রোহিঙ্গাদের ঘরে ঘরে বিধবা ও এতিম শিশু


আবু সালেহ আকন

রোহিঙ্গাদের ঘরে ঘরে বিধবা নারী ও এতিম শিশু। এসব নারীর স্বামীদের হত্যা করা হয়েছে মিয়ানমারের আরাকান রাজ্যের মংডু, বুচিডং, রাসিডং ও আকিয়াবসহ বিভিন্ন এলাকায়। মিয়ানমারের সেনাবাহিনী এবং নাডালা বাহিনীর সদস্যরা এসব মানুষকে নির্বিচারে হত্যা করেছে। তাদের অত্যাচার ও নির্যাতন থেকে রেহাই পেতে যারা বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছেন তাদের কাছ থেকে এ তথ্য জানা গেছে। এমনও শিশু রয়েছে যাদের বাবা-মা দু’জনকেই হত্যা করা হয়েছে। আবার এমন পরিবার রয়েছে যেখানে কোনো পুরুষ সদস্য নেই। তাদের হত্যা করা হয়েছে, অথবা ধরে নেয়া হয়েছে। এমনও সন্তান রয়েছে যারা বাবাকে দেখার আগেই এতিম হয়েছে।
টেকনাফের লম্বাবিলের প্রধান সড়ক থেকে মিয়ানমার সীমান্ত প্রায় দুই কিলোমিটার। মাছের ঘেরের বেড়িবাঁধ দিয়ে হেঁটে সীমান্তে পৌঁছতে হয়। গত ১৫ সেপ্টেম্বর ওই পথ দিয়ে সীমান্তে যাওয়ার সময় হাত ধরাধরি করে দু’টি শিশু এগিয়ে আসছিল লম্বাবিল প্রধান সড়কের দিকে। কোথায় গিয়েছিলে জানতে চাইলে তারা সীমান্তের দিকে আঙুল উঁচিয়ে দেখায়। বাড়ির কথা জিজ্ঞেস করতেই বলে ‘বর্মা’। বর্মার কোন জায়গায় জানতে চাইলে শিশু দু’টির উত্তার ‘ কোরহালি’।
শিশু দু’টির নাম ফারুক (৮) ও আবদুল্লাহ (৫)। তাদের বাড়ি মিয়ানমারের মংডুর কুমারখালী এলাকায়। তাদের বাবা নুরুল আলম কৃষিকাজ করতেন। মা ফরিদা বেগম ছিলেন গৃহিণী। তিনি তার স্বামীকে কৃষিকাজে মাঝে মধ্যে সহায়তা করতেন। শিশু দু’টি জানায়, দুর্বৃত্তরা তাদের চোখের সামনেই বাবা-মাকে কেটে হত্যা করে লাশ দু’টি পাশের একটি কূপে ফেলে দেয়। ওখানে আরো অন্তত ৩০টি লাশ তারা ফেলতে দেখেছে।
এই এলাকায় বর্মি সেনা ও নাডালা বাহিনী যখন হত্যাকাণ্ড চালায় তখন অনেকেই দৌড়ে পাশের ঝোপজঙ্গলে আশ্রয় নেন। ফারুক ও আবদুল্লাহও তাদের সাথে গিয়ে ঝোপের ভেতরে পালায়। পরে বর্মি বাহিনী ও মগরা চলে গেলে তারা প্রতিবেশীদের সাথে চলে আসে বাংলাদেশে। লম্বাবিল হয়ে তারা ১১ সেপ্টেম্বর এপারে আসে। এরপর প্রতিদিনই তারা দুই ভাই সীমান্ত এলাকায় যায়। যে দিক থেকে তারা এসেছে সেই পথের দিকে তাকিয়ে থাকে। তাদের চোখের সামনেই বাবা-মাকে হত্যা করা হলেও এখনো তারা বিশ্বাস করে তাদের বাবা-মা ওই পথ ধরেই চলে আসবে তাদের কাছে। তারা জানায়, তাদের এক ভাই এবং ভাবী রয়েছে। তারা কোথায় কী অবস্থায় আছে কেউ জানে না। এসব কথা বলতে বলতে শিশু দু’টি এক পর্যায়ে কেঁদে ফেলে। অবুঝ এই দুই শিশুর কান্না দেখে সেখানে উপস্থিত অন্যরাও কেঁদে ফেলেন।
লম্বাবিলের পাশের রাস্তায় দুই শিশুকে নিয়ে ঘুরছিলেন বৃদ্ধা জোহরা বেগম। তার কোলের শিশুটির নাম তফসিরাতা (১ বছর), আর হাতে ধরে আছেন আয়াতুল্লাহকে (২)। জোহরা ওই শিশু দু’টির নানী। শিশু দু’টিকে কোলে নিয়ে রাস্তায় নেমেছেন তাদের খাবার জোগাড় করতে। হাত পাতছিলেন মানুষের কাছে। শিশু দু’টির বাবা রহিমুল্লাহ কৃষিকাজ করতেন। তাদের মায়ের নাম হাজেরা। বর্মি বাহিনী শিশু দু’টির বাবা-মা দু’জনকেই হত্যা করেছে। জোহরা বলেন, দুই শিশুকে নিয়ে তিনি এখন কী করবেন বুঝতে পারছেন না।
জোহরা বলেন, ২৫ আগস্ট তাদের বাড়িতে হানা দেয় সেনা ও নাডালা বাহিনী। তারা রহিমুল্লাহ ও তার স্ত্রী হাজেরাকে কেটে হত্যা করে। তাদের বাড়ি মংডুর হাইছ সুরতা এলাকায়। মেয়েজামাতাকে হত্যার পরে প্রতিবেশীদের সাথে সাগর পথে দুই নাতি-নাতনীকে নিয়ে বাংলাদেশের উদ্দেশে পাড়ি জমান জোহরা। ১৩ মে তারা শাহপরীর দ্বীপ হয়ে টেকনাফ প্রবেশ করেন।
মংডুর পুরুংপাড়ার আনোয়ার সাদির বয়স দুই বছর। মা ফাতেমা বেগম আনোয়ার সাদীকে নিয়ে লম্বাবিল এলাকার রাস্তায় দাঁড়িয়েছেন সাহায্যের আশায়। তিনি বলেন, তার স্বামী মো: হোসেনকে বর্মি বাহিনী হত্যা করেছে। সন্তানকে নিয়ে তিনি চলে এসেছেন এপারে। আনোয়ার সাদী কিছু বুঝে ওঠার আগেই তার পিতাকে হারিয়েছে।
মংডুর কুমিরখালী থেকে মামার সঙ্গে এপারে এসেছে আরাফাত। তার পিতা কালু কৃষিকাজ করতেন। আরাফাত জানায়, তাদের এলাকায় অনেককে মেরে ফেলা হয়েছে। তার বাবা-মা বেঁচে আছেন কি না তা জানে না সে। মামার সঙ্গে সে এপারে চলে এসেছে।
গত ১৬ সেপ্টেম্বর মংডুর হাইছ সুরতার কৈইজ্যার বিলের বাসিন্দা গুল মেহেরের সঙ্গে কথা হয় শাহপরীর দ্বীপে। স্বামী নুরুজ্জামানকে বর্মি বাহিনী ও মগরা মেরে ফেলেছে। দুই যুবতী মেয়ে আয়শা ও মনোয়ারকে ধরে নিয়ে গেছে নাডালা বাহিনীর সদস্যরা। এরপর প্রতিবেশীদের সাথে তিনি এপারে চলে এসেছেন। গুল মেহের বলেন, তার চোখের সামনে তার স্বামীকে হত্যা ও দুই মেয়েকে ধরে নিয়ে যায়। তারা এখন কোথায় আছে জানে না গুলমেহের। তিনি বলেন, চোখের সামনে অনেক মানুষকে খুন হতে ও সুন্দরী যুবতীদের ধরে নিয়ে যেতে দেখেছেন। অস্ত্রের সামনে এসব দৃশ্য দেখা ছাড়া আর কিছুই করার ছিল না তার। যুবতীদের ধরে নিয়ে যাওয়ার দৃশ্য দেখেও প্রতিবাদ করতে পারেননি।
মংডু থেকে তিন সন্তান ফয়েজুল ইসলাম (৪), তারেক (৫) এবং তাসলিমাকে (৭) নিয়ে পালিয়ে এসেছেন মিনারা। আশ্রয় হয়েছে কুতুপালং স্টেশনের পাশের একটি অস্থায়ী শরণার্থী ক্যাম্পে। মিনারা বলেন, স্বামী সৈয়দ হোসেনকে তার চোখের সামনে হত্যা করা হয়। আত্মীয়স্বজন কে কোথায় আছেন তাও জানেন না। যে যেভাবে পেরেছেন পালিয়ে বেঁচেছেন।
একই কথা জানালেন ফরিদা। তিনি বলেন, তার স্বামী জামিল হোসেন ড্রাইভার ছিলেন। নিজের গাড়ি চালাতেন। বর্মি বাহিনী তাকে গুলি করে। চোখের সামনে তিনি তার স্বামীকে মরে যেতে দেখেছেন। এরপর তিন সন্তান নিয়ে তিনি আশ্রয়ের জন্য বাংলাদেশে এসেছেন। তার সন্তানরা এখন এতিম। মাত্র ২৭ বছর বয়সে তিনি বিধবা হয়ে গেলেন।
কক্সবাজারের টেকনাফ, উখিয়া ও বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি এলাকার বিভিন্ন শরণার্থী ক্যাম্পে ঘুরে দেখা যায়, প্রতি তিনজন নারীর কাছে জিজ্ঞেস করলে তার মধ্যে দু’জনই বলছেন স্বামীকে মেরে ফেলা হয়েছে। তাদের সন্তানরা এতিম হয়েছে। ফরিদা, মিনারা, সেতারা, জেসমিন, মুবিনা খাতুন, সেনোয়ারাসহ অসংখ্য নারী বলেছেন, তাদের স্বামীদের মেরে ফেলা হয়েছে। এসব নারীর কারো বয়সই ৩০ এর বেশি নয়। তাদের প্রত্যেকেরই একাধিক সন্তান রয়েছে। এই পিতৃহীন শিশুদের এখন তারা কিভাবে খাওয়াবেন-পরাবেন, মানুষ করবেন সে চিন্তায় তাদের ঘুম নেই।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*