মিরসরাইয়ে দুশ্চিন্তায় ছুটিতে আসা প্রবাসীরা, সংসারে চলছে টানাপড়েন


এম মাঈন উদ্দিন>>>

মিরসরাই উপজেলার মধ্যম ওয়াহেদপুর এলাকার সৌদী প্রবাসী রফিকুল ইসলাম রফিক ছুটিতে দেশে আসেন চলতি বছরের ১৩ জানুয়ারি। ১৮ মে ছুটি শেষে চলে যাওয়ার কথা। কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারণে বিমান চলাচল বন্ধ থাকায় ও উভয় দেশের করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়ায় যাওয়া হয়নি তাঁর। যে টাকা নিয়ে দেশে এসেছিলে তা একমাসেই খরচ হয়ে যায়। এখন পরিবার পরিজন নিয়ে অনেক কষ্টে রয়েছেন তিনি। কখন যেতে পারবেন তারও নিশ্চয়তা নেই। ফেব্রুয়ারি মাসে ছুটিতে দেশে আসেন কাতার প্রবাসী আবু সাঈদ। চলতি জুন মাসের ১৮ তারিখে ছুটি শেষে চলে যাওয়ার কথা। কিন্তু যাওয়া হচ্ছে না। গিয়েও বসে থাকতে হবে। কারণ সেখানে লকডাউনের কারণে কাজকর্ম বন্ধ। শুধু রফিক কিংবা আবু সাঈদ নয়, এভাবে দেশে ও বিদেশে সংকটে রয়েছেন মিরসরাই উপজেলার ১৬ ইউনিয়ন ও দুই পৌরসভার হাজার হাজার প্রবাসী।

করোনা পরিস্থিতিতে মিরসরাই উপজেলার প্রায় অর্ধলক্ষের বেশি প্রবাসী পরিবার এখন সংকটে। এদের কোন আয় না থাকায় চরম অর্থ কষ্টে পড়েছে প্রবাসী পরিবারগুলো। এদের মধ্যে অনেক প্রবাসী আটকা পড়েছে। যারা এখন আকাশ পানে চেয়ে আছে, কবে বিমান উড়বে আকাশে।

মার্চের প্রথম সপ্তাহে ১৫ দিনের জন্য বাড়িতে আসেন মিরসরাই পৌরসভার ৫ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মোঃ আলমগীর। কিন্তু ৩ মাস পরও যেতে পারছেনা। আলমগীর বলেন, ওমানে আমি ব্যবসা করি। ১৫ দিনের জন্য দেশে আসি। কিন্তু করোনার কারণে আটকে পড়েছি। কখন যেতে পারবো তার কোন নিশ্চয়তা নেই। ওমানে তাঁর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান যেমন বন্ধ, তেমনি দেশেও কোন কাজ নেই। ফলে চরম অর্থসংকটে পড়ে তিনি। কোনরকমে দিনাতিপাত করলেও এখন শুধু আকাশ পানে চেয়ে আছে কবে উড়াল দিবে তিনি।

সৌদী আরবে থাকা প্রবাসী আজমল হোসেন ফেসবুক মেসেঞ্জারে বলেন, গাড়ি চালাতাম আমি, কিন্তু করোনা পরিস্থিতির কারনে গত ৫ মাস ধরে গাড়ি চালানো বন্ধ। কোনো আয় নেই। বাড়িতে টাকা পাঠাতে পারছি না। কখন পাঠাতে পারব তাও জানি না। তিনি বলেন, শুধু আমার এমন দুরাবস্থা নয়, আমার পরিচিত শত শত মানুষ দেশে টাকা পাঠাতে পারছেন না।

ওমান প্রবাসী বেলায়েত হোসেন বেলাল বলেন, গত মার্চ মাস থেকে কোন কাজ নেই। বাসায় বন্দি থেকে দিন কাটছে। বাড়িতে তেমন টাকা পাঠাতে পারিনি। অনেক কষ্টে দিন যাচ্ছে। কি হবে বুঝতে পারছিনা।

দুবাই প্রবাসী মাহফুজ আলম মাসুদ বলেন, আর পারছিনা বাসায় বসে থাকতে। কাজকর্ম নেই, বেতন নেই। বাড়িতে ছেলে সন্তানদের অসুখ চিকিৎসার জন্যও টাকা পাঠাতে পারছিনা।

জানা গেছে, মিরসরাইয়ের অর্ধলাখের বেশি প্রবাসী মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে। এছাড়া ইউরোপ, আমেরিকা, জাপান, হংকংসহ নানা দেশে প্রচুর লোকজন কাজে যান। কিন্তু গত চার মাসে একজন মানুষও চাকরি নিয়ে বিশ্বের কোনো দেশে যাননি। সেখানে কাজ না থাকায় প্রবাসী ও তাদের পবিারের অনেক কষ্টে জীবন কাটছে। দেশে যারা ছুটিতে এসেছেন তারাও চরম সংকটে পড়ছেন। দারুন আর্থিক সংকটের পাশাপাশি কোন কাজ কর্মও করতে পারছেন না। কখন যেতে পারবেন তাও কোন নিশ্চয়তা নেই।

অর্থনীতিবিদ প্রফেসর ড. মইনুল ইসলাম বলেন, যাদের পাঠানো অর্থে দেশের সকল ব্যবস্থা সচল ছিল, করোনা পরিস্থিতিতে এখন তারাই সবচেয়ে বেশি অচল হয়ে পড়েছে। করোনা মোকাবিলায় লকডাউনের মুখে পড়ে প্রবাসীদের কাজ বন্ধ হয়ে গেছে। তাতে রেমিট্যান্স আসা শূণ্যের কোটায় নেমে গেছে। দেশে এসে যারা আটকা পড়েছে আকাশপথ চালু না হওয়ায় তারা ফেরত যেতে পারছে না। এতে চরম দুরাবস্থার মুখোমুখি প্রবাসী পরিবারগুলো।

তিনি বলেন, প্রবাসীরা ফেরত আসার প্রভাব দেশের অর্থনীতিকে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। প্রবাসীদের প্রেরিত রেমিটেন্স গ্রামীণ অর্থনীতিতে গতিশীলতা সৃষ্টি করে; যা মুখ থুবড়ে পড়বে। বিপুল সংখ্যক প্রবাসী পরিবার আর্থিক কষ্টে পড়বে। বেরকারত্ব বেড়ে যাবে। এদের নিয়ে এখনই চিন্তা করতে হবে বলে মত প্রকাশ করেন তিনি।

চট্টগ্রাম জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি কার্যালয় সূত্র জানায়, ছুটিতে যারা এসেছেন তাদের বিমানের টিকেট বাতিল হবে না। ফাইট চালু হলে এসব টিকেট নিয়ে কাজে যাওয়া যাবে। আবার ভিসা নিয়েও সমস্যা হবে না। যাদের ভিসা ছিল সেগুলোর মেয়াদ বাড়িয়ে কাজে যোগ দেয়ার সুযোগ দেয়ার জন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে সংশ্লিষ্ট দেশগুলোকে অনুরোধ জানানো হয়েছে। তবে সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর মনোভাব এখনো পরিষ্কার নয় বলে জানা গেছে।

সূত্র জানায়, গত চার মাসে জনশক্তি রপ্তানি শূন্যের কোটায় নেমে আসায় অনেক পরিবারে দুর্যোগ নেমে এসেছে। চড়া দামে ভিসা কিনেও কাজে যেতে পারছেন না অনেকে। এদের অনেকের আয়-রোজগার নেই বললেই চলে। আবার বিদেশ থেকে এসে আটকা পড়া বিপুল সংখ্যক মানুষ ফিরতে পারছেন না। এদেরও কোনো আয় নেই। তারা আছেন অর্থ সংকটে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*