বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্প নগর উন্নয়নে ১৭ হাজার কোটি টাকা ব্যয় করা হচ্ছে

এম মাঈন উদ্দিন

দেশের সর্ববৃহৎ অর্থনৈতিক অঞ্চল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্পনগরের উন্নয়নে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (৫ আগষ্ট) বিকেলে মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্চলে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের নির্বাহী চেয়ারম্যান (সচিব) পবন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন এসবিজি ১ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাহবুবুর রহমান রুহেল।
এসময় পবন চৌধুরী বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্প নগর উন্নয়নে ১৭ হাজার কোটি টাকা ব্যয় করা হচ্ছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্পনগর হবে স্মার্টসিটি। পণ্য আমদানি রপ্তানীর জন্য এখানে একটি সমুদ্র বন্দর নির্মাণ করা হবে। এছাড়া সোনাগাজী অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিমানবন্দর নির্মাণ করা হবে। মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্চলে ২টি শিল্প প্রতিষ্ঠান নির্মাণের কাজ শেষ হয়েছে। এগুলো যেকোন সময় প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন করবেন। ১১টি প্রতিষ্ঠানের নির্মাণ কাজ চলছে। আগামী বছর আরো ২০টির কাজ শুরু হবে।
তিনি আরো বলেন, মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্চলের জন্য নতুন করে আর কোন জমি অধিগ্রহণ করা হবে না। অধিগ্রহণকৃত জমির ৩গুন ক্ষতিপূরণ পাবেন ক্ষতিগ্রস্থরা। ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের আবাসনের জন্য বাড়ি করে দেওয়া হবে। যেসকল বর্গাচাষীর জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে তাদের বিকল্প কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা হবে। দক্ষ শ্রম শক্তি গড়ে তোলার জন্য ছেলে ও মেয়েদের আলাদা দু’টি কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান চালু করা হবে। যেখানে প্রশিক্ষণ নিয়ে তারা অর্থনৈতিক অঞ্চলের কাজে নিয়োজিত হবে।

এসবিজি ১ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাহবুবুর রহমান রুহেল বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্পনগর প্রতিষ্ঠায় মিরসরাইবাসীর অনেক ত্যাগ রয়েছে। তাই জননেত্রী শেখ হাসিনা ও মিরসরাইয়ের অভিভাবক সাবেক সফল মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের প্রতিশ্রুতি মতে এখানে চাকুরীতে মিরসরাইবাসীর অগ্রাধিকার দেয়া হয়। যারা জমি দিয়েছে তাদের জন্য জমি ও ঘর করে দেবে সরকার।ইতিমধ্যে জমি নির্ধারণ করা হয়েছে।
রুহেল আরো বলেন, যারা এই প্রকল্পে জমি দিয়েছে তাদেরকে জমি ও ঘর করে দেবে সরকার। এর ধম্যেই জমি নির্ধারণও শুরু হয়েছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্পনগর জননেত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্ন, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপির স্বপ্ন। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন হতে চলেছে। যোগ্যতা অনুসারে মিরসরাইয়ের কোন মানুষ বেকার থাকবে না।

এসময় বজার প্রকল্প পরিচালক ও যুগ্ম সচিব আবদুল্লাহ ফারু উপস্থিত ছিলেন।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগ নেতা খোরশেদ আলম আজাদ, ইছাখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল মোস্তফা, মঘাদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর হোসাইন মাস্টার, সাহেরখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুল হায়দার চৌধুরী প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*