রোগের নাম চিকুনগুনিয়া

ডা: ওয়ানাইজা রহমান..

বর্তমানে সারাদেশ জুড়ে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে যে রোগটি তার নাম চিকুনগুনিয়া। এটি বাংলাদেশে প্রথম দেখা দেয় ২০০৮ সালে। এরপর ২০১১ সালে। কিন্তু বর্তমানে ব্যাপক আকারে এটি ছড়িয়ে পড়েছে। এটি মূলত ভাইরাস ঘটিত রোগ যা সংক্রমিত এডিস মশা দ্বারা ছড়িয়ে পড়ে। এডিস এমন এক ধরনের মশা যা ঘরোয়া পাত্রে বংশ বিস্তার করে এবং দিনের বেলায় কামড়ায়। এই চিকুনগুনিয়া ‘টোগাভিরিড’ পরিবারভুক্ত ‘আলফাভেরাস’ প্রজাতির ভাইরাস ঘটিত একটি রোগ। সংক্রমিত মশা দ্বারা এই রোগটি প্রেরিত হয়। উপসর্গ বা লক্ষণ, শারীরিক সমস্যা (যেমন গাঁট ফুলে যাওয়া), পরীক্ষাগারে পরীক্ষা ও সংক্রমিত মশার গতিবিধির সন্ধান – এসবের ভিত্তিতে এই রোগটি নির্দ্ধারণ করা হয়। চিকুনগুনিয়া রোগের নির্দিষ্ট কোনো চিকিৎসা নেই।উপসর্গ বা লক্ষণের ভিত্তিতে এর পরিচর্যা করা হয়।
উপসর্গ : জ্বরের সূত্রপাত সঙ্গে গাঁটের ব্যথা হল চিকুনগুনিয়ার প্রাথমিক উপসর্গ। অন্যান্য উপসর্গের মধ্যে পড়ে : পেশীর যন্ত্রণা, ক্লান্তি ও বমিবমি ভাব
চামড়ায় ফুসকুড়ি, ক্লান্তিদায়ক গাঁটের ব্যথা, তবে তা সাধারনত কয়েক দিন বা কয়েক সপ্তাহ পর এমনিতে ঠিক হয়ে যায়।
কারণ : সংক্রমিত মশার দ্বারা এই রোগটি হয়ে থাকে। মশা তখনই সংক্রমিত হয় যখন এটি চিকুনগুনিয়া ভাইরাসে আক্রান্ত কোনো ব্যক্তির শরীরের রক্ত পান করে। রোগসঞ্চার থেকে প্রথম রোগলক্ষণ দেখা দেওয়া পর্যন্ত সময়কাল (সুপ্তাবস্থা) ২ থেকে ১২ দিন হতে পারে, তবে সাধারণভাবে এই সুপ্তাবাস্থার সময়সীমা ৩-৭ দিন। ‘নির্বাক’ চিকুনগুনিয়া ভাইরাসের আক্রমণও (অসুস্থতার লক্ষণ ছাড়া সংক্রমণ) দেখা যায়, তবে তা খুব কম।
রোগ নির্ণয় : উৎসেচক সম্পর্কিত অনাক্রমক বিশুদ্ধতা পরীক্ষা [এনজাইম-লিংকড ইমিউনো সরবেন্ট আসেজ (ই এল আই এস এ)] চিকুনগুনিয়া-বিরোধী অ্যান্টিবডি ‘১ গ্রাম এম’ ও ‘১ গ্রাম জি’-র উপস্থিতি নিশ্চিত করতে পারে।
ভাইরাস রিভার্স ট্রান্সক্রিপ্টজ -পালিমারেজ চেইন রিয়াকশন (আর টি -পি সি আর ) পদ্ধতি সমূহও সম্ভব, তবে তা সুক্ষ্ম ও পরিবর্তনশীল।বিভিন্ন ভৌগোলিক পরিবেশ থেকে নেওয়া ভাইরাসের নমুনা ও চিকিৎসার নমুনার ভিত্তিতে ‘আর টি -পি সি আর’-র ফলাফল ভাইরাসের ধরণ বা প্রজাতি নির্ধারণে ব্যবহৃত হতে পারে।
চিকিৎসা : চিকুনগুনিয়া নিরাময়ের নির্দিষ্ট কোনো ওষুধ নেই। বেদনানাশক ওষুধ (পেইন কিলার) : প্যারাসিটামল, আইবুপ্রফেন ধরনের ওষুধ ব্যথা কমাতে সাহায্য করে। আসিক্লোভির জাতীয় ভাইরাস-প্রতিরোধক ওষুধ দেওয়া হয় (তবে, একমাত্র জটিল অবস্থায় এই ধরনের ওষুধ খেতে বলা হয়।
এই সময় প্রচুর পরিমাণে তরল জাতীয় খাবার ও পানি খাওয়া প্রয়োজন।
প্রতিরোধ : চিকুনগুনিয়ার নির্দিষ্ট কোনো টিকা (ভ্যাকসিন) নেই। মশা বাহিত অন্য যেকোনো ভাইরাস ঘটিত রোগের মতো (উদাহরণ: ডেঙ্গু) এরও প্রতিরোধ-প্রক্রিয়া একই এবং সেগুলোর মধ্যে পড়ে :
কীট-পতঙ্গ বিতাড়ক দ্রব্যের ব্যবহার
মশারির ভিতর ঘুমোনো
বাইরে বেরোনোর সময় ফুল হাতা জামা ও লম্বা পাজামা পরে বেরোনো ও পোশাকে ডি ই ই টি-সমৃদ্ধ মশা তাড়ানোর তরল ছড়িয়ে নেওয়া, বিশেষত: চিকুনগুনিয়া আক্রান্ত জায়গায় যাওয়ার আগে।
মশার বংশ-বিস্তার কমাতে পানির পাত্র ঢাকা দিয়ে রাখা ।
লেখিকা : সহযোগী অধ্যাপিকা, ঢাকা ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ।
চেম্বার : দি বেস্ট কেয়ার হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ২০৯/২, এলিফ্যান্ট রোড, ঢাকা।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*