রূপসী ঝর্ণার রূপে পাগল হবে যে কেউ

মঈনুল হোসেন টিপু, অতিথি লেখকঃ

নাম তার রুপসী। রুপসীর এত রুপ, যে কেউ প্রথম দেখায় প্রেমে পড়বে। সৌন্দর্যের পসরা বিছিয়ে আছে রুপসী। রুপসীর রুপের রহস্য যে কি, রুপসীর যে কত রুপ, কি অদ্ভুত অপার মুগ্ধতা নিয়ে নিরবধি বয়ে চলছে রুপসী, তা দেখে আসলাম স্বচক্ষে। রুপসী ঝর্ণা, মিরসরাইয়ের বড় দারোগারহাটের উত্তরে পাহাড়ের কোল অবস্থিত এক দৃষ্টিনন্দন, অনিন্দ্যসুন্দর এক জলপ্রপাত। মিরসরাইয়ের অন্যান্য ঝর্ণাগুলোর চেয়ে এই ঝর্ণায় যাওয়া অনেকটাই সহজ, এবং সৌন্দর্য্যে কোন অংশেই খৈয়াছড়া, নাপিত্তাচড়া ঝর্ণার চেয়ে কম না। এই ঝর্ণার যাওয়ার পথে দৃষ্টিনন্দন ছড়া, দুপাশের দন্ডায়মান পাহাড়, সবুজ প্রকৃতি, গুহার মত ঢালু ছড়া, তিনটি ভিন্ন ভিন্ন অপরুপ ঝর্ণা, রুপসীর সৌন্দর্য্যকে অন্যান্য ঝর্ণা থেকে আলাদা করেছে।

মিরসরাইয়ের বড় দারোগারহাট বাজারের সামান্য উত্তরের ব্রিকফ্রিলের রোড ধরে পূর্ব দিকে আধা কিলোমিটার পথ পাড়ি দিলেই রেললাইন। রেললাইন পেরুলেই মেঠো পথ, দুপাশে সবুজ ফসলি মাঠ, সামনে পাহাড়ের বিশালতা। আর সেই মেঠো পথ ধরে একটু হাঁটলেই পাহাড়ের পাদদেশ। বাঁ দিকে ৫০ গজ হাঁটলেই বিশাল ছড়া, যেটি রুপসীর প্রবেশপথ। দুপাশে সবুজে ঢাকা উঁচু পাহাড়, পাহাড়ের মাঝ দিয়ে বয়ে চলা ছড়া। বর্ষায় প্রচুর পানি থাকে ছড়ায়, ছড়া ধরে হাটতে হাটতে চোখে পড়বে দুপাশের সবুজ প্রকৃতি, নানারকম গাছ গাছালির সমাহার। ছড়া ধরে দশ মিনিট হাঁটলেই পাওয়া যাবে রুপসীকে, জলরাজ্যের রুপসী। এত কাছে রুপসী ধরা দেবে কল্পনাই করতে পারিনি, এত সহজ পথ অথচ কত সুন্দর।

রুপসীর প্রথম ধাপটা বড় একটি ঝর্ণার মত, অনেকটা খাড়া তবে ঢালু। বর্ষায় পুরো ঝর্ণা বেয়ে পানি পড়ে, শুষ্ক মৌসুমে শুধু দক্ষিণ দিকটায়। অনেকেই এতটুকু দেখে ক্ষান্ত দেয়, মনে করে রুপসী শুধু এটাই। অথচ এটি রুপসীর বাইরের রুপ, ভেতরের রুপটা আরো বেশি সুন্দর। রুপসীর প্রথম ধাপের ঝর্ণাটা বেয়ে উপরে উঠলে খোলা একটা জায়গা, তারপর একটা বড় পাথর। এই পাথরের মাঝ দিয়ে অনবরত পানি ঝরছে। দশ ফুটের খাড়া পাথরটি বেয়ে উঠতে পারলেই এবার অন্যরকম এক সৌন্দর্য। বিশাল ছড়া, তবে বেশ আঁকাবাঁকা, ঠিক বয়ে চলা কোন নদীর মত।

ছড়া দিয়ে হাঁটার সময় চোখে পড়বে হরেক রকম পাহাড়ি বৃক্ষ, ফুল, ফল, লতা গুল্ম। দুপাশে সবুজ আর সবুজ, আর ছড়ার বুক ছিড়ে হাঁটতে হাঁটতে মনে হবে যেন কোন গুহার মধ্য দিয়ে হেঁটে হেঁটে রহস্যভেদ করা হচ্ছে। আর ছড়ার মধ্য দিয়ে স্বচ্ছ পানির বয়ে চলার কল কল ধ্বনি, মুগ্ধ করবে শুধুই। ছড়ার কোথাও অসমান নেই, পথ আটকানোর মত বড় পাথর নেই, পা মছকে দেয়ার জন্য শ্যাওলা নেই, কাঁদা নেই-বালি নেই, সুন্দর সমান এক ছড়া। যেন সৃষ্টিকর্তা ছড়ার নিচের দিকটা দশ ইঞ্চি পাথর দিয়ে ঢালাই করে দিয়েছেন।

যেতে যেতে দেখা যেতে পারে বানরের দল, বনমোরগের ছুটাছুটি, আর শোনা যেতে পারে ঝি ঝি পোকার আওয়াজ। ছড়া ধরে হাঁটতে হাঁটতে পাওয়া যাবে দুটি পথ, এক পথের ছড়া বড়, আরেক পথের ছোট। বড় ছড়া ধরে একটু এগুলোই রুপসীর মূল ঝর্ণা। অনেক দূর থেকেও কানে ভেসে আসে ঝর্ণার অবিরাম পানি পড়ার সুমধুর ধ্বনি। ৫০ ফুট উঁচু পাথর বেয়ে পড়ছে জল, অনবরত, প্রতিনিয়ত। শত বছর ধরে, সহস্রকাল ধরে।

ওহ! রুপসী, কি অনিন্দ্যসুন্দর তোমার রুপ। তব্দা হয়ে যাওয়ার মত সৌন্দর্য। অবাক বিস্ময়ে তাকিয়ে থাকার মত জৌলুস। পানির প্রবাহে কি গতিময়তা, পাথর বেয়ে পড়া স্বচ্ছ জলরাশি। তুমিই তো সত্যিকারের রুপসী। সৃষ্টিকর্তা নিজ হাতে গড়েছেন এই ঝর্ণা, প্রকৃতি, সৌন্দর্য। সেই শ্রেষ্ঠত্ত্বের দৃঢ় উচ্চারণ যেন রুপসী।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*