একজন আমিন স্যার দিনে দিনে তৈরী হয়নি

মুহাম্মদ নাজমুল হাসান

‘আমরা জানি, একদিন আমরা মরে যাব। এই জন্যেই পৃথিবীটাকে এত সুন্দর লাগে। যদি জানতাম আমাদের মৃত্যু নেই, তাহলে পৃথিবীটা কখনোই এত সুন্দর লাগত না।’ —হুমায়ূন আহমেদ (মেঘ বলেছে যাব যাব/পৃ: ১৫৮)।
সুন্দর এ পৃথিবী ছেড়ে মৃত্যুকে আলিঙ্গণ করে চলে গেলেন প্রিয় শিক্ষক আমিনুর রসূল। মৃত্যু নামক সত্য বিধানটি আমরা মানতে বাধ্য হলেও কিছু মৃত্যু মেনে নিতে কষ্ট হয়, হৃদয় ভেঙ্গে যায়। কিছু মৃত্যূ সংবাদ আমাদের বাকরূদ্ধ করে দেয়। ঝাপসা চোখে মুহুর্তে নামে জল। এমনতো কথা ছিল না! যে পথ শুরু হয়েছে মাত্র সে পথেতো আরো অনেক হাঁটার কথা ছিল। যে হাঁটার প্রতিটি স্টেপে একটি একটি করে দেশ গড়ার নতুন নতুন কারীগর তৈরী হতো।

টুকরো স্মৃতি হাজার বেদনার জন্ম :
মাধ্যমিকে বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র থাকলেও উচ্চ মাধ্যমিকে ব্যবসায় বিভাগ নিয়ে ভর্তি হই প্রফেসর কামাল উদ্দিন চৌধুরী কলেজে। খুব কড়াকড়ির এই কলেজে লম্বা আর সুদর্শন এক শিক্ষক আসতেন আমাদের ক্লাশ নিতে। হিসাব বিজ্ঞান পড়াতেন। কিছুটা টেনে টেনে কথা বলতেন। পুরো ক্লাশকে মনোযোগী করার তাঁর যে তীব্র চেষ্টা তা সত্যিই অতূলনীয়। দীর্ঘ ক্লাশরূমে তিনি হাঁটতেন। বাড়ির কাজ আদায়ের প্রতি তাঁর নজর ছিল খুব বেশী। তিনি আমিনুর রসূল। আমাদের আমিন স্যার। প্রিয় আমিন স্যার।
এতবেশী ছাত্রের মাঝে তিনি প্রতিটি ছাত্রকে আলাদা আলাদাভাবে চিনেন। আমার খুব মনে পড়ে একদিন কলেজ যাওয়ার পথে আমি এক্সিডেন্ট করে সামান্য ব্যথা পাই। ক্লাশে যেতে পারিনি। পাশে একটি ফার্মেসিতে চিকিৎসা নিচ্ছি। স্যার হাজিরা ডাকছেন আর আমার রোল যখন আসলো তিনি জিজ্ঞেস করলেন যে আমি নেই কেন, কোথায়? অনেক দূর থেকে কলেজে আসি সেটাও বলছেন ক্লাশে!
ক্লাশ শেষে আমাকে দেখতে আসা বন্ধুরা এটা যখন আমাকে বলছিল তখন আমার অবাকই লাগছিল যে স্যার আমাকে চিনতেন? এত এত ছাত্রের মাঝে নবীন আমাকেও তিনি আলাদা মার্ক করে রেখেছেন।
আমাদের কলেজে ‘সৃজন’ নামে একটি দেয়ালিকা বের করেছিলাম। সহযোগীতার পাশাপাশি তিনি আমাকে ডেকে অনেক প্রশংসাও করেছিলেন।
কলেজ জীবনের দুই বছরে অনেক অনেক স্মৃতি আছে স্যারের সাথে। যা মনে করে প্রতি মুহুর্তে আমার ভেতরে কষ্ট, যন্ত্রনা কুড়ে কুড়ে খাওয়া শুরু করেছে। বার বার প্রশ্ন জাগছে এমন কেন হল!
মৃত্যুর মোড়কে এই হত্যা আর কতদিন?

সড়ক দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর আর প্রশস্ত হয়ে মহাসড়ক হয়েছে। এক লেন,দু’লেন থেকে এখন চারলেন হয়েছে। এই মহাসড়ক মহাখাদক হয়ে মৃত্যুর মিছিলে প্রতিদিন নতুন নতুন নামের জন্ম দিচ্ছে। পিচ ঢালা কালো পথ রক্তে করছে রঞ্জিত। ঝরছে প্রাণ, ভাঙছে বুক।
অনিয়ন্ত্রিত যানবাহন ব্যবস্থা, গাড়ির বেপরোয়া গতি, অদক্ষ লাইসেন্সবিহীন চালক, আইনগত সিমাবদ্ধতা আর আইনের সঠিক প্রয়োগের অভাবে প্রতিনিয়ত এমন সব করুণ কাহিনীর জন্ম দিচ্ছে মহাসড়ক।
মৃত্যুর মিছিলে সর্বশেষ নাম যোগ হলো আমাদের স্যার আমিনুর রসূল। এমন কত আমিনূর রসূলের প্রাণ যাওয়ার পর খিদে মিটবে রাক্ষস মহাসড়কের! আর কত প্রাণ গেলে পরে টনক নড়বে মহানসড়কের দায়িত্বে থাকা কর্তৃপক্ষের।

একজন আমিন স্যার দিনে দিনে তৈরী হয়নি। দীর্ঘ শ্রম, মেধা আর যোগ্যতার মাধ্যমে এই অবস্থানে আসা। তিলে তিলে গড়া সাফল্য, ত্যাগে গড়া জীবন আর হাজার জীবন তথা মানুষ গড়ার কারিগর শুধুমাত্র একজন চালকের অনিয়ন্ত্রিত গাড়ির চাকায় পিষ্ট হয়ে না ফেরার দেশে চলে যাবেন। আমরা ‘হেন করেঙ্গা, তেন করেঙ্গা’ বলে গলা ফাটিয়ে আবার বোবা হয়ে নিত্য কোন ইস্যুতে গলা ধরবো। আবার কোন আমিন স্যারের মৃত্যু সংবাদ আমাদের চূর্ণ বিচূর্ণ করবে।
এভাবে আর কত! একটি সঠিক নীতিমালার বাধ্যবাধকতায় কবে আসবে আমাদের এই গুরুত্বপূর্ণ দপ্তরটি? এমন প্রশ্ন আমার মতো লক্ষ সাধারণ মানুষের।
মেঘে ঢাকা আবুতোরাবের আকাশ :
আবুতোরাব এই জনপদটি শোক বইতে আর শোক সইতে সইতে এখন পাথর। বিশ্ব নাড়া দেওয়া প্রায় অর্ধশত শিক্ষার্থীর করুণ মৃত্যুর পর এই অঞ্চলের মানুষ আর স্বাভাবিক হতে পারলো কই? গতকাল সোমবার আবুতোরাবে অবস্থিত প্রফেসর কামাল উদ্দিন চৌধুরী কলেজের অধ্যক্ষের অকাল মৃত্যুর পর আবারো শোকের ছায়া নেমে এলো এই অঞ্চলে।
২০০১ সালে আবুতোরাব অঞ্চলে পা রাখেন অধ্যক্ষ আমিনুর রসূল। নতুন কলেজ, নতুন এলাকা। কিন্তু তাঁর বন্ধুত্বপূর্ণ ও আন্তরিকতা দিয়ে জয় করেন এই অঞ্চলের মানুষের মন। ধিরে ধিরে তিনিও হয়ে উঠেন এখানকার একজন। তাঁর আসা যাওয়ার পথে এত বেশী শুভাকাঙ্খী তৈরী হয়েছে গতকালের জানাজা দেখে অনুমান করা যায়। সহকর্মী, শিক্ষার্থী ছাড়াও সাধারণ মানুষের কান্না দেখে বোঝা যায় তিনি মানুষের মনে কতটা জায়গা করে নিয়েছিলেন। তিনি যেন মানুষকে উদ্দেশ্য করে বলছিলেন…
‘তোমাদের পানে চাহিয়া বন্ধু, আর আমি জাগিব না,
কোলাহল করি’ সারা দিনমান কারও ধ্যান ভাঙিব না।
নিশ্চল নিশ্চুপ
আপনার মনে পুড়িব একাকী গন্ধবিধুর ধূপ।’
পিতার কাঁদে পুত্রের লাশ :
চারপুত্র ও চার কন্যা সন্তানের জনক মোহাম্মদ আমির হোসেন। প্রতিটি ছেলে মেয়েকে শিক্ষিত করে বেশ সুনাম কুড়িয়েছেন। তাঁর প্রতিটি সন্তানও মেধা ও যোগ্যতা দিয়ে নিজ নিজ পেশায় সাফল্যের নজীর রেখে চলেছেন।
লোকমুখে সন্তানদের সাফল্যময় জীবনের প্রশংসা শুনেই দিন কাটতো তাঁর। বড় মেয়ে পরিবারের আমেরিকা প্রবাসী হওয়ায় দেশে এবং দেশের বাইরে আসা যাওয়ার মাঝেই থাকতে হতো তাঁকে। গতকাল বড় ছেলের এমন মৃত্যুর পর সব যেন এলোমেলো হয়ে গেল! নির্বাক হয়ে গেলেন তিনি। ক্ষণে ক্ষণে কেঁদে উঠছেন আবার চুপ হয়ে যাচ্ছেন। পৃথিবীর সবচেয়ে ভারী বস্তু পিতার কাঁদে পুত্রের লাশ। পিতা আমির হোসেন পুত্র আমিনুর রসূলের সেই ভারী লাশ বহন করে ক্লান্ত, নির্বাক!
চট্টগ্রাম নগরীর পূর্ব মাদারবাড়ী মালুম মসজিদ এলাকায় দীর্ঘদিন পরিবারে সাথে বসবাস করতেন অধ্যক্ষ আমিনুর রসূল। নগরীর সরকারী সিটি কলেজ থেকে শিক্ষা জীবন শেষ করেন তিনি।
২০০৮ সালে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন খালেছা খানমের সাথে। তাঁর স্ত্রী খালেছা খানম মিরসরাইয়ে করেরহাট গনিয়াতুল উলুম হোছাইনিয়া আলিয়া মাদ্রাসার ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের প্রভাষক হিসেবে কর্মরত আছেন। তাদের সংসার জীবনে রয়েছে ফৌজিয়া আমিন ফারিয়া নামে এক কন্যা সন্তান। তিনি স্ত্রী সন্তান নিয়ে মিরসরাইয়ে বসবাস করতেন।
নিজ পরিবার এবং শশুর পরিবারে বেশ আদরের ছিলেন

লিখেছেন
প্রফেসর কামাল উদ্দিন চৌধুরী কলেজের ২০১০ ব্যাচের প্রাক্তণ শিক্ষার্থী ও মাসিক বাবুই’র সম্পাদক মুহাম্মদ নাজমুল হাসান।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*