মিরসরাইয়ের পাহাড়ি ঝর্ণাগুলো কি অনিরাপদ হয়ে উঠছে?


মঈনুল হোসাইন টিপু..
মীরসরাইয়ের পাহাড়ি ঝর্ণাগুলো বর্তমানে এডভেঞ্চার প্রিয় মানুষ বিশেষত তরুণদের মধ্যে বেশ জনপ্রিয়।প্রতিদিন সারা বাংলাদেশ থেকে অসংখ্য মানুষ এ ঝর্ণাগুলো দেখতে আসে।মূলত ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে হওয়ায় এবং অনেকগুলো ঝর্ণা পাশাপাশি থাকায় এই ঝর্ণাগুলোতে মানুষ স্বল্প খরচে খুবই তৃপ্তি নিয়ে ভ্রমণ করতে পারে।

কিন্তু ঝর্ণাগুলোতে প্রায়ই চিনতাই,হয়রানির শিকার হচ্ছে অসংখ্য মানুষ।অনিন্দ্য সুন্দর এ ঝর্ণাগুলো দিন দিন ভ্রমণপিপাসুদের জন্য অনিরাপদ হয়ে উঠছে।

২০১৫ সালে আমি “এমেইজিং বাট রিস্কি,সতর্ক কি হচ্ছি”? এই শিরোনামে বেশ কিছু সুপারিশ সহ একটি লিখা ফেসবুকে এবং অনলাইন নিউজে দিয়েছিলাম।

 

আমরা ভুলে যাই,এই ঝর্ণাগুলো আমাদের মীরসরাইকে সবার মাঝে পরিচিত করছে,সহজে ব্র‍্যান্ডিং করছে।তাই এই ঝর্ণাগুলোতে পর্যটকদের নিরাপত্তা বিধানের দায়িত্ব আমাদের স্থানীয় প্রশাসন থেকে শুরু করে জনপ্রতিনিধি এবং সাধারণ মানুষের উপরও বর্তায়।আমাদের মীরসরাইয়ের পজেটিভ ইমেজ ধরে রাখতে হলে এসব ঝর্ণাগুলোতে অচিরেই নিরাপত্তা বিধান সহ,পর্যটকদের উদ্বেগ দূর করা জরুরি।(পরবর্তী লেখায় আমি কিছু সুপারিশ উপস্থাপন করবো।

গত দুদিন আগে ভ্রমণ সম্পর্কিত জনপ্রিয় গ্রুপ Travellers of Bangladesh (TOB) তে শুভ্র নীল নামে ঢাকা থেকে আগত এক পর্যটক লিখেন,কমলদহ ঝর্ণা থেকে তাদের ১৬ টি মোবাইল,তিনটি ডিএসএলআর ক্যামেরা চিনতাই হয়েছে।তারা থানায় পুলিশের সাথে যোগাযোগ করলেও কোন সহযোগিতা পাননি।সেখানে অসংখ্য মানুষ কমেন্ট বক্সে বিভিন্ন সময়ে তাদের তিক্ত অভিজ্ঞতার কথা বলেছেন।যা মীরসরাইয়ের একজন সাধারণ নাগরিক হিসেবে এবং একজন ভ্রমণপ্রিয় মানুষ হিসেবে আমাকে খুব বেশি ব্যাথিত করেছে।

আমি নিচে স্ট্যাটাসটি হুবুহু তুলে ধরছি……..

 

 

 

“”#কমলদহ ঝর্না নিয়ে সচেতনতা মূলক কিছু কথা বলার ছিল।আমরা ১২ বন্ধু মিলে ১৬ তারিখ রাতে কমলাপুর থেকে মেইল ট্রেন এ করে সীতাকুন্ড উদ্দেশ্য রওনা দেই। সকাল বেলা ট্রেন থেকে নেমে সীতাকুন্ড বাজারে যাই । বাজার থেকে সকালের নাস্তা করে আমরা চন্দ্রনাথ পাহাড়ের উদ্দেশ্য রওনা হই।
যেহেতু আমাদের প্লান ছিলো ১ দিনের ,পরে ২ দিন থাকার প্লান করি ।তাই আমরা চন্দ্রনাথ ঘুরার পর কাছাকাছি কোন স্পট কে বেছে নিয়েছিলাম ।আমরা কমলদহ ঝর্নায় যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। সীতাকুন্ড বাজার থেকে মাত্র ৭ কি মি দূরত্ব ছিলো কলমদহ ঝর্না।
সময় তখন ১.৩০মিনিট
আমরা সমতল ভূমি থেকে ঝিরি পথের আকাবাকা রাস্তা ধরে ২ কিমি অতিক্রম করলে প্রথম ঝর্না পরে। ঐ ঝর্নায় বশি পানি না থাকায় আমরা আরো সামনে হাটতে থাকি । আরো ১/১.৫ কিমি পথা যাওয়ার পর বড় একটা ঝর্নার দেখা পেলাম। প্রায় বেলা ৩/৪ টা বাজে তখন।
আমরা সবাই ঝর্নার নিচে গেলাম । তার আগে আমাদের ব্যাগ ঝর্নার কাছেই শুকনা জায়গায় রাখেছিলাম। ব্যাগের মধ্যে সকল টাকা পয়সা প্রয়জনীয় নিজিস রেখে ছিলাম।

 

 


আমরা ঝর্নায় নেমে আহ কি শান্তি , সবাই খুব উপভোগ করতে ছিলাম ঝর্নায় সে অপরূপ সৌন্দর্য । আমার এক ফ্রেন্ড তার ছোট ভাইয়ের DSLR ক্যামেরা সাথে নিয়েছিল ছোট ভাইটাও আমাদের সাথে ছিলো ট্যুরে। সেই ছোট ভাইটা ঝর্না থেকে ৩০ মিটার দূরে শুকনা জায়গা থেকে আমাদের ছবি তুলতে ছিলো ,যখন ক্যামেরা দিয়ে ছবি তুলতে ছিলো তখন পিছন থেকে গামছা দিয়ে মুখ ঢাকা ২ জন লোক ঐ ছোট ভাইয়ের কাছে এসেই কোন কথা বলা ছাড়া তাকে লাঠি দিয়ে পিছন থেকে ২ টা বারি দেয় । ছোট ভাইটা কিছু বুঝার আগেই ক্যামেরা রেখে আমাদের দিকে ছুটে আসতে থাকে ,আমরাও তাকে বাচাতে দৌড় দেই তার দিকে । তখনি আরো ২ জন লোক বড় বড় চাপাতি আর ছুরি নিয়ে আমাদের দিকে ছুটে আসে । আমরা ঐ চুরি আর চাপাতি দেখে ভয় পাওয়া ছাড়া আর কোন উপায় ছিল না.আমাদের হাতের কাছে কিছুই ছিল না,তাছাড়া ওরা কতজন তা বুঝারও কোন উপায় নাই । যদি তারা আমাদের কাউকে একটা চাপাতি দিয়ে কোপ দেয় তাহলে আমাদের করার কিছু থাকবে না । তাই চেয়ে থাকা ছাড়া আর কিছুই করার ছিল না।
২ দিক দিয়ে তারা আমাদের চাপাতি আর ছুরি দিয়ে ভয় আর জিম্মি করে রাখে বাকি ২ জন আমাদের সবার ব্যাগ থেকে ক্যাশ টাকা ,মানি ব্যাগ , মোবাইল ১৬টা, #DSLR ,চার্জার , ঘড়ি ইভেন আমার একটা প্যান্ট,ঘড়ি ছিলো সেটাও নিয়ে গেছে।আমাদের সাথে কিছু শুকনা খাবার ছিলো সেই গুলাও নিতে ভুল করে নাই তারা ।
এইখানে এরকম ঘটনা ঘটে বা ঘটতে পারে এরকম কোন আইডিয়া ছিল না,তাহলে এতকিছু নিয়ে বা সাবধান না হয়ে যেতাম না, আর ওই সময় সুধু আমাদের গ্রুপ টাই ছিলাম আর কেউ ছিল না।
সবার জন্ন্য বলব এইখানে গেলে সাবধানতা অবলম্বন করে যাবেন আর বন্ধের দিনে হয়ত মানুষ বেশি থাকে তখন যাবেন। আমার মনে হয় এরা সবসময় ই এখানে ওত পেতে থাকে, সুযোগ মত পাওয়া মাত্রই আক্রমণ চালায়।
স্থানীয় লোকজন ও পুলিশ বেপারটা এড়িয়ে ই গেল….এস. আই বললেন তোমরা থানায় অনুমতি না নিয়ে গেলা কেন? আরও বললেন এটা তোমাদের শিক্ষা…
কস্ট,ভয় আর তাদের ভাষ্য মতে জিবনের অন্যতম শিক্ষা নিয়ে ঢাকা ফেরত আসলাম।
আশা করি আমাদের শিক্ষা আপনাদের সতর্কতা বাড়াতে সহায়তা করবে।

লেখা Moinul Hossain Tipu

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*