মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি : এক অকুতোভয় যোদ্ধার আত্মত্যাগের কাহিনী

ড. আনোয়ারউল্লাহ চৌধুরী…

১৯৭১ সালের মার্চ মাসে সশস্ত্র সংগ্রামের মাধ্যমে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয় এবং ওই বছরের ১৬ ডিসেম্বর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর পরাজয় এবং আত্মসমর্পণের মাধ্যমে আমরা চূড়ান্ত বিজয় অর্জন করি; প্রতিষ্ঠা করি প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশ। মুক্তিযুদ্ধ কোনো আকস্মিক ঘটনা ছিল না। এর ছিল এক সুদীর্ঘ প্রস্তুতিকাল। এর পটভূমি ছিল দ্বান্দ্বিক, রক্তাক্ত ও সংঘর্ষময়। এই প্রস্তুতিকালেই আমার কৈশোর অতিবাহিত হয় এবং আমি যৌবনে প্রবেশ করি। যারা আমার সমসাময়িক তাদেরও জন্ম দ্বিতীয় মহাযুদ্ধের সময়। অতএব পাকিস্তান রাষ্ট্রের জন্মের সময় ছিল আমার শৈশবকাল। যৌবনে পা বাড়ানোর সাথে সাথে আমরা যেন প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম এক প্রতীক্ষিত দীর্ঘ সংগ্রামের- যে সংগ্রামের যৌক্তিক পরিণতিতে আমরা পাই আমাদের স্বাধীনতা। সৃষ্টি হয় স্বাধীন, সার্বভৌম বাংলাদেশ।
মুক্তিযুদ্ধের অনেক ঘটনাবলি আজো স্মৃতিতে অম্লান হয়ে আছে। প্রায়ই এসব স্মৃতি ভেসে ওঠে। বস্তুতপক্ষে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ এক বিশাল উপাখ্যান আর এ উপাখ্যান তৈরি হয়েছে অসংখ্য ছোট বড় অশ্রুমাখা ও রক্তমাখা ঘটনাবলি নিয়ে। এগুলো আমাদের মুক্তিযুদ্ধকে করেছে গৌরবময় ও মহিমান্বিত। এখানে একটি মহান রক্তমাখা কাহিনীর কথা বলব, যার সঙ্গে রয়েছে ব্যক্তিগত সংশ্লিষ্টতা। মুক্তিযুদ্ধের শুরু থেকেই আমাদের জীবন বিপন্ন হয়ে পড়ে। জীবন রক্ষার্থে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ত্যাগ করে কখনো ফেনী শহরের বাড়ি, কখনোবা ফেনীর গ্রামের বাড়িতে আশ্রয় নেই। গ্রামে মুক্তিবাহিনী সংগঠিত করার কারণে আমাদের বেঁচে থাকার সম্ভাবনা আরো ক্ষীণ হয়ে উঠে। এমতাবস্থায় চৌদ্দগ্রাম সীমান্তবর্তী এক আত্মীয়ের বাড়িতে আশ্রয় গ্রহণ করি এবং অবশেষে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে প্রথমে আগরতলা ও পরে কলকাতায় গমন করি। কলকাতায় ইতোমধ্যে গঠিত হয়েছে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ সহায়ক সমিতি। এ সমিতি বাংলাদেশ থেকে আগত বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে। কলকাতার শরণার্থী জীবনের অসংখ্য ঘটনাবলির মধ্যে আজ সালাহউদ্দিনের বীর ও আত্মত্যাগের কাহিনীটি স্মরণ করতে চাই।
কলকাতায় পৌঁছার কিছু দিন পর সম্ভবত থিয়েটার রোড়ের বাংলাদেশ সচিবালয় অথবা অন্য কোথাও ক্যাপ্টেন সালাহউদ্দিন মমতাজের মুক্তিযুদ্ধে জীবন উৎসর্গের কথা শুনতে পাই। শুনতে পেলাম, ক্যাপ্টেন সালাহউদ্দিন পশ্চিম পাকিস্তন থেকে পালিয়ে এসে মুক্তিবাহিনীতে যোগদেন এবং মেজর জিয়াউর রহমান (পরে মেজর জেনারেল ও রাষ্ট্রপতি) যে সেক্টরের কমান্ডার ছিলেন, সেই সেক্টরে বীরত্বের সাথে যুদ্ধ করে প্রাণ বিসর্জন দিয়েছেন। নানাজনকে জিজ্ঞাসা করে আরো জানতে পারলাম যে ক্যাপ্টেন সালাহউদ্দিন ‘জেড ফোর্সে’ যোগ দিয়েছিলেন এবং সম্ভবত জুলাই মাসে কামালপুর নামক স্থানে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে সম্মুখ সমরে অবতীর্ণ হন এবং শহীদ হন। তার এই বীরত্বের কথা ধীরে ধীরে ছড়িয়ে পড়ে। ক্যাপ্টেন সালাহউদ্দিন মমতাজের মৃত্যুর কথা শুনে আমার মধ্যে যে প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছিল সে কথা ভাষায় বর্ণনা করা সম্ভব নয়। সেদিন আনন্দ-বেদনায় অশ্রুসিক্ত হয়ে ফিরেছিলাম যুদ্ধকালীন আস্তানায়। মানসপটে ভেসে উঠল সালাহউদ্দীনের অনেক অনেক স্মৃতি
সালাহউদ্দিন মমতাজ ছিল ফেনী হাইস্কুলে আমার সহপাঠী। আমরা দু’জনই ফেনী হাইস্কুলে ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণী পর্যন্ত একইসাথে পড়াশোনা করি এবং একই সালে পাশ করি প্রবেশিকা পরীক্ষা। এরপর ফেনী কলেজেও কিছুদিন আমরা একসাথে পড়াশোনা করি। স্কুলজীবনে বন্ধুদের সাঙ্গে বন্ধুত্ব হয় অত্যন্ত গভীর ও অকৃত্রিম। সালাহউদ্দিন আর আমি অন্যান্য বন্ধুর সাথে কতশতবার যে, একই ক্লাসে বসেছি, একই বেঞ্চে বসেছি, একই শিক্ষকের কাছে পড়েছি, একই সাথে পরীক্ষা দিয়েছি, একই সাথে খেলার মাঠে খেলেছি! কতদিন বাদাম কিনে ভাগ করে খেয়েছি, কমলা কিনে ভাগ করে খেয়েছি! অবসর সময়ে কতই না একসাথে বসে আড্ডা দিয়েছি! পুরনো দিনের স্মৃতি রোমন্থন করতে করতে সারাদিন কাটিয়ে দিলাম। কিন্তু ওই যুদ্ধের বিস্তারিত জানার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে রইলাম।
আমি যখন ১৯৬৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক তখন সালাহউদ্দিন কমিশন লাভ করে চলে যায় পশ্চিম পাকিস্তানে। ১৯৬৯-৭০ সালের দিকে সালাহউদ্দিন যখন পশ্চিম পাকিস্তান থেকে ছুটিতে আসে, তখন আমার সাথে দুই-একদিন অতিবাহিত করে। আমি তখন সূর্যসেন হলের কোণায় শিক্ষকদের পাঁচ তলার ফ্ল্যাটটিতে থাকি। আমাকে পেয়ে সে যেমন উল্লসিত ছিল, আমিও পুরনো বন্ধুকে পেয়ে অত্যন্ত আনন্দের সাথে এই দুই-একটি দিন কাটিয়ে ছিলাম। সালাহউদ্দিন তখন আমার রাজনৈতিক চিন্তাচেতনার সাথে কিছুটা পরিচিত হয়েছিল। আমার এই রাজনৈতিক চিন্তাচেতনার প্রতি পূর্বে তার তেমন সমর্থন না থাকলেও এবার কিন্তু সে আমাকে বলতে থাকে যে, তোমরা এতদিন যেসব কথা বলেছ এগুলো সঠিক। অর্থাৎ পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের মধ্যে যে বৈষম্য বিরাজ করছিল আমি দেখতে পেলাম সালাহউদ্দিন সে ব্যাপারে সজাগ রয়েছে। শুধু তা-ই নয় আমার চিন্তাচেতনার সাথে সেদিন সে এতটাই একাত্মতা বোধ করেছিল যে সেদিন আমাকে অত্যন্ত গোপনে বলেছিল তোমরা যে বলেছিলে পাকিস্তান একটি রাষ্ট্র হিসেবে থাকতে পারে না এবং পূর্ব পাকিস্তান যে একটি আলাদা জাতি ও রাষ্ট্র হতে পারে এর সাথে আমি সম্পূর্ণ একমত। বিশেষ করে পূর্ব বাংলার সেনাসদস্যদের প্রতি যে বৈষম্যমূলক আচরণ করা হতো এতে সালাহউদ্দিন খুবই ক্ষুব্ধ ছিল।
ছুটি কাটিয়ে চলে যাওয়ার সময় আবার সে কিছুক্ষণের জন্য আমার সাথে দেখা করতে আসে। দুই বন্ধু একান্তে বসে আলোচনা করেছিলাম যে পাকিস্তান একটি রাষ্ট্র থাকতে পারে না এবং পূর্ব বাংলায় একটি নতুন স্বাধীন রাষ্ট্র গঠন করার লক্ষ্যই হবে আমাদের চূড়ান্ত লক্ষ্য। সালাহউদ্দিন আরো বলল, এসব কথা বেশি বলাবলি করলে বিপদ হবে। গোপনে কাজ করে যাও। এই বিশ্বাস ও উপলব্ধি নিয়ে সালাহউদ্দিন পুনরায় পশ্চিম পাকিস্তানে গমন করে। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ শুরু হওয়ার পর সম্ভবত মে-জুন মাসের দিকে সালাহউদ্দিন পশ্চিম পাকিস্তান থেকে পালিয়ে এসে সীমান্ত অতিক্রম করে ভারতে প্রবেশ করে এবং কামালপুরের যুদ্ধে মাতৃভূমির স্বাধীনতার জন্য জীবন উৎসর্গ করে। তার বীরত্বের জন্য আমি গর্বিত এবং আনন্দ অনুভব করি। কিন্তু তাকে হারানোর বেদনা আমার মনে চিরস্থায়ী হয়ে আছে। সালাহউদ্দিন যুদ্ধে কিভাবে প্রাণ বিসর্জন দিলোÑ এর বিস্তারিত জানার জন্য আমি অত্যন্ত উদগ্রীব ছিলাম। তার বীরত্বের সাথে যুদ্ধ করার কথা এবং শক্রর গোলায় নিহত হওয়ার কথা কিছু কিছু তখন শুনতে পেলেও, পরে মেজর রফিকুল ইসলামের গ্রন্থ পাঠ করে আমি এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারি। এখানে সালাহউদ্দিনের বীরত্বগাথা তুলে ধরতে চাই। তাই মেজর রফিকের গ্রন্থের সাহায্য নিলাম। কামালপুরের যুদ্ধের বর্ণনা আমার প্রিয় ছাত্র প্রয়াত মেজর রফিকুল ইসলাম, পিএসসির ‘একাত্তরের বিশটি ভয়াবহ যুদ্ধ’ নামক গ্রন্থে যেভাবে বর্ণিত হয়েছে, তা নিচে উল্লেখ করা হলো :
একাত্তরের স্বাধীনতা যুদ্ধে বাংলাদেশ বাহিনীর প্রথম নিয়মিত ব্রিগেড জেড ফোর্স ৭ জুলাই ১৯৭১ গঠিত হয়। মেজর জিয়াউর রহমান (পরে লে. জেনারেল ও মরহুম রাষ্ট্রপতি) এই নবগঠিত ব্রিগেডের অধিনায়ক নিযুক্ত হন এবং তার নামের ইংরেজি প্রথম অক্ষর দিয়ে এই ব্রিগেডের নামকরণ করা হয় ‘জেড ফোর্স’। প্রথম ইস্ট বেংঙ্গল, তৃতীয় ইস্ট বেঙ্গল এবং অষ্টম ইস্ট বেঙ্গল এই ব্রিগেডের অন্তর্ভুক্ত হয়। মেজর মইনুল হোসেন চৌধুরী, মেজর জিয়াউদ্দিন (পাকিস্তান থেকে এসে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন), ক্যাপ্টেন বজলুল গনি পাটোয়ারী, ফ্লা. লে. লিয়াকত আলী খান, ক্যাপ্টেন মাহবুব, ক্যাপ্টেন আব্দুল হাফিজ, ক্যাপ্টেন আব্দুল কাইয়ুম চৌধুরী, মেজর সাফায়াত জামিল, ক্যাপ্টেন মহসিন, ক্যাপ্টেন আনোয়ার হোসেন, ক্যাপ্টেন আকবর হোসেন, লে. নুরুন্নবী চৌধুরী, ক্যাপ্টেন সাদেক হোসেন, লে. আনিসুর রহমান, লে. এমদাদুল হক, লে. ওয়াকার হাসান, লে. মোদাসের হোসেন, লে. মাহবুবুর রহমান, লে. মুনিবর রহমান, লে. ওয়ালিউল ইসলাম ও লে. বাকের ‘জেড ফোর্সের’ অধীনে যুদ্ধ পরিচালনা করেন।
জামালপুর-ময়মনসিংহ-ঢাকা মহাসড়কের প্রবেশপথ কামালপুর বিওপিতে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর শক্তিশালী ঘাঁটি ছিল। বাঙ্কারগুলোর দেয়াল পর্যায়ক্রমে মাটি, টিন, লোহার বিম ও সিমেন্ট দিয়ে সুদৃঢ় করা হয়েছিল। প্রতিটি বাংকারের ছাদগুলো অনুরুপভাবে সুদৃঢ়ভাবে নির্মিত হয়েছিল। টানেল তৈরি করে সমস্ত প্রতিরক্ষাব্যুহের বাংকারের মধ্যে যাতায়াত করার ব্যবস্থা ছিল। পাকিস্তানিরা বুবি ট্রাপ, বাঁশের কঞ্চি ও প্রতিরক্ষা ব্যুহের সম্মুখে মাইন ফিল্ড দিয়ে সম্পূর্ণ এলাকাকে দুর্ভেদ্য দুর্গের মতো তৈরি করেছিল।
ক্যাপ্টেন সালাহউদ্দিন মমতাজ ও লে. মান্নানকে কামালপুর পাকিস্তানি অবস্থান রেকি করার দায়িত্ব দেয়া হয়। ক্যাপ্টেন সালাহউদ্দিন ও লে. মান্নান রেকি করার সময় দুইজন পাকিস্তানি সেনার সম্মুখে পড়ে যায়। একজন পাকিস্তানি সেনার সাথে সালাহউদ্দিনের ধস্তাধস্তি শুরু হয়। লে. মান্নান একটি গাছের নিচে অবস্থান নিলেন। সুবেদার হাই রাইফেলের বাঁট দিয়ে আঘাত করে পাক সেনার রাইফেল কেড়ে নিলেন। নায়েক শফি পলায়নপর পাকসেনাকে লক্ষ্য করে গুলি বর্ষণ করল। পাকসেনার বাংকার থেকেও গুলি বর্ষিত হলো। সুবেদার হাই শত্রুর অবস্থান লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করতে করতে ক্যাপ্টেন সালাহউদ্দিনের দিকে অগ্রসর হল। হাইও সালাহউদ্দিনের বুকের উপরে চড়ে থাকা পাকসেনাকে স্টেনগান দিয়ে আঘাত করলে পাকসেনা তার রাইফেল ফেলেই পালিয়ে যায়। তারপরে সালাহউদ্দিন ও মান্নান শত্রুর কাছ থেকে ছিনিয়ে নেয়া রাইফেল দু’টিসহ অন্যদের নিয়ে নিজ অবস্থানে ফিরে আসেন। ক্যাপ্টেন সালাহউদ্দিন এভাবেই অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে গেলেন।
কামালপুর যুদ্ধের বর্ণনা দিতে গিয়ে ব্রিগেডিয়ার আমিন আহমেদ চৌধুরী লিখেছেন : ৩০-৩১ জুলাই প্রথম ইস্ট বেঙ্গল (সিনিয়র টাইগার) রাতের আঁধারে রওনা হলো। প্রথমে সালাহউদ্দিনের ডেল্টা কোম্পানি, ফলোআপ কোম্পানি হলো ক্যাপ্টেন হাফিজের ব্রেভো, যার পেছনে হলো ব্যাটালিয়ন ‘আর’ গ্রুপ এবং এই ’আর’ গ্রুপ ছিলেন মেজর (পরে মেজর জেনারেল) মঈন এবং সাথে ছিলেন কর্নেল জিয়াউর রহমান।
সম্ভবত ব্রিগেডের প্রথম অ্যাটাক সরেজমিনে তদারক করার জন্য কর্নেল জিয়া নিজেও অ্যাটাকিং ট্রুপসের সাথে রওনা হন। আক্রমণের এইচ আওয়ার ছিল ৩০-৩১ জুলাই এর রাত ৩-৩০ মি.। কিন্তু গাইডের অভাবে প্রথম বেঙ্গল এফইউপিতে (ঋড়ৎসরহম ঁঢ় ঢ়ষধপব) সময়মতো পৌঁছতে পারেনি। ফলে ৩-৫০ মি. সময়ে প্রোগ্রাম অনুযায়ী আমাদের নিজস্ব আর্টিলারি ফায়ার যখন শুরু হয় (ফায়ারের সঙ্কেত ধ্বনি ছিল হিপ করে ওয়ারলেসের ওপর শব্দ করা), তখনো আমাদের ছেলেরা এফইউপিতে পৌঁছানার জন্য প্রাণপণ দৌঁড়াচ্ছে। কাদামাটিতে এতগুলো লোকের এই দৌঁড়াদৌঁড়ির ফলে যথেষ্ট শব্দ হয়, তাতে করে দুশমনের পক্ষে আক্রমণের দিক নির্ধারণ করা একেবারে সহজ হয়। এবং নিমিষের মধ্যে তাদের আর্টিলারি ফায়ার এসে পড়তে থাকে। এ দিকে প্লাটুন পর্যায়ে ডেপথ (টু আপ) হওয়ার ফলে আগে পিছে হয়ে যায়, ফলে কমান্ড ও কন্ট্রোল কায়েম করা ভয়ানক মুশকিল হয়ে পড়ে। অন্যদিকে এসেম্বলি এরিয়া থেকে নির্ধারিত এফইউপিতে আসার মাঝ পথে আমাদের নিজস্ব আর্টিলারি ফায়ার শুরু হওয়াতে প্রথম ইষ্ট বেঙ্গল তৎক্ষণাৎ সে অবস্থাতেই কোনোক্রমে ফর্মআপ হতে থাকে। ফলে সে কি চিৎকার আর হট্টগোল, আবার ডাইরেকশনের অভাবে অ্যাডভ্যান্স করাকালীন একে অন্যের ওপর চড়ে বসে। আর অপেক্ষকৃত নিচু কর্দমাক্ত জমির ওপর আসার সাথে সাথে পাকিস্তানি ও আমাদের যুগ্ম আর্টিলারির ক্রস ফায়ারিংয়ের নিচে আসার ফলে আমাদের বেশ কিছু ছেলে হতাহত হয়ে পড়ে। অন্য দিকে ওয়্যারলেস সেট জ্যাম হওয়াতে সংযোগ সম্পূর্ণরূপে বিচ্ছিন্ন হয়, তাতে বিশৃঙ্খলা চরমে পৌঁছায়। এ অবস্থায় প্রথম ইষ্ট বেঙ্গলের পক্ষে আক্রমণের বুহ্য রচনা করা আদৌ সম্ভব ছিল না। বরং সৈন্য দলের পক্ষে পালিয়ে আসাটাই অত্যন্ত স্বাভাবিক ছিল। কারণ অ্যাটাকিং ট্রুপস যদি ঠিকমত ফর্ম আপ না হতে পারে তবে তাদের পক্ষে আক্রমণ করার প্রশ্নই ওঠে না। মেজর (বর্তমানে মেজর জেনারেল) মইন অয়্যারলেস ছেড়ে গলা ফাটিয়ে চিৎকার করছিলেন। আর ক্যাপ্টেন সালাহউদ্দিন ও হাফিজ একপ্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে ছুটে বেড়াচ্ছেন। সে এক অদ্ভুত দৃশ্য… চরম বিশৃঙ্খলার মাঝে শুধু মনের জোর ও অদম্য সাহসে বলীয়ান হয়ে সালাহউদ্দিন ও হাফিজ সর্বপ্রকার প্রতিবন্ধকতা ও প্রতিকূলতা অতিক্রম করে নিজ নিজ কোম্পানিকে অভীষ্ঠ লক্ষ্যে উপনীত করতে সক্ষম হন এবং নিঃসন্দেহে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে উল্লেখযোগ্য আক্রমণ সূচারুরূপে সম্পন্ন করেন।
মুক্তিবাহিনীর প্রচণ্ড আক্রমণের মুখে পাক সেনারা তাদের প্রথম সারির প্রতিরক্ষা অবস্থান ছেড়ে পেছনে সরে যায়। মুক্তিবাহিনীর সাহসী সৈনিকরা শত্রুর বাংকার অতিক্রম করে কমিউনিটি সেন্টারে ঢুকে পড়ে এবং হাতাহাতি যুদ্ধ শুরু হয়। সুবেদার হাই এর নেতৃত্বে যে প্লাটুনটি যুদ্ধ করছিল তারা মাইন ফিল্ডের সামনে পড়ে যায়। এই প্লাটুনের ডানে ছিলেন ক্যাপ্টেন সালাহউদ্দিন ও তার সহযোগীরা। পাক সেনারা তখন পাল্টা আক্রমণের জন্য তৈরি হচ্ছে। সালাহউদ্দিন সুবেদার হাইকে ডানে যেতে নির্দেশ দিলেন। নায়েক হাইয়ের হাত বোমার আঘাতে উড়ে গেল। সালাহউদ্দিন তখন পলায়নপর পাক সেনাদের পেছনে ধাবমান। এই সময় শত্রু বোমা সালাহউদ্দিনের ঠিক সামনে এসে পড়ে এবং সালাহউদ্দিন শহীদ হন।’
জানা যায় যে এ যুদ্ধে ক্যাপ্টেন হাফিজও নিশ্চিত মৃত্যুর হাত থেকে বেঁচে যান। রাতভর যুদ্ধের পর সকাল সাড়ে ৭টায় মুক্তিবাহিনী পেছনে সরে আসে। কামালপুরের এই ভয়াবহ যুদ্ধে মুক্তিবাহিনীর একজন অফিসার ও ৩০ জন সৈনিক নিহত এবং ২ জন অফিসার ও ৬৬ জন সৈনিক আহত হয়। পাক সেনাদের তিন ট্রাক মৃতদেহ সরিয়ে ফেলতে আশপাশের গ্রামবাসীরা দেখেছে।
কামালপুরের যুদ্ধে মেজর হাফিজ তার ডায়রিতে সালাহউদ্দিন সম্পর্কে যা লিখেছেন, তা নি¤œরূপ:
৩১ জুলাই ১৯৭১ আজ ভোর সাড়ে ৩টায় কামালপুরে বিওপির ওপর মেজর মঈনের নেতৃত্বে আমরা কোম্পানি নিয়ে আক্রমণ করলাম। আমিই কোম্পানি ও ক্যাপ্টেন সালাহউদ্দিন ওই কোম্পানি নিয়ে প্রচণ্ড হামলা চালালাম। মাত্র চল্লিশ গজের ব্যবধান ছিল আমাদের এবং শত্রুপক্ষের প্রধান ঘাঁটির মধ্যে। ক্যাপ্টন সালাহউদ্দিন, আমার প্রিয় বন্ধু বীরত্ব ও সাহসিকতার এক অভূতপূর্ব দৃষ্টান্ত স্থাপন করে শত্রুর মর্টারের শেলের আঘাতে শহীদ হলেন। আমার নিজের শরীরে ছয় জায়গায় মর্টারের গোলার টুকরার আঘাত লাগে। আমাকে তুরা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলো। লে. মান্নানের ডান ঊরূতে গুলি লাগায় সে-ও হাসপাতালে ভর্তি হলো। আমার প্রিয় ড্রাইভার সিরাজও শহীদ হলো। শত্রুপক্ষের চল্লিশজন নিহত হয়। সালাহউদ্দিনের পবিত্র করআন শরিফ খানা আমার কাছে রয়ে গেল। ওর কথা মনে হলেই আর চোখের পানি রাখতে পারি না, মনে হয় ও মরেনি। আবার হাসতে হাসতে ফিরে আসবে আমাদের মাঝে। দু’বার ও মৃত্যুর হাত থেকে ফিরে এসেছিল। বুঝলাম, ওর মতো দুঃসাহসী সৈনিকের পক্ষে বাঁচা সম্ভব নয়, ছিল না। ঐব ধিং ঃড়ড় নৎধাব ঃড় ষরাব। আমাদের কমান্ডার মেজর জিয়াউর রহমান প্রস্তাব করলেন, সালাহউদ্দিনের নামানুসারে আমাদের পল্টনের নামকরণ করার জন্য। ওকে সর্বোচ্চ সাহসিকতার পুরস্কারের জন্য ৎবপড়সসবহফ করা হবে। এই হলো মাতৃভূমির স্বাধীনতার জন্য সালাহউদ্দিনের আত্মত্যাগের কাহিনী।
১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ স্বাধীনতা লাভ করে এবং আমরা জানুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহে বাংলাদেশে ফিরে আসি। বাংলাদেশে আসার কয়েকদিন পর গেলাম ফেনী শহরের অদূরেই আমার বন্ধু ক্যাপ্টেন সালাহউদ্দিন মমতাজের বাড়িতে। তার পাগলপ্রায় মাতার আহাজারি আশপাশের সবাইকেই করেছে ভারাক্রান্ত। সে দৃশ্য অবর্ণনীয়। তিনি তখনো নিশ্চিত যে, তার ছেলে বেঁচে আছেন এবং কিছুদিনের মধ্যেই ছেলে আবার মায়ের কাছে ফিরে আসবে। তার বিশ্বাস সালাহউদ্দিন নিহত হয়নি, এ মিথ্যা প্রচারণা। তিনি অবশ্যই ফিরে আসবেন। নির্বাক হয়ে শুনছিলাম তার কথা। কোনো কথা বলা বা তাকে কোনো প্রকার সান্ত্বনা দেয়ার ব্যর্থ চেষ্টা আমি করিনি। মনে মনে বলছিলাম, ‘একমাত্র সময়ই আপনাকে সব কথা বলে দেবে এবং শুধু সময়েরই পরিপ্রেক্ষিতে আপনার ব্যথা বেদনার কিছুটা উপশম হতে পারে। নিঃসন্দেহে আপনি একজন বীরপ্রসবিনী ও গর্বিত মা।’ মুক্তিযুদ্ধের আরো অনেক স্মৃতি আজো আমার মানসপট থেকে বিদূরিত হয়নি এবং কোনো দিন হবে না।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*