মিরসরাইয়ে পল্লী বিদ্যুতের ভূতুড়ে বিল নিয়ে বিপাকে গ্রাহকরা

এম মাঈন উদ্দিন>>>
মিরসরাইয়ে পল্লী বিদ্যুতের ভূতুড়ে বিল নিয়ে বিপাকে পড়েছেন গ্রাহকরা। করোনাকালে অতিরিক্ত বিল তৈরি করায় চরম ক্ষুদ্ধ এখানকার প্রায় ৬৩ হাজার গ্রাহক।
মিটার রিডিং না দেখে অনুমান নির্ভর বিদুৎ বিল করার অভিযোগ উঠেছে চট্টগ্রাম পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি ৩ এর কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। তবে বিদ্যুৎ বেশি ব্যবহার করায় বিলও আগের মাসের তুলনায় বেশি হয়েছে বলে দাবী করেছেন পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি কর্তৃপক্ষ।

গ্রাহকদের অভিযোগ, পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি -৩ এর গত ৩ মাসের বিদ্যুতের বিলের সাথে মিটার রিডিং এর কোন মিল নেই। কোন কোন ক্ষেত্রে ২/৩ গুন বেশি বিল করা হয়েছে।

তবে করোনাভাইরাস বিস্তার রোধে দেওয়া লকডাউনে মার্চ এপ্রিল মাসে মিটার রিডিং না দেখেই বিদ্যুৎ বিল করার কথা স্বীকার করেছে পল্লী বিদ্যুতের মিরসরাই জোনাল অফিস।

জানা গেছে, উপজেলার উত্তর আমবাড়িয়া এলাকার মুক্তিযোদ্ধা সফিউল আলমের মার্চ মাসে বিল আসে ১০০৪ টাকা, এপ্রিল মাসে ১৩৪৩ টাকা। কিন্তু মে মাসে একই বিদ্যুৎ ব্যবহার হলেও বিল আসে ২৬৫৯ টাকা।

উপজেলার মঘাদিয়া কচুয়ার এলাকার আবুল বশরের ফেব্রুয়ারি মাসে বিল আসে ৯২২ টাকা ও এপ্রিল মাসে বিল আসে আরো দুই গুন বেশি ৩০৫৮ টাকা।

হিঙ্গুলী ইউনিয়নের পূর্ব হিঙ্গুলী গ্রামের ফয়েজ আহম্মদের মার্চ ও এপ্রিল মাসে ৮৭০ টাকা। মে মাসে বিল আসে ২৮৮৫ টাকা।

পল্লী বিদ্যুতের গ্রাহক ফয়েজ আহম্মদ অভিযোগ করেন, একই বিদ্যুৎ ব্যবহার করলেও মে মাসে প্রায় ২ হাজার টাকা অতিরিক্ত বিল আসে। মিটারের রিডিং না দেখে মনগড়া বিল করেছেন।

বারইয়ারহাট পৌর বাজারের একাধিক ব্যবসায়ী অভিযোগ করেন দুই মাসেরও বেশি সময় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল। তারপরও আগের মাসের সমান বিল আসে। যেখানে দোকানই বন্ধ এতো টাকা বিল কিভাবে আসে?

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার ১৬ ইউনিয়ন দুই পৌরসভার ৬৩ হাজার গ্রাহকের এমন অতিরিক্ত বিল করা হয়েছে। গ্রাহকদের অভিযোগ, করোনার কারণে মানুষ বেকার হয়ে পড়েছে। অনেকে চাকরী নেই, ব্যবসা বন্ধ থাকায় পরিবার নিয়ে চলতে কষ্ট হচ্ছে সে সময়ে বিদ্যুতের অতিরিক্ত বিল মরার উপর খাড়ার ঘাঁ।

জানা গেছে, ১৯৮০ দশকে এ অঞ্চলে পিডিপির বিদুৎ সেবা শুরু হয়। যা পরবর্তীতে পল্লী বিদ্যুতের আওতায় নেয়া হয়। বর্তমানে মিরসরাই উপজেলা জুড়ে বিদ্যুৎ সেবার কার্যক্রম চালাচ্ছেন পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-৩ (পবিস)। উপজেলাজুড়ে প্রায় ৬৩ হাজার গ্রাহক রয়েছেন। কিন্তু করোনা পরিস্থিতির কারণে মিটার রিডিং না দেখে একত্রে তিন মাসের ভৌতিক বিল গ্রাহকদের মাঝে সরবরাহ করলে উপজেলা জুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়।

এ বিষয়ে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-৩ এর মিরসরাই জোনাল অফিসের ডিজিএম সাইফুল আহমেদ বলেন, করোনা ঝুঁকির কারণে এপ্রিল মাসের বিল মিটার না দেখে করার বিষয়টি স্বীকার করেন তিনি। করোনা বিস্তার রোধে, গ্রাহকের অসহযোগীতার কারণে বিদ্যুৎকর্মীরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে মিটার দেখতে পারেননি, তাই এপ্রিল মাস মিটারের রিডিং না দেখে আগের বছরের বিল দেখে বিল করা হয়েছে। তবে বেশি বিল করার বিষয়টি তিনি মানতে নারাজ। তিনি বলেন, সাধারণত ফেব্রুয়ারি মাসের পর গরম শুরু হয়। তার উপর মার্চ মাসের মাঝামাঝি থেকে লকডাউনের কারণে মানুষ ঘরবন্দি ছিল এবং পুরো রমজান মাসে বিদ্যুৎ বেশি ব্যবহার করেছেন তাই বিলও বেশি হয়েছে। আমরা নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ করেছি। মিরসরাই উপজেলায় ফেব্রুয়ারি মাসের তুলনায় মার্চ মাসে ২ লক্ষ ৫০ হাজার ইউনিট বেশি বিদ্যুৎ ব্যবহার হয়েছে। মার্চের চেয়ে এপ্রিল মাসে ৮ লক্ষ ইউনিট ও এপ্রিল মাসের চেয়ে মে মাসে ১৩ লক্ষ ৮৬ হাজার ইউনিট বিদ্যুৎ বেশি ব্যবহার হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*