হত্যার অভিযোগে পরিবারের মামলা-কাটাছরায় দাফনের ১ বছর পর কবর থেকে তরুণীর লাশ উত্তোলন


নিজস্ব প্রতিনিধি

মিরসরাইয়ে দাফনের এক বছর পর আদালতের নির্দেশে কবর থেকে এক তরুণীর লাশ উত্তোলন করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। বৃহস্পতিবার (২৮ নভেম্বর) দুপুরে উপজেলার ৭ নং কাটাছড়া ইউনিয়নের তেতৈয়া এলাকার পারিবারিক কবরস্থান থেকে কলি আকতার (১৮) লাশ উত্তোলন করা হয়। কলি তেতৈয়া এলাকার সিএনজি-অটোরিক্সা চালক সিরাজুল ইসলামের মেয়ে। এসময় চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সহকারি কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নূরজাহান আক্তার উপস্থিত ছিলেন।
জানা গেছে, গত বছরের ডিসেম্বর মাসে এক বছর আগে পারিবারিক ভাবে কলির বিয়ের দিন ঠিক হয়েছিলো। বিষয়টি জেনে কলির উপর ক্ষিপ্ত হয় একই এলাকার মৃত জালাল আহম্মদের ছেলে মো: আবছার (৪০)। আবছার কলিকে বিয়ে করতে চেয়ে কয়েকবার কলির বিয়ে ভেঙ্গে দেয়। গত বছরের ১১ ডিসেম্বর সকাল ১১টায় বাড়িতে মা-বাবা না থাকার সুযোগে কলিকে অপহরণের চেষ্টা করে আবছার। এসময় করি আত্মচিৎকার শুরু করলে তাঁকে বাড়ির পাশের পুকুর পাড়ে একটি গাছের সাথে ঝুলিয়ে হত্যার চেষ্টা করা হয়। গুরতর আহত অবস্থায় তাঁকে স্থানীয় একটি হাসপাতারে নিয়ে গেলে সেখানে তাঁর মৃত্যু হয়। এই ঘটনায় তখন থানায় অভিযোগ বা কোন মামলা না হওয়ায় ময়না তদন্ত ছাড়াই কলির লাশ কবরস্থ করা হয়। পরবর্তীতে চলতি বছরের গত ২৯ আগস্ট চট্টগ্রাম চীফ জুড়িসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে কলির মা ফিরোজা বেগম বাদী হয়ে মোঃ আবছার ও তার সহযোগী রুবেলকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। সেই মামলার তদন্তে দীর্ঘ এক বছর পর কবর থেকে কলির লাশ উত্তোলন করে পিবিআই।
কলি আক্তারের মা ফিরোজা বেগম বলেন, আসামীদের হুমকির কারণে তখন মামলা করার সাহস পাইনি। এখন মামলা করেছি। আমার মেয়ের হত্যাকারিদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি চাই।
মামরার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন চট্টগ্রাম কার্যালয়ের উপ-পরিদর্শক মো. কামাল আব্বাস বলেন, গত ২৪ সেপ্টেম্বর আদালত থেকে আমরা এই মামলার তদন্তভার পেয়েছি। তদন্তে অনেকটুকু এগিয়েছি। ময়না তদন্তের জন্য আদালতের অনুমতিক্রমে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটের উপস্থিতিতে আমরা কলি আক্তারের লাশ কবর থেকে উত্তোলন করেছি। ময়না তদন্ত রিপোর্ট ফেলে হত্যার সঠিক কারণ জানা যাবে।

Share

About admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*