খোশ আমদেদ মাহে রমজান

 

মাওলানা শামছুল ইসলাম হাকেমী…

প্রতি বছর শান্তির পয়গাম, পুণ্যের আহ্বান, জান্নাতের হাতছানি, বরকতের সওগাত, রহমতের আশ্বাস, মুক্তির প্রতিশ্রুতি, বদরের গৌরব, কদরের সম্মান সর্বময় কল্যাণ নিয়ে সমুপস্থিত মহীয়ান মাহে রমজান; মুমিনের প্রতীক্ষিত ও কাক্সিত মাস রমজানুল মোবারক। আমাদের প্রাণ আজ উদ্বেল, উচ্ছল, সেহরির অনন্য স্বাদ, দিনময় অনাহারের অপার আনন্দ, ইফতারের অপূর্ব তৃপ্তি, তারাবির আকর্ষণ, ঈদের বিমল হাসিখুশিপূর্ণ শিহরণ জেগেছে বিশ্বব্যাপী মুসলিম হৃদয়ে; তাই পলে পলে উঠেছে গুঞ্জনÑ খোশ আমদেদ মাহে রমজান, আসসালামু আলাইকুম ইয়া শাহরাসসিয়াম।
রোজা মুসলমানদের কাছে বহুল পরিচিত ও পালনীয় ফরজ ইবাদত। এ সময় মুসলিম উম্মাহ পুরো এক মাস রোজা পালন করে। রমজান হিজরি সালের নবম মাস। ইসলামের পাঁচ স্তম্ভের মধ্যে রোজা অন্যতম। রমজান শব্দটি আরবি ‘রমজ’ থেকে এসেছে। ‘রমজ’ অর্থ দহন বা পোড়ানো। এ মাসে রোজা পালন করলে মানুষের মধ্য থেকে লোভ-লালসা, পাপ-পঙ্কিলতা ও হিংসা-বিদ্বেষ দূরীভূত হয়। আগুন যেমন কোনো জিনিসকে পুড়িয়ে ফেলে, ঠিক তেমনি রোজাও মানুষের অসৎ কাজকে পুড়িয়ে ফেলে। রোজা পালনকারী রমজানে তার সব পাপ মুছে ফেলার সুযোগ লাভ করে। এ অর্থে রোজার মাসকে মাহে রমজান বলা হয়। রোজা ফারসি শব্দ, এর অর্থ উপবাস। আরবিতে রোজাকে বলা হয় সওম। সওমের বহুবচন সিয়াম, এর অর্থ বিরত থাকা। তাই শরিয়তের পরিভাষায় রোজা বলতে বোঝায়Ñ সুবহে সাদিক থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত পানাহার, স্ত্রী সহবাসসহ আল্লাহর নিষিদ্ধ সব কাজ থেকে বিরত থাকা।
রোজা শুধু হজরত মুহাম্মদ সা:-এর উম্মত মুসলমানদের ওপরই ফরজ করা হয়নি, এর আগেও রোজা পালনের বিধান ছিল। পৃথিবীতে প্রথম মানুষ আমাদের আদিপিতা নবী হজরত আদম আ:, তিনিও রোজা পালন করতেন। হজরত নূহ আ:-এর সময় প্রতি মাসে তিনটি রোজা রাখার প্রথা প্রচলিত ছিল। হজরত দাউদ আ: তার শিশুপুত্রের অসুস্থতার সময় সাত দিন রোজা পালন করেছেন বলে জানা যায়। হজরত মূসা আ: ও ঈসা আ: ৪০ দিন করে রোজা রেখেছেন। আমাদের প্রিয় নবী হজরত মুহাম্মদ সা: রমজানের রোজা ফরজ হওয়ার আগে মহররমের নবম ও দশম তারিখে রোজা রাখতেন। হিজরি দ্বিতীয় বর্ষ (৬২৩ ঈসায়ী) রোজাকে ফরজ করে আল্লাহপাক নির্দেশ জারি করেন।
‘রমজান মাস। এ মাসেই কুরআন নাজিল হয়েছে, যা মানবজাতির জন্য পুরোপুরি সঠিক পথের সন্ধানদাতা, চলার জন্য সুস্পষ্ট নির্দেশনাবলি, হক ও বাতিলকে পরিষ্কারভাবে উপস্থাপনকারী। এখন থেকে তোমাদের মধ্যে যে লোক এ মাসটি পাবে সে পুরো মাস ধরে রোজা রাখবে। যে ব্যক্তি অসুস্থ হয়ে যায় বা সফরে (ভ্রমণে) থাকে, সে যেন অন্য দিনগুলোয় রোজার মাসের পরে অবশিষ্ট রোজার সংখ্যা পূর্ণ করে নেয়। আল্লাহ তোমাদের সাথে কোমল নীতি অবলম্বন করতে চান, কঠোর নীতি অবলম্বন করতে চান না।’ Ñ আল বাকারা।
আর এ মাসে একটি রাত আছে যা হাজার মাস থেকে উত্তম। তা হলো লাইলাতুল কদর। এ রাতের ইবাদত হাজার মাসের ইবাদতের সমান। আর রমজান মাসের একটি নফল ইবাদত অন্য মাসের একটি ফরজের শামিল, একটি ফরজ ইবাদত অন্য মাসের ৭০টি ফরজের শামিল। তাই আমাদের এই বরকতময় ও কল্যাণময় মাসকে কাজে লাগাতে হবে। আমরা জানি সেনাবাহিনীতে কেউ যোগ দিলে প্রথমে তাকে ট্রেনিং বা প্রশিক্ষণ নিতে হয়। আর রমজানের রোজাও মুসলমানদের জন্য ট্রেনিং বা প্রশিক্ষণস্বরূপ। এ মাসের রোজা রাখার জন্য আমাদের নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সেহরি ও ইফতার করতে হয়। সারা দিন প্রচণ্ড গরমের মধ্যে না খেয়ে ও পানাহার না করে গরিবরা কী ধরনের কষ্ট অনুভব করে, তা অনুভব করিয়ে দেয় রোজা। আল্লাহ তায়ালার ভালোবাসা রোজার মাধ্যমে পাওয়া যায়। যেমন অন্যান্য ইবাদতে মানুষকে দেখানো ‘রিয়া’ অথবা কোনো কোনো সময় অহঙ্কার এসে যায়। কিন্তু রোজা একমাত্র আল্লাহর জন্য। কেননা গোপনে আমি যদি কিছু খেয়ে নিই তা তো একমাত্র আল্লাহ ছাড়া আর কেউ দেখেন না। কিন্তু আমরা খাই না শুধু আল্লাহর ভালোবাসার টানে ও ভয়ে।
জীবনকে কুরআনের আলোয় গড়তে আল্লাহ আমাদের ওপর রোজা ফরজ করেছেন। হাদিসে রাসূলুল্লাহ সা: বলেছেন, ‘রোজা ঢালস্বরূপ। ঢাল যেভাবে শত্রুর আক্রমণ থেকে কোনো ব্যক্তিকে রক্ষা করে, অনুরূপ রোজাও ব্যক্তিকে শয়তানি হামলা থেকে রক্ষা করে। সুতরাং রোজাদার অশ্লীল কথা বলবে না ও জাহেলি আচরণ করবে না। কোনো লোক তার সাথে ঝগড়া করতে উদ্যত হলে বা গালমন্দ করলে সে যেন বলে, আমি রোজাদার।’ রাসূল সা: এ কথা দুইবার বলেছেন, ‘ওই সত্তার শপথ করে বলছি, যার হাতে আমার প্রাণ। রোজাদারের মুখের গন্ধ আল্লাহ তায়ালার কাছে মিশক আম্বরের চেয়েও অতীব সুগন্ধময়। কেননা রোজাদার কেবল আমার সন্তুষ্টির জন্যই দিনের বেলা পানাহার ও অন্যান্য বিষয় ত্যাগ করে। রোজা আমার জন্য এবং আমি বিশেষভাবে রোজার পুরস্কার দান করব। আর নেক কাজের পুরস্কার ১০ গুণ পর্যন্ত দেয়া হয়ে থাকে। তাই রোজার ১০ গুণ পুরস্কার দেয়া হবে।’ রাসূলুল্লাহ সা: বলেছেন, ‘রমজানের মাস উপস্থিত হলে রহমতের দরজাগুলো খুলে দেয়া হবে। জাহান্নামের দরজাগুলো বন্ধ করে দেয়া হবে এবং শয়তানগুলোকে আবদ্ধ করা হয়।’ রোজার মাধ্যমে আমরা অন্যায়, গুনাহ ও পাপাচার থেকে মুক্ত থাকতে পারি। কেননা এ মাসে শয়তানদের আবদ্ধ রাখা হয়। কিন্তু শয়তানের অনুসারী খারাপ মানুষদের তো বেঁধে রাখা হয় না, তাই তাদের থেকে বাঁচার জন্য আমাদের চেষ্টা করতে হবে। রাসূল সা: আরো বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি রোজা রেখে মিথ্যা কথা বলা ও অশালীন আচরণ থেকে বিরত থাকল না তার ুধা-তৃষ্ণায় কষ্ট পাওয়াতে আল্লাহর কোনো প্রয়োজন নেই।’
মাহে রমজানের পুরো এক মাস তিনটি পর্বে বিভক্ত। প্রথম ১০ দিন রহমত, দ্বিতীয় ১০ দিন মাগফিরাত এবং তৃতীয় ১০ দিনকে নাজাতের সময় বলা হয়। এ মাসে আমরা আল্লাহর কাছ থেকে অশেষ রহমত ও করুণা লাভের সুযোগ পাই। আমাদের অতীতের গুনাহগুলো মাফ করে দেয়ার সুযোগ দিয়েছেন বিশ্বজাহানের প্রতিপালক মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন। এক মাস রোজা পালনের মাধ্যমে আমরা আমাদের আখেরাতের জীবনে শান্তি লাভের পথ প্রশস্ত করতে পারি। মহান আল্লাহ তায়ালা রমজানের রোজাকে সব মুসলমান নরনারীর ওপর বাধ্যতামূলক করার আদেশ করেছেন হিজরি দ্বিতীয় সালে। কুরআন পাকে সূরা বাকারার ১৮৩ নম্বর আয়াতে আল্লাহ ঘোষণা করেছেনÑ ‘হে ঈমানদারগণ! তোমাদের ওপর রোজা ফরজ করা হয়েছে, যেমনিভাবে ফরজ করা হয়েছিল তোমাদের পূর্ববর্তীদের ওপর, যাতে তোমরা তাকওয়া অর্জন করতে পারো।’ পরে রাসূলে করিম সা: নিজেও রোজা পালনের গুরুত্ব এবং ফজিলত সম্পর্কে আমাদের অভিহিত করেছেন। তিনি বলেছেন, যে ব্যক্তি ঈমানসহকারে ও সওয়াবের আশায় রমজানের রোজা রাখে এবং এমনিভাবে রাতে ইবাদত করে তার আগের সব গুনাহ মাফ করে দেয়া হবে।’ তিনি আরো বলেছেন, ‘রমজান মাস ধৈর্যের মাস। আর ধৈর্যের বিনিময় হচ্ছে বেহেশত।’ অপর এক হাদিসে রাসূল সা: বলেছেন, ‘মাতৃগর্ভ থেকে শিশু যেমন নিষ্পাপ হয়ে ভূমিষ্ঠ হয়, রমজানের রোজা পালন করলে মানুষ ঠিক তেমন নিষ্পাপ হয়ে যায়।’
রোজার দিনে নিয়মিত পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ সময় মতো জামাতের সাথে আদায় করার পরও রাতে ২০ রাকাত তারাবির নামাজ আদায় করতে হয়। নফল নামাজ, কুরআন তিলাওয়াত বেশি বেশি করবেন। তারাবি আমাদের জন্য রোজার মাসে বাড়তি ও বরকতময় ইবাদত। তারাবির নামাজ আমাদের সবার জন্য সুন্নাতে মুয়াক্কাদা। পড়তে হবে, না হলে গুনাহ হবে। খতম তারাবিতে বাড়তি সওয়াব, যদি সম্ভব না হয় সূরা তারাবি পড়তে হবে। এ মাসে দিনের নিয়মিত পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ জামাতে পড়লে অনেক গুণ বেশি সওয়াব পাওয়া যায়। প্রত্যেক নেক আমলের পুরস্কার ১০ গুণ থেকে ৭০০ গুণ পর্যন্ত দেয়া হবে। আমলের মান অনুযায়ী নামাজের মানকে যাতে উন্নত করা যায় সে বিষয়ে প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে। রোজার ব্যাপারে, জাকাতের ব্যাপারে, হজের ব্যাপারে, দানখয়রাতের ব্যাপারে আন্তরিকতার ভিত্তিতে সওয়াবে কম-বেশি হবে।
পবিত্র এ রোজা-রমজানের দিনে আমরা সারা দিন উপবাস থেকে সিয়াম সাধনা করি এবং শেষ রাতে উঠে সেহরি খাই। এ সময়ে সেহরিতে অনেকেই ভালো ভালো উন্নতমানের খাবার খেতে চেষ্টা করি। আবার দিনের শেষে ইফতারেও যথেষ্ট উন্নতমানের খাবার খেতে আমরা সবাই পছন্দ করি ও খাই। কিন্তু আমাদের আশপাশে লক্ষ করলে দেখা যাবে সমাজের অগণিত গরিব ও অভাবী মানুষ রোজার দিনেও অনেক কষ্ট করে দিন যাপন করে। দিন আনে দিন খায়, নুন আনতে পান্থা ফুরিয়ে যায়। অভাব-অনটনের সংসার; ভালো উন্নত খাবার দূরে থাক, দুই বেলা দুই মুঠো আহার জোগাড় করতে মাথার ঘাম পায়ে ফেলেও কূলকিনারা পায় না। আমরা কি একটু সহানুভূতি দেখাতে পারি না? রোজার দিনে আমরা ইচ্ছা করলেই বেশি দান-খয়রাত করার চেষ্টা করতে পারি। এ সময়ের দানকে অন্যান্য সময়ের চেয়ে অনেক বেশি বরকতময় বলা হয়েছে। আমরা সবাই মিলে এ কাজ করতে পারলে সমাজে অভাবী মানুষের সংখ্যাও কমে যাবে। আজ যদি জাকাতের বিধান রাষ্ট্রীয়ভাবে চালু হতোÑ রাষ্ট্রীয়ভাবে জাকাতভিত্তিক অর্থব্যবস্থা চালু হলে আশা করা যায় পাঁচ বছরে সমাজ থেকে অভাব-অনটন দূর হয়ে যাবে। বেকার সমস্যা আর থাকবে না। সন্ত্রাস-দুর্নীতি ও চুরি-ডাকাতি বন্ধ হয়ে যাবে। এভাবে মাসব্যাপী কমপক্ষে রোজার মাসে মানুষের দুঃখ-কষ্ট লাঘবের যে চেষ্টা আমরা করব তাতে আমাদের মধ্যে ভ্রাতৃত্ববোধ, মমত্ববোধ ও সহানুভূতির গুণ সৃষ্টি হবে। আর এ গুণ আমাদেরকে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনে ও সুন্দর মানুষে পরিণত করতে সহায়তা করবে। এভাবেই আমরা আল্লাহর পছন্দনীয় বান্দা হিসেবে গণ্য হবো।
রমজান মাস আত্মরক্ষার মাস। এ মাস ধৈর্য ও সহনশীলতার মাস। এ মাস ইবাদতের মাস। রমজান সমাজের অন্যান্য মানুষের দুঃখ-দুর্দশা বোঝার ও লাঘব করার মাস। সর্বোপরি, মাহে রমজান পবিত্রতা অর্জন করে আখেরাতে মুক্তি এবং আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের মাস। তাই আসুন, সবাই মিলে রমজানের পবিত্রতা রক্ষা করি। এ মাসকে নিজেদের গড়ে তোলার প্রশিক্ষণের মাস হিসেবে গ্রহণ করি, যাতে সেই প্রশিক্ষণলব্ধ জ্ঞান দিয়ে বাকি ১১ মাস চলতে পারি।
লেখক : খতিব ও পেশ ইমাম, আলহাজ জাকির হোসেন কন্ট্রাক্টর জামে মসজিদ, চট্টগ্রাম

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*