মিরসরাইয়ে কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগে ১জন গ্রেপ্তার




মিরসরাইয়ে এক কিশোরীকে (১৪) ধর্ষণের অভিযোগে মিরসরাই থানা পুলিশ নুর উদ্দিন মিনহাজ (৩০) নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে । রোববার (১৬এপ্রিল) রাত ৮টায় মিরসরাই পৌরসভার তারাকাটিয়া এলাকার একটি ভাড়া বাসা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এর আগে মিনহাজের বিরুদ্ধে মিরসরাই থানায় ওই কিশোরীর মা বাদি হয়ে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। গ্রেপ্তারকৃত মিনহাজ মিরসরাই পৌরসভার মধ্যম মঘাদিয়া ৬ নন্বর ওয়ার্ডের সফিকুল ইসলামের ছেলে। মিনহাজ দুই বিয়ে করে দুই বৌকে দুই জায়গায় ভাড়া বাসায় রেখেছে। প্রথম সংসারে দুই সন্তান রয়েছে। দি¦তীয় সংসারে স্ত্রীর সাবেক স¦ামীর ঘরের দুই সন্তান রয়েছে। বড় স্ত্রী ঘওে না থাকায় পাশের বাসার কিশোরীকে বিয়ের প্রলোভনে ফুসলিয়ে ধর্ষন করেছে বলে ভিকটিম পুলিশের কাছে অভিযোগ করেন।

পুলিশ ও কিশোরীর মায়ের লিখিত অভিযোগে জানা যায়, কিশোরীর মা এক ছেলে ও এক মেয়ে নিয়ে পৌরসভার তারাকাটিয়া এলাকায় সালমা ভবনের নিচ তলার একটি কক্ষে ভাড়া থাকেন। অভিযুক্ত মিনহাজও তাদের পাশের একটি কক্ষে বাসা ভাড়া থাকতেন। একই জায়গায় থাকার কারণে তার মেয়ে মিনহাজকে বাবার মতো জানতো। মিনহাজও তার মেয়েকে নিজের মেয়ের মতো কথাবার্তা বলতো। কিন্তু গত শুক্রবার (১৪ এপ্রিল) ঈদের দিন সকালে তার মেয়েকে মিনহাজ বেড়াতে যাওয়ার কথা বলে তার বাসায় নিয়ে যায়। এসময় বাসায় মিনহাজের স্ত্রী না থাকার সুযোগে সে তার মেয়েকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পরে তার মেয়ে বাসায় এসে ঘটনা তাকে জানালে তিনি বিষয়টি স্বজনদের সাথে আলোচনা করে থানায় অভিযোগ করেন।
মিরসরাই থানার পরিদর্শক দীনেশ দাশগুপ্ত জানান, অভিযোগ পেয়ে অভিযুক্ত নুরউদ্দিন হোসেন মিনহাজকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ধর্ষণের শিকার ওই কিশোরীকে মিনহাজ বিয়ের প্রলোভন দেখিয়েছিল। কিন্তু মিনহাজ ইতিপূর্বে নোয়াখালী ও মিরসরাইয়ে সৈদালী এলাকা থেকে দুই বিয়ে করে। মিনহাজকে সোমবার সকালে থানা থেকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। ওই কিশোরীকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*