মহাসড়কে মাত্রাতিরিক্ত দুর্ঘটনা ও কিছু কথা

মঈনুল হোসেন টিপু…

সাম্প্রতিক সময়ে মহাসড়কে মৃত্যুর মিছিল থামছেই না।একের পর এক দুর্ঘটনা ঘটছেই।আমার নিজ জন্মভূমি মিরসরাইয়ে প্রায় প্রতিদিনই দুর্ঘটনার খবর শোনা যায়।

মহাসড়ক এখন চার লেন,স্বাভাবিকভাবে দুর্ঘটনা কম হওয়ার কথা।আর মহাসড়কে কোন খাদাখন্দ নেই,নেই অতি ঝুঁকিপূর্ণ কোন স্পট।অতীতের যে কোন সময়ের চেয়ে গাড়ি চলাচলের জন্য মহাসড়কের মান যথেষ্ট ভালো।সিএনজি অটোরিকশা মহাসড়কে এখন নিষিদ্ধ। তারপরও সড়ক দূর্ঘটনা আসলে থামছে না কেন?

আমার কাছে মূল কারণটি মনে হয় ড্রাইভারদের অতিরিক্ত গতিতে গাড়ি চালানো এবং ওভারটেকিং টেন্ডেন্সি।বিশেষ করে বড় গাড়িগুলো মহাসড়কে অতিরিক্ত গতিতে গাড়ি চালায়,এমনকি বাজার বা জনবহুল এলাকায়ও গতি নিয়ন্ত্রণ করে না।

ছোট গাড়িগুলোর সমস্যা হলো তারা যেখানে সেখানে থামে এবং যে কোন জায়গা থেকে যাত্রী নেয়,সতর্কতা অবলম্বন না করে।এর ফলে পেছন থেকে আসা গাড়িটি তাদের গতি নিয়ন্ত্রণ করতে পারে না।এটি আরেকটি কারণ।

আর সাধারণ যাত্রীদেরও সচেতনার অভাব লক্ষণীয়। তারা ফুট ওভারব্রিজ ব্যবহার না করে সড়ক ডিভাইডার এর উপর দিয়ে কিংবা ফাঁক গলে পার হয়।অবশ্য ফুট ওভারব্রিজে স্থাপনের প্রপার জায়গা নিয়ে প্রশ্ন আছে।আবার অনেক জায়গায় ফুট ওভারব্রিজ থাকলেও নিচে সড়ক ডিভাইডর দিয়ে পার হওয়ার ছোট জায়গা আছে।ফলে ফুট ওভারব্রিজ অনেক জায়গায় অব্যবহারিত হয়ে থাকে।সময়ের চেয়ে জীবনের মূল্য অনেক বেশি এই বোধটি সাধারণ যাত্রীদের মধ্যে জাগ্রত হতে হবে।

আবার মহাসড়কে সিএনজির পরিবর্তে যে লেগুনা কিংবা চার চাকার ছোট্ট গাড়িগুলো চলে,এই গাড়িগুলোর ড্রাইভাররা বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই অদক্ষ এবং বয়সে একেবারেই কম।তাদের ড্রাইভিং লাইসেন্স দেওয়ার ক্ষেত্রে প্রশাসনের নজরদারি বাড়ানো উচিত।

সড়ক দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে মোটর সাইকেল আরোহীর সংখ্যা অতিমাত্রায় বেশি।মহাসড়কে অতি মাত্রায় গতি তোলা কিংবা অভারটেক করা এবং অনেক ক্ষেত্রে হিরোগিরি দেখাতে গিয়ে অনেক দুর্ঘটনা ঘটেছে।মোটর সাইকেলের মাত্রাধিক্য এবং হেমলেট ব্যবহার না করে,ওভারস্পিডে মোটর সাইকেল চালানোর ফলেও দুর্ঘটনা ঘটছে।

আবার যাত্রী পরিবহনকারী যানবাহনগুলোর অভিযোগ আছে পণ্য পরিবহণকারী ট্রাক,লরিগুলোর দিকে।বেশির ভাগ ট্রাক লরির ফিটনেসে ঘাটতি যেমন আছে,তেমনি ড্রাইভারদের নেশা করে গাড়ি চালানো নিয়ে অনেক অভিযোগও আছে।আর এই গাড়িগুলো অনেক ধীরে চলে।

আর মহাসড়কে ট্রাফিক পুলিশের সংখ্যা বাড়ানো দরকার।বাজার এবং জনবহুল এলাকায় গতি কমানোর নিয়ম থাকা দরকার।আর সর্বোপরি সচেতনার গুরত্ব অত্যাধিক।তাহলে মহাসড়কে সড়ক দুর্ঘটনা আর মৃত্যুর মিছিল কমবে।

মঈনুল হোসেন টিপু
২২-০২-২০১৭

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*