মিরসরাইয়ের অর্থনীতির অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যৎ

মঈনুল হোসেন টিপু

কৃষিভিত্তিক অর্থনীতির সোনালী অতীত; প্রবাসী আয়, কৃষি ও ব্যবসা নির্ভর মিশ্র অর্থনীতির বর্তমান; ইকোনোমিক জোন কেন্দ্রিক শিল্প, ব্যবসা ও এগ্রোভিত্তিক অর্থনীতির সম্ভাবনাময় ভবিষ্যৎ; এক বাক্যে বলতে গেলে এটিই মিরসরাইয়ের সামগ্রিক অর্থনীতির অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যৎ।
মোটামুটি আশির দশকের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত মিরসরাইয়ের সামগ্রিক অর্থনীতি ছিলো প্রকৃতি নির্ভর কৃষিকে কেন্দ্র করে। গ্রামের বিস্তীর্ণ জমিতে ধান চাষ, হরেক রকমের ফসলের আবাদ, শাকসবজি চাষ, গরু-ছাগল লালন পালন, পুকুরে মাছ চাষ, খাল-বিল-জলাশয় থেকে মাছ আহরণ এসবই মানুষের জীবন ও জীবিকার অবলম্বন ছিলো। এ সময়কালে মূলত মিরসরাইয়ের পাহাড়ি এলাকার (টিলারকুল) লোকজন সবজি চাষ, উপকূলের (কাডিরকুল) লোকজন ধান এবং ডালজাতীয় সবজি এবং পশু পালন এবং চর-পাহাড় ব্যতীত মধ্যবর্তী এলাকা (মাইধগ্রাম) এক ফসলি ধান চাষ করেই মানুষ মোটামুটি সমৃদ্ধ ছিলো। এ সময়টায় উপকূলের মানুষের অর্থনৈতিক অবস্থা অন্য দুই অঞ্চলের মানুষের চেয়ে যথেষ্ট ভালো ছিলো এবং গ্রাম্য হাটগুলো বেশ জমজমাট ছিলো।
আশির দশকের শেষ ভাগে এবং নব্বইয়ের দশকের শুরুতে বাংলাদেশ থেকে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে; শ্রম রপ্তানি শুরু হলে, মিরসরাইয়েও এর হাওয়া লাগে। বিপুল সংখ্যক মানুষ কৃষি পেশা থেকে সরে এসে ওমান, মাস্কেট, দুবাই, সৌদি আরব, কাতার, কুয়েতসহ নানা দেশে নানা পেশায় গমন করা শুরু করে। এই ধারা এখনো বিদ্যমান আছে এবং অর্থনীতিতে এর ফলে ইতিবাচক প্রভাব পড়ে। মিরসরাইয়ের গ্রাম কেন্দ্রিক অর্থনীতিকে এখনো চাঙ্গা করে রেখেছেন মূলত প্রবাসীরাই।

বিগত কিছু বছর যাবৎ বারইয়ারহাটকে কেন্দ্র করে যে বিশাল অর্থনৈতিক বলয় তৈরি হয়েছে তাতে মিরসরাইয়ের সামগ্রিক উন্নতিতে এবং জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে দারুণ ভূমিকা রেখেছে। মুহুরি প্রজেক্ট এবং ফেনী নদীর অববাহিকায় বাণিজ্যিক ভিত্তিতে বিস্তীর্ণ উপকূলীয় এলাকায় মাছ চাষ অনেক মানুষকে অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ করেছে। বারইয়ারহাট এখন এমন একটি ব্যবসা কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে, যেখানে অনেক বেশি মানুষ এ বাজারের উপর নির্ভরশীল এবং বহুমুখী পণ্যের আলাদা বাজার গড়ে উঠেছে এর দারুণ অবস্থানের কারণে। বিশেষ করে রামগড়, খাগড়াছড়ি, ছাগলনাইয়া এমনকি ফটিকছড়ি থেকে লোকজন বারইয়ারহাট নিয়মিত আসছে এমনকি পাশের ফেনী জেলা থেকেও অনেক লোক এ বাজারে আসে। এজন্যই বারইয়ারহাটে যেকোন দোকানের সেলামি চট্টগ্রাম শহরের ভালো কোন মার্কেটের চেয়েও বেশি।

মিরসরাইয়ের উত্তর এবং দক্ষিণাংশের মানুষের জীবন যাত্রার মান, অর্থনৈতিক অবস্থা, বাড়িঘর, অবকাঠামোতে ব্যাপক পার্থক্য আছে। উত্তরের মানুষরা অনেক বেশি অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ এবং বেশির ভাগ মানুষই ব্যবসাকে জীবকা হিসেবে নিয়েছে। মুহুরি প্রজেক্টভিত্তিক মৎস্য চাষ, কাঠ ব্যবসা, ইট-বালি, রিয়েল এস্টেট ব্যবসাও এ অঞ্চলে বেশ জমজমাট এবং এসব ব্যবসার উপর অনেক মানুষ নির্ভরশীল। বারইয়ারহাটকে এখন মিনি টাউন হিসেবে ধরা হয়, যেখানে শহরের মত সকল সুযোগ সুবিধা রয়েছে।
বর্তমানে অনেক শিক্ষিত উদ্যমী তরুণরা পোল্ট্রি এবং এগ্রোতে আসায় মিরসরাইয়ে এই দুইটি খাতে অনেকেরই কর্মসংস্থান হয়েছে। যদিও সিপির মত বৃহৎ কোম্পানির আগ্রাসনে ক্ষুদ্র খামারীরা লাভবান হচ্ছেনা, তবুও এই খাতটি বেশ বিকাশমান হবে সামনের দিনগুলিতে। কৃষিতে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার, উন্নত প্রযুক্তিতে চাষাবাদ করে অনেকেই লাভবান হচ্ছে। সবজির অন্যতম বড় বাজার দারোগারহাটে বেশির ভাগ সবজি মিরসরাই থেকে যায়, যা অনেকেই আমরা জানি না। আঞ্চলিক ডোমখালী-বিষুমিয়ারহাট সড়কের কারণে কৃষি পণ্য পরিবহনে নতুন বিপ্লব সাধিত হয়েছে এবং প্রত্যন্ত গ্রামের অনেক মানুষের জীবন যাত্রায় গতি এসেছে এই সড়কটিকে কেন্দ্র করে।

তবে ইছাখালীর চরে ৩০,০০০ একরজুড়ে গড়ে উঠা ইকোনমিক জোনের কাজ সমাপ্ত হলে মিরসরাইয়ের অর্থনৈতিক অবস্থা আরো বেশি সুদৃঢ় হবে, কর্মসংস্থান হবে বিপুল সংখ্যক লোকের। নিকট ভবিষ্যৎে ইকোনমিক জোনের শিল্পায়নের নানা পর্যায়ে বিভিন্ন মানুষ ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ব্যবসায়ে নিযুক্ত হবে (প্যাকেজিং, ট্রান্সপোর্ট, সাপ্লাইস, ঝুট, ঠিকাদারি, রিয়েল এস্টেট ইত্যাদি)। তবে ইকোনমিক জোনে যারা শিল্প স্থাপন করছে, তার মধ্যেও একটিও মিরসরাইয়ের শিল্প প্রতিষ্ঠান না, যেটি খুব হতাশার। তবে শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলোতে মিরসরাইয়ের মানুষের যেন অগ্রাধিকার থাকে সেটি নিশ্চিত করতে হবে।

ইকোনমিক জোন এরিয়ায় বিপুল সংখ্যক মানুষ বাড়ি ভাড়া, জমি বেচাকেনা এসবের মাধ্যমে বেশ লাভবান হবে। তবে বেশি বিকাশমান হবে সেবা খাত (ভালো স্কুল, হাসপাতাল) কারণ প্রচুর পরিমাণ মানুষ এ অঞ্চলে বসবাস করবে। ভালো স্কুলের, ভালো শিক্ষকের, ভালো হাসপাতালের, ভালো খাবারের হোটেলের চাহিদা অটোমেটিক সৃষ্টি হবে।

মিরসরাইয়ে আরেকটি খাত খুব বেশি অগ্রগামী হবে সেটি হলো পর্যটন খাত, যেটিকে আমরা খুব বেশি এগিয়ে নিতে পারিনি। ইকোনমিক জোন কেন্দ্রিক দারুণ একটি পর্যটন স্পট তো হবেই, সাথে পশ্চিমের উপকূলীয় বনবেষ্টনি, সাগর, খাল এবং দারুণ মেরিন ড্রাইভ সড়ক পর্যটকদের জন্য লোভনীয় একটি জায়গা হবে। পূর্বের মহামায়া লেক, বাওয়াছড়া লেক, খৈয়াছড়া ঝর্ণা, রুপসী ঝর্ণা, নাপিত্তাছড়া ঝর্ণা কিংবা রহস্য ঘেরা গহীন পাহাড়, করেরহাট-ফটিকছড়ির পাহাড়ি সৌন্দর্য্য পর্যটকদের খুব সহজে মন কাড়বে। অর্থাৎ এই পর্যটন স্পটগুলোর প্রচার ও প্রসার করলে এবং পাহাড় ও উপকূলের পর্যটন স্পটগুলো এক সুঁতোয় বাঁধলে মিরসরাইয়ের পর্যটন অনেক দূর এগিয়ে যাবে, অনেক মানুষের কর্মসংস্থান হবে।

আগামীতে ট্যুরিজম কেন্দ্রিক বিজনেস, রেস্টুরেন্ট বিজনেস খুব দ্রুত বিকাশমান হবে মিরসরাইয়ে। এগ্রো বিজনেসে অনেক তরুণ যুক্ত হবে, নতুন উদ্যোক্তা সৃষ্টি হবে, সেবাখাতের বিকাশ হবে। প্রবাসের প্রতি আগ্রহ কমবে, শহরমুখী জনস্রোত কমবে ব্যাপকহারে। আগামী দিনে মিরসরাই হবে একটি স্থিতিশীল ব্যবসা কেন্দ্র। বাংলাদেশের অর্থনীতির অন্যতম প্রাণকেন্দ্র।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*