মিরসরাইয়ের ঐতিহ্য ও স্মৃতিময় আক্রমিয়া ঈদ গাঁ

এম. সাইদুল ইসলাম…

ঐতিহাসিক আক্রমিয়া ঈদগাহ ও মাজার! সময়ের পরিক্রমায় হারিয়েছে সেই কোলাহল তবুও আপন মহিয়ায় ঠায় দাঁড়িয়ে আছে এটি। ৪নং ধুম ইউনিয়নের সবচেয়ে বৃহৎ ঈদ জামায়েত ও জমায়েত হত এই ময়দানে। এর পাশেই মৌলবীবাজার। ঈদের দিন বসতো বিশাল মেলা। ইউনিয়নের তিনটি গ্রাম মোবারকঘোনা, নাহেরপুর ও ধুমের শিশু, কিশোর, যুবক, বয়োজোষ্ঠদের মহামিলন হত আক্রমিয়া বাড়ীর দরজায়।সেদিন  ফজরের আজান দেয়ার সাথে সাথে মেলার দেকানিরা ছুঁটত ময়দানে। খোলা সবুজ চত্বরে নিজ নিজ দখলের স্থানে অস্থায়ী খেলনার দোকান, চায়ের দোকান, বুট পেঁয়াজুর দোকান নিয়ে বসে যেত। ঈদুল আজহায় থাকতো শরবতের স্টল। এক  কোনায় দেখা যেত একজন শুধু বেলুন ফুলিয়ে ফুলিয়ে শিশুদের হাতে দিচ্ছে। পেঁ ফু আওয়াজ। তবে সেই আওয়াজের মধ্যে ছিল একধরণের মাদকতা, আনন্দ! বড়রা নতুন পাঞ্জাবী, পায়জামা ও মাথায় টুপি পরে গায়ে সুগন্ধি মেখে শীতের শুকনো জমিতে শিশির ভেজা জমির আইল ও রাস্তা দিয়ে দল বেঁধে হেঁটে হেঁটে সমবেত হত ঈদ গাহে। ফজরের পর থেকে মাইকে মরহুম আক্রমি সাহবের ওয়াজ শুনা যেত মাঝে মাঝে ঘোষণা আসে ” আক্রমিয়া ঈদগাহে পবিত্র ঈদুল ফিতরের জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৯ টায়।” ছোট ছেলে শিশুর পাশাপাশি ছোট ছোট মেয়েরাও দল বেঁধে ছুঁটতো ময়দানে। গায়ে আতর ও সুগন্ধি মেখে সবার সে যাত্রা এখন কেবলই স্মৃতি। বাংলাবাজার, নাহেরপুর, গোলকের হাট, আনন্দবাজার থেকে সবাই ঈদের  নামাজ পড়তে সেখানে সমবেত হত। মেলা আঙ্গিনা থেকে পুকুর পাড়ে মানুষের ভিড় ঠেলে সবাই ঈদ গাহে ডুকতো। নামাজ শেষে সকলের জন্য দোয়া করে মুনাজাত শেষ হয়। মেলা থেকে ভেসে আসতো বেলুনের ভেঁবু শব্দ।   নব্বইয়ের দশক থেকে ২০০৫ পর্যন্ত এই ময়দান ছিল পুরো ইউনিয়নবাসীর মিলনমেলা। এর পর বিভিন্ন পাড়ায় নিজ নিজ মসজিদে অনুষ্ঠিত হতে থাকে ঈদের জামাত। নাগরিক ব্যস্ততা, সময়ের সাথে সাথে অনেকে সেখানেই ঈদের নামাজ আদায় করতে থাকে। আস্তে আস্তে কমতে থাকে আক্রমিয়া ময়দানে জনস্রোত। কমতে থাকে শিশু কিশোরদের আগমন। এখন আর সেই বৃহৎ মিলন মেলা চোখে পড়েনা ঈদ সকালে। তারপরও এই ঈদগাহই আমাদের ঐতিহ্য ও ইতিহাসের বিশাল অংশজুড়ে সজীব হয়ে থাকবে  অনন্তকাল। প্রজন্ম থেকে প্রজন্মন্তারে! তবে আমাদের কাছে যেটি সুখস্মৃতি তাদের কাছে হয়তোবা সেটি হবে লোক কথা!

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*