মোটরসাইকেলে প্রাণহানি, অভিভাবকরা সচেতন হবেন কবে?


জান্নাতুল মাওয়া শাখি>>>
মানুষের চলাচলের জন্য মোটরসাইকেল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বাহন। দেশে প্রযুক্তির আশির্বাদে এখন মোটরসাইকেলের মাধ্যমে অর্থ উপর্জনেরও সুযোগ তৈরী হয়েছে। কিন্তু মোটরসাইকেল ব্যবহারে সঠিক উপায় নিশ্চিত না করায় সড়কে প্রাণহানি ঘটছে প্রতিনিয়ত। আমাদের দেশে দূর্ঘটনার দিক থেকে মোটরসাইকেলের অবস্থান দ্বিতীয়!
মিরসরাইতে দুই মাসের ব্যবধানে দুটি পৃথক মোটরসাইকেল দূর্ঘটনায় ঝরে গেল ৬ টি তাজা প্রাণ! এছাড়া ছোট খাট দূর্ঘটনাতো ঘটছেই। কিন্তু তিনজন করে মৃত্যুর সংবাদ আমাদের ভাবিয়ে তোলে! সচেতন না হওয়াটা অপরাধের পর্যায়ে চলে যায়। গত ১৪ মার্চ বৃহস্প্রতিবার উপজেলার ওচমানপুর ইউনিয়নের লোহারপুর এলাকায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে একটি গাছের সঙ্গে ধাক্কা খায়। এতে ঘটনাস্থলে দুইজন মারা যায়। একজনকে উদ্ধার করে মেডিকেলে নেওয়ার পথেই মৃত্যু বরণ করেন। নিহত তিনজনই বন্ধু ছিলেন। এঁরা হলেন- উপজেলার জোরারগঞ্জ ইউনিয়নের মধ্যম সোনাপাহাড় এলাকার নুরুল আবছারের ছেলে আরিফ হোসেন (২০), ইছাখালী ইউনিয়নের পুর্ব ইছাখালী এলাকার মুসলিম উদ্দিনের ছেলে ইসমাইল হোসেন (২২) ও মিঠানালা ইউনিয়নের পশ্চিম মলিয়াইশ গ্রামের শাহ আলমের ছেলে মেহেদী হাসান (২৮)।
এই ঘটনার দুই মাস পর গত ২৫ মে (শনিবার) রাত সাড়ে ৯টার দিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মিরসরাই পৌর সদরে মর্মান্তিক মোটরসাইকেল দূর্ঘটনায় প্রাণ হারান উপজেলার খৈয়াছরা ইউনিয়নের তাকিয়া পাড়া এলাকার আব্দুল মান্নানের ছেলে মো. রাকিব হোসেন (১৯), পূর্ব খৈয়াছড়া গ্রামের শফিউল আলমের ছেলে তারেক হোসেন (১৯) ও ফেনীর ছাগলনাইয়া উপজেলার মো. রিফাত (২০)। নিহতরা পরষ্পর বন্ধু ছিলেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, মোটরসাইকেলটি ট্রাকের পিছনে ধাক্কা দিয়ে ভিতরে ঢুকে ঘটনাস্থলেই দুজন মরা যান অন্যজনকে মেডিকেল নিলে ডাক্তার মৃত ঘোষণা করেন।
এই মৃত্যুর দায় কার? এসব ঘটনা কি শুধুই মৃত্যু নাকি আমাদের অবহেলা, অসচেতনা আর দায়িত্বহীনতার ফসল? সমীক্ষা বলছে ‘নিবন্ধিত মোটরসাইকেলের ৫৯ শতাংশ চালকেরই লাইসেন্স নেই। আবার সড়ক দূর্ঘটনায় জড়িত যানবাহনের মধ্যে দ্বিতীয় স্থানে আছে মোটরসাইকেল। প্রতিবছর গড়ে দেড় লাখ নতুন মোটরসাইকেল সড়কে নামছে। এ পরিস্থিতিতে মোটরসাইকেলের মোটর সাইকেল ক্রয়ের ক্ষেত্রে লাইসেন্স থাকা বাধ্যতামুলক করতে চাইছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ। কিন্তু সরকারি এই সংস্থার লাইসেন্স দেওয়ার সক্ষমতা নেই, পরীক্ষা প্রক্রিয়ায়ও গলদ আছে। ফলে মোটরসাইকেল এখন পরিবহন খাতে উভয় সংকটের জন্ম দিয়েছে। বিআরটিএর হিসাব বলছে গত মার্চ পর্যন্ত সারা দেশে নিবন্ধিত যানবাহনের সংখ্যা ৩৯ লাখের মতো। এর মধ্যে মোটরসাইকেল ২৫ লাখের বেশী। মোটরসাইকেলের লাইসেন্স আছে মাত্র সাড়ে ১০ লাখ। এই তথ্য মতে দেশে প্রায় ১৫ লাখ মোটরসাইকেল চালাচ্ছেন লাইসেন্সবিহীন চালকরা।
স্বাধীনতার পর থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত দেশে নিবন্ধিত মোটরসাইকেলের সংখ্যা ছিল ৭ লাখ ৫৯ হাজার। গত এপ্রিল পর্যন্ত আট বছর চার মাসে বেড়েছে ১৮ লাখ ২৮ হাজার মোটরসাইকেলে। এই বৃদ্ধিকে মোটরসাইকেল সংযোজনকারী এবং আমদানিকারকেরা দেখেছেন শিল্পের বিকাশ ও কর্মসংস্থানের সুযোগ হিসেবে। অন্যদিকে বিশেষজ্ঞরা বলছেন এতে দুর্ঘটনার ঝুঁকি বেড়েছে।
বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির তথ্য মতে ২০১৮ সালে দেশে ২৫ শতাংশ সড়ক দূর্ঘটনার সঙ্গে মোটরসাইকেল জড়িত ছিল। ‘’প্রথম আলো ২১ মে ২০১৯।
মোটরসাইকেল চাকলকদের জন্য আইন ঃ মোটরসাইকেল বিক্রি ও সরবরাহের আগে চালককে লাইসেন্স দেওয়ার বিষয়ে গত ১৩ মে সড়ক পরিবহন মন্ত্রনালয়ে এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে সাম্প্রতিক সময়ে কয়েকটি সড়ক দুর্ঘটনার তদন্তে মোটরসইকেলের চালকের লাইসেন্স না থাকার তথ্য তুলে ধরে সড়ক পরিবহন মন্ত্রনালয়। আমদানিকারকেরাও তাদের বক্তব্য উপস্থাপন করেন। কোন সিদ্ধান্ত ছাড়াই সেদিন বৈঠক শেষ হয়।
গত ২৭ মে (সোমবার) ফুটপাতে মোটরসাইকেল চালালে সর্বোচ্চ তিন মাসের জেল (কারাদণ্ড) এবং ৩৫ হাজার টাকা জরিমানার বিধান রেখে সড়ক পরিবহন আইন-২০১৭-এর খসড়ায় অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিপরিষদ। সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত নিয়মিত মন্ত্রিপরিষদ বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়। আইনে মোটর সাইকেলের ক্ষেত্রে চালক ও সহযাত্রীর দুজনেরই হেলমেট থাকতে হবে, গাড়ীর সামনে ও পেছনে ঝুঁকিপূর্ণভাবে কোনও কিছু বহন করা যাবে না, চলন্ত অবস্থায় প্যাসেঞ্জার ওঠা-নামা করানো যাবে না, সাইড করে গাড়ি রেখে যানজট সৃষ্টি করা যাবে না, উল্টো পথে বা রং সাইট দিয়ে মোটর সাইকেল চলাচল করতে পারবে না। এসব ভঙ্গ করলে শাস্তির বিধান রাখা হয়েছে প্রস্তাবিত আইনে।
মোটরসাইকেল ব্যবহারে সচেতনতা ঃ ছোট ও ঢিলেঢালা কাপড় পরা ভালো আইডিয়া নয়, কারণ এগুলো নিরাপদ নয়। এগুলো একই সাথে পিছলানোর আশঙ্কাও বাড়িয়ে দেয়। নিরাপত্তার জন্য আপনি যা করতে পারেন তা হলো একটি ছিদ্রযুক্ত জ্যাকেট যা একই সাথে আপনাকে নিরাপদ ও ঠান্ডা রাখবে। গ্রীষ্মের সময় জিন্স টি-শার্ট পরা যায়। সম্পূর্ণ মনোযোগ ড্রাইভিংয়ের দিকে রাখা একটি অবশ্য পালনীয়। যেকোনো প্রকার অমনোযোগিতায় বাইক চালকের জন্য ক্ষতিকর এবং তা দুর্ঘটনা ঘটাতে পারে। বাইক চালানোর সময় কোনো কিছু চিন্তা করা খুবই খারাপ। আপনার এম.পি থ্রি প্লেয়ারে গান শোনা কিংবা কারো সাথে ফোনে কথা বলা ড্রাইভিং হতে আপনার মনোযোগ সরিয়ে ফেলে তাই আপনার এগুলো পরিহার করা উচিত। মোটর সাইকেল চালানোর সময় দুর্ঘটনা এড়াতে ট্রাফিক সিগন্যাল মেনে চলতে হবে। ট্রাফিক সিগন্যালগুলোতে পৌঁছানোর আগে থেকে বাইকের গতি কমিয়ে ফেলুন। এতে তেল আর ব্রেক প্যাডেলের ক্ষয় কম হবে। হার্ডব্রেক আপনার দেহের জন্যও ক্ষতিকর। ভাঙা ও উঁচু রাস্তায় কম গতিতে বাইক চালাতে হবে। যদি হঠাৎ স্পিডব্রেকার সামনে চলে আসে, আর বাইকের গতিও কমাতে পারছেন না, তাহলে ওই অবস্থায় সিট থেকে কোমর একটু উঁচু করলে শরীরে ঝাঁকুনি অনেক কম লাগবে। লেন পরিবর্তনের সময় অবশ্যই বাইকের ইন্ডিকেটর লাইট দিয়ে সঠিকভাবে সিগন্যাল দিতে হবে। বাইকের দুই পাশের আয়নায় (লুকিং গ্লাস) দেখতে হবে, বাকি লেনগুলোর গাড়িগুলো নিরাপদ দূরত্বে আছে কি না? এরপর ধীরে ধীরে কাক্সিক্ষত লেনে প্রবেশ করতে হবে। বাইকের জন্য ঘন ঘন লেন পরিবর্তন করা ঠিক নয়। কোনো যানবাহন, সামনে থেকে বায়ে মোড় নিলে দুর্ঘটনা বেশি হয়ে থাকে। সামনের একটা কার বা অন্য কোনো যানবাহন, না দেখেই বা স্পিড ভালভাবে না বুঝেই বাদিকে মোড় নিলে, বাইকার যদি আগে থেকে সতর্ক না থাকেন তাহলে দুর্ঘটনা অবসম্ভ্যাবী। এটা এড়ানোর জন্য সবসময় বাইকারের সামনের যানবাহনের সিগন্যাল লাইটের দিকে খেয়াল রাখতে হবে। এটা কোন দিকে টার্ন নিতে পারে সেটা লক্ষ্য রাখতে হবে।
বর্তমানে বিভিন্ন কারণে মোটরসাইকেলের ব্যবহার বেড়েছে। এই ব্যবহার যদি প্রয়োজনে হয় সেটাতে যেমন সাধুবাদ পাওয়ার দাবী রাখে তেমনি মোটরসাইকেলের ব্যবহার যদি বিনোদনের জন্য হয় সেক্ষেত্রে শঙ্কা তৈরী হয়। মিরসরাইয়ে অর্থনৈতিক কর্মযজ্ঞের কারণে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এলাকা। এখানে প্রতিটি যানবাহনের ব্যবহারের উপর সর্বোচ্চ গরুত্ব দেওয়ার সময়া এখনই। লাইসেন্স ছাড়া এবং বৈধ কাগজপত্র ছাড়া গাড়ির চালকদের শক্ত হাতে দমন করতে হবে। অভিভাকরা যদি সচেতন না হন তবে এভাবে দ্রুত গতির মোটরসাইকেল মিরসরাইয়ের আরো অনেক মায়ের বুক খালি করবে। পিচঢালা কালো সড়ক তাজা প্রাণের রক্তে হবে রঞ্জিত!
তাই আসুন প্রত্যেকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে এগিয়ে এসে শপথ নিই মিরসরাইয়ের সড়কে যেন আর একটি প্রাণও মোটরসাইলে দূর্ঘটনার বলি না হয়।

লেখক : শিক্ষার্থী, অর্থনীতি বিভাগ, চট্টগ্রাম কলেজ।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*