মিরসরাইয়ে চলচ্চিত্র পরিচালক মোস্তফা মেহমুদের শোকসভা অনুষ্ঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক…

মিরসরাইয়ের গুনী চলচিত্র পরিচালক মোস্তফা মেহমুদের শোকসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত মঙ্গলবার (১৮এপ্রিল) সন্ধ্যায় ‘দ্বীপ জ্বেলে যাই’ সংগঠনের উদ্যোগে মিরসরাই গণ পাঠাগার কার্যালয়ে ওই শোকসভা অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের উপদেষ্ঠা শারফুদ্দীন কাশ্মীরের সভাপতিত্বে এসময় স্মৃতিচারণ মূলক বক্তব্য রাখেন মিরসরাই ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ মো. নুরুল আফছার, উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা মো. জসিম উদ্দিন, মোস্তফা মেহমুদের আমেরিকা প্রবাসী বড় ছেলে সালাউদ্দিন মেহমুদ, জে.বি উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারি প্রধান শিক্ষক সুভাষ সরকার, কবি মাহমুদ নজরুল, দাউদুল ইসলাম, সাংবাদিক বিপুল দাশ, শিক্ষক নুপুর ধর, উত্তম বড়–য়া, দ্বীপ জ্বেলে যাই’র সভাপতি আনিস মোর্শেদ, সম্পাদক মহিবুল আরিফ প্রমুখ।

প্রসঙ্গত, ১৯৬৬ সালে ‘বেহুলা’ ছায়াছবিতে সহকারি পরিচালক হিসেবে কাজ শুরু করেন মোস্তফা মেহমুদ। এরপর ষ্টার ফিল্মস্ এর অনুরোধ জহির রায়হান, মোস্তফা মেহমুদসহ কয়েকজনের যৌথ পরিচালনায় বানানো হয় ‘দুই ভাই’ ও ‘সংসার’ নামে দুইটি ছবি। ১৯৬৮ সাল মিতা ফিল্মসের ব্যানারে ‘মোমের আলো’ নামে মোস্তফা মেহমুদের একক পরিচালনায় প্রথম ছায়াছবির মুক্তি পায়। ১৯৭২ সালের ১৪ ফেব্রæয়ারি মোস্তাফা মেহমুদ পরিচালিত স্বাধীন বাংলার প্রথম ছায়াছবি এফডিসি থেকে মুক্তি পায় ‘মানুষের মন”। ওই ছবিতে অভিনয় করেন নায়ক রাজ্জাক, ববিতা ও আনোয়ার হোসেন। মোস্তফা মেহমুদের উল্লেখযোগ্য ছায়াছবির মধ্যে রয়েছে ‘মায়ার সংসার’ ‘মোমের আলো’ ‘অবাক পৃথিবী’ ‘জয় পরাজয়’ ‘মধুমিতা’ ‘মাটির মানুষ’ ‘মনিহার’। সর্বশেষ ১৯৮২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ‘স্বামীর সোহাগ’ নামে মোস্তফা মেহমুদের পূর্ণদৈর্ঘ ছায়াছবি মুক্তি পাওয়ার পর চলচ্চিত্র জগৎ থেকে নিজেকে গুটিয়ে নেন এবং চলে আসেন নিজ জম্মস্থান মিরসরাইয়ের মিঠানালা গ্রামে। ওই ছবিতে অভিয়ন করেন কবরী ও প্রয়াত বুলবুল আহামেদ। পাকিস্তান আমলে ৬ টি ও স্বাধীনতার পরবর্তী সময়ে ৯ টি ছায়াছবি তিনি পরিচালনা করেন। গত ৯ এপ্রিল মিরসরাইয়ের মিঠানালা ইউনিয়নের নিজ বাড়িতে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

Share

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*