বাহাত্তর বছরে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ

নিজস্ব প্রতিবেদক>>

আজ ২৩ জুন মঙ্গলবার। একাত্তর পেরিয়ে বাহাত্তর বছরে পা রাখছে উপমহাদেশের অন্যতম প্রাচীন রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। ১৯৪৯ সালের এই দিনে পুরান ঢাকার কে এম দাস লেন রোডের রোজ গার্ডেন প্যালেসে প্রতিষ্ঠা লাভ করে এই রাজনৈতিক দলটি। প্রতিষ্ঠার পর স্বাধিকার ও স্বাধীনতা আন্দোলনসহ স্বাধীন বাংলাদেশের সাথে আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে আছে এই দলের নাম। সুদীর্ঘ রাজনীতি এবং আন্দোলন-সংগ্রামের গৌরবের ইতিহাস ও ঐতিহ্য ধারণকারী সংগঠনটির পথপরিক্রমা এখনো চলমান। মাঝে অবশ্য বহু চড়াই-উতরাই আর বন্ধুর পথ পাড়ি দিতে হয়েছে দেশে সবচে বেশি মেয়াদে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগকে। দলটির যেমন বড় বড় সফলতা রয়েছে, তেমনি আছে ব্যর্থতাও। ফলে সফলতাগুলো কোনো কোনো সময় অনেকটাই ফিকে হয়ে যায়।
এ দিকে অন্যবার নানা জাঁকজমক আয়োজন থাকলেও করোনা মহামারীর এক প্রতিকূল পরিস্থিতিতে অনেকটাই সীমিত পরিসরে পালিত হচ্ছে এবারের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। বড় কোনো আয়োজন না করে থাকছে ভার্চুয়াল আলোচনা। পত্রপত্রিকায় বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশের পাশাপাশি বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি টেলিভিশন আজ বিশেষ অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করেছে। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো: আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।
১৯৪৯ সালের ২৩ জুন পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী রোজ গার্ডেনে ‘আওয়ামী মুসলিম লীগ’ নামে প্রতিষ্ঠিত হয় একটি রাজনৈতিক দল। প্রতিষ্ঠাকালে আওয়ামী মুসলিম লীগের সভাপতি ছিলেন মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী এবং তরুণ নেতা শামসুল হক ছিলেন প্রথম সাধারণ সম্পাদক। এ সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন কারারুদ্ধ অবস্থায়। কারাগারে থেকেও নিজ যোগ্যতা ও রাজনৈতিক প্রজ্ঞাবলে দলটির যুগ্ম সম্পাদক মনোনীত হন তিনি। পরবর্তী সময়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং পরে সভাপতি পদে নির্বাচিত হন। পরে ধর্মনিরপেক্ষতার চর্চা এবং অসাম্প্রদায়িক চেতনা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ‘মুসলিম’ শব্দটি বাদ দেয়া হয়। দলের নাম রাখা হয় ‘পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগ’। সময়ের পরিক্রমায় আওয়ামী লীগ হিসেবে পরিচিতি পায় দলটি। আওয়ামী লীগ নামের সংগঠনটি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে তিলে তিলে গড়ে ওঠা একটি প্রতিষ্ঠান। এই দলের জন্য তিনি মন্ত্রিত্ব ছেড়েছেন, তবু দলকে ছেড়ে যাননি। ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগের যে আন্দোলন শুরু, তা এখনো চলমান বৈশ্বিক মহামারী করোনা পরিস্থিতি সামলানোর চলমান লড়াইয়ের মাধ্যমে। কখনোই কুসুমাস্তীর্ণ ছিল না দলটির পথ। বারবার তারা ধ্বংস্তূপ থেকে মাথা তুলে দাঁড়িয়েছে ফিনিক্স পাখির মতো।
প্রতিষ্ঠার ৭০ বছরের ইতিহাসে বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন, ’৬৬ সালের ছয় দফা, ঊনসত্তরের গণ-অভ্যুত্থান, একাত্তরের স্বাধীনতা সংগ্রামসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগের অর্জন চোখে পড়ার মতো। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট সপরিবারে বঙ্গবন্ধু নিহত হওয়ার টানা ২১ বছর পর অনেক ত্যাগ-তিতিক্ষার বিনিময়ে ’৯৬ সালে সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ। সরকার গঠনের পরেই এই দল পার্বত্য শান্তিচুক্তি সম্পাদন করতে সক্ষম হয়। এ ছাড়াও ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়লাভ করার পর থেকে আজ অবধি শাসনভার আওয়ামী লীগের হাতেই রয়েছে। টানা তিনবার রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থাকাটা আওয়ামী লীগের একটি বড় অর্জন এবং বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি রেকর্ডও বটে। এই সময়ের মধ্যে মিয়ানমার ও ভারত থেকে সমুদ্র বিজয়, ভারতের সাথে ঐতিহাসিক ছিটমহল বিনিময় চুক্তি, পদ্মা সেতুসহ বিভিন্নœ মেগা প্রকল্পের বেশ অগ্রগতিসহ নানা সফলতা রয়েছে দলটির। তবে সফলতার পাশাপাশি কিছু বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে সুনামহানি হয়েছে আওয়ামী লীগ তথা সরকারের।
রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, ভারতের সাথে তিস্তা চুক্তির এখনো কোনো সমাধান হয়নি। দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি সাধিত হলেও গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা প্রাতিষ্ঠানিক রূপ পায়নি। মানুষের ভোট ও ভাতের অধিকারের কথা আওয়ামী লীগই বেশি বলে; কিন্তু সেই আওয়ামী লীগ সরকারে থাকাবস্থায় দেশের জনগণ ভোটবিমুখ হয়ে পড়েছেন। পাকিস্তানের শোষণ-নির্যাতন ও বৈষম্যের হাত থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে এ দেশের মানুষ জ্বলে উঠলেও ধনী-গরিবের বৈষম্য এখনো রয়ে গেছে। ধনিক শ্রেণী আরো ধনী হচ্ছে, গরিব মানুষ হচ্ছে আরো গরিব। অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বাড়লেও মানুষের জীবনযাত্রার মান সে অর্থে উন্নতি লাভ করেনি। মারামারি, হানাহানি, প্রতিহিংসার রাজনীতি, গুম-খুন, অপহরণ নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। নানা ক্ষেত্রে অনিয়ম-দুর্নীতির কথা উঠে আসছে প্রতিনিয়ত। বিচারহীনতার সংস্কৃতিতে সামাজিক অবক্ষয় বেড়েছে।
প্রধানমন্ত্রীর বাণী : প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সংগঠনের অগণিত নেতাকর্মী, সমর্থক ও শুভানুধ্যায়ীসহ দেশবাসীকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বাণীতে বলেন, বাঙালি জাতির প্রতিটি মহৎ, শুভ ও কল্যাণকর অর্জনে আওয়ামী লীগের ভূমিকা রয়েছে। আওয়ামী লীগ সরকারের নেতৃত্বে আমরা আজ আত্মমর্যাদাশীল দেশ হিসেবে বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছি।
আওয়ামী লীগ দল হিসেবেও মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে সহযোগিতা করে যাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ভবিষ্যতেও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জনগণকে সঙ্গে নিয়ে জাতির পিতার স্বপ্নের ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত, সুখী-সমৃদ্ধ, উন্নত ও আধুনিক সোনার বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করবে। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যাবে প্রিয় বাংলাদেশ।
আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের দলের গৌরবোজ্জ্বল প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী স্বাস্থ্যবিধি মেনে যথাযথ মর্যাদায় পালন করার জন্য আওয়ামী লীগ, সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের সব স্তরের নেতাকর্মী, সমর্থক ও দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*