেনা। অনেক বাক-বিতন্ডার পর নাচোড় বান্দা সেখান থেকে উঠে পেছনের সিটে বসলে গাড়ি ছাড়ে। এরপর রাত সাড়ে ১০ টায় বান্দরবান শহরে পৌছাই। সেখানে গিয়ে পড়তে হয় হোটেল বিড়ম্বনায়। অবশেষে চট্টগ্রাম শহরের এক বড় ভাইয়ের সহযোগীতায় শহরের হাফিজ ঘোনায় হোটেল গ্রীণ ল্যান্ডে উঠেছি। এরপর হোটেল নীলাচলে খাওয়া ধাওয়া শেষে করে ঘুমিয়ে পড়েছি। কারণ পরদিন ভোরে নীলগিরি যেতে হবে। ৬৫০০ টাকা ভাড়ায় গাড়ি ঠিক করা হলো। পরদিন ভোর হতেই গাড়ি চালকের ফোন। হোটেলের সামনে অপেক্ষা করছেন তিনি। অবশেষে গাড়িতে করে রওয়ানা দিলাম নীলগিরির উদ্যোশ্যে। অনেক দিনের শখ নীলগিরি ঘুরে দেখার। কিন্তু সময়ের কারণে তা সম্ভব হয়ে উঠেনা। অবশেষে সেই সখ পুরণ হতে চলছে। সাথে আরো ৫ বন্ধু। অনেকদিন একসাথে ঘুরা হয়নি আমাদের। ইতালী প্রবাসী বন্ধু জাবেদ কাইসার মিশু আর ও ওমান প্রবাসী আমির ছিলো আমাদের সাথে। আরো সাথে ছিলেন সুমন, আরিফ ও রণি।

নীলগিরি বাংলাদেশের সর্বোচ্চ পর্যটন কেন্দ্র। এর উচ্চতা প্রায় ২২০০ ফুট। এটি বান্দরবান জেলার থানছি উপজেলায় অবস্থিত। বান্দরবান জেলা সদর থেকে ৪৭ কিলোমিটার দণি পূর্ব দিকে অবস্থিত এই পর্যটন কেন্দ্রের অবস্থান। উঁচু নিচু পাহাড়ি সড়কে খুব মজা করতে করতে বেসুরো গলায় গান গাইতে গাইতে যাচ্ছিলাম। পথিমধ্যে চালক জনি ভাই সেনাবাহিনীর একটি ক্যাম্প থেকে আমাদের নাম এট্রি করে নিলেন। তখন পাশের চায়ের দোকানে হালকা রং চা পান করে আবার রওয়ানা দিলাম।

অবশেষে সেই সখের নীলগিরি পৌছালাম। মনে হলো আকাশ ছুঁয়ে দেখার ইচ্ছা পূরণ করতে চাইলে আসতে হবে নীলগিরি। নীলগিরি পাহাড়ের চুড়ায় উঠলে আকাশ নিজে এসে ধরা দেবে আপনার হাতে। মাথার উপর নীল আকাশে সাদা মেঘের ভেলা খেলা করে নীলগিরি পাহাড়ে। অপরূপ সৌন্দয্যের এক নীলাভূমি এই নীলগিরি। নীলগিরির কারণে বান্দরবানকে বাংলাদেশের দার্জিলিং বলা হয়।শীতকাল এবং বর্ষাকাল দুই ঋতুতেই এইখানে ভ্রমণে অনেক বেশি আনন্দ। তবে বর্ষাকালে ভ্রমণে গেলে বেশী মজা পাওয়া যায়। কারণ এই সময়ে মেঘের অপরূপ নৃত্য দেখতে দেখতেই দিন বয়ে যায়।

সেখানে সবকিছু সেনাবাহিনীর দায়িত্বে। নীলগিরিতে প্রবেশ মূল্য ৫০ টাকা এবং সাথে গাড়ি থাকলে তার পার্কিং ভাড়া ১০০ টাকা। প্রবেশের পূর্বে পাশে পাহাড়িদের ফলমূলের দোকান। সেখানে সব কিছুই টাটকা এবং ফরমালিন মুক্ত।

নীলগিরিতে ঢুকেই সে এক অন্য রকম অনুভূতি। আমাদের নিচ দিয়ে মেঘ ভেসে বেড়াচ্ছে। ইচ্ছা করলে হাত দিয়ে ছোঁয়া যাচ্ছে। যেদিকে তাকাবেন সেদিকে শুধু পাহাড় আর মেঘের মিতালী। এর মাঝে আমরা। সেখানে অনেকগুলো থাকার জন্য কটেজ। সেখানে ইচ্ছেমত ছবি তুলেছি আমরা। অবশ্যই সবার চেয়ে বেশি ছবি তুলেছেন আরিফ । ছেলেটি ছবি পাগল।

নীলগিরিতে প্রায় ২ ঘন্টা অতিবাহিত করার পর সেনা বাহিনীর তত্ত্বাবধানে রেষ্টুরেন্টে বন্ধু আমিরের সৌজন্যে খিচুড়ি খেলাম। খিচুড়িগুলো অনেক মজা হয়েছে। আমরা আবার গাড়িতে উঠলাম বান্দরবানে ফেরার পথে। ফেরার পথে পরবে চিম্বুক পাহাড় যেটা বাংলাদেশের ৩য় উচু পাহাড় আর শৈলপ্রপাত। নীলগিরি থেকে ২৫ কিমি বান্দরবানের দিকে চিম্বুক পাহাড় অবস্থিত।

চিম্বুকে গিয়ে গাড়ি থেকে নেমেই উপজাতিরা হাতে তৈরি বিভিন্ন ধরনের বস্ত্র বিক্রি করছিল। উপজাতি মহিলারা এগুলো তৈরি করে এবং তারাই বিক্রি করছে। দুপুর হওয়ায় তখন প্রচন্ড রোদ ছিলো। গরমে সবাই অনেকটা হাঁফিয়ে উঠি। নিচে নেমে ডাবের পানি পান করার পর প্রাণটা জুড়িয়ে যায়। আবার গাড়িতে উঠলাম। এবার যাব শৈলপ্রপাত ঝর্ণা। এটাও বান্দরবান ফিরার পথে একই রাস্তায়। চিম্বুক পাহাড় হতে ১৫ কিমি বান্দরবনের দিকে ঝর্ণাটি অবস্থিত।

এরপর সেখান থেকে সোজা হোটেলে। গোসল সেরে খাওয়া ধাওয়া শেষ করে এবারের গন্তব্য মেঘালয়। সেখানে কিছু থেকে এরপর নীলাচলে চলে যায়। প্রকৃতিক নান্দনিক তুলিতে আঁকা অপরূপ সৌন্দয্যের আরেক নাম নীলাচল। সেখানে প্রায় ৪ ঘন্টা ঘুরাঘুরি শেষে হোটেলে চলে আসি।

রাতের খাবার শেষ করে ঘুমিয়ে পড়ি। পরদিন সকালে স্বর্ণ মন্দির ঘুরে কেনাকাটার জন্য বার্মিজ মার্কেটে যায়। কেনাকাটা শেষ করে পুনরায় হোটেলে উঠি। এরপর বিকেলে বান্দরবান থেকে বাড়ির উদ্যোশ্যে রওয়ানা দিই।

 

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*