প্রসাধনীর নামে কী ব্যবহার করছি?

হাসান সাইদুল…

একটি গবেষণার ফলাফলে জানা গেছে, বিদেশী নকল ও ভেজাল প্রসাধনীতে মিথানল-হাইড্রোকার্বন নামের জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর রাসায়নিক বিষ পাওয়া গেছে। দেশের নামী-দামি শহর এমনকি গ্রামগঞ্জেও বিদেশী নামী-দামি ব্র্যান্ডের নকল ও ভেজাল প্রসাধনী শুল্ক গোয়েন্দা আটকের পর র‌্যাবের ফরেনসিক ল্যাবে ৪৮টি নমুনা রাসায়নিক পরীক্ষায় ক্ষতিকর এই বিষের সন্ধান মিলেছে।
হেলথ অ্যান্ড হোপ স্পেশালাইজড হাসপাতালের চেয়ারম্যান ও দেশের বিশিষ্ট চিকিৎসক প্রিভেনটিভ মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা: লেলিন চৌধুরী বলেন, মিথানল বিষক্রিয়া তৈরি করে। এটি সুগন্ধিযুক্ত পণ্যে ব্যবহার করলে জনস্বার্থে সতর্ক বার্তা দিতে হয়। তবে নকল ও ভেজাল প্রসাধনী সামগ্রীতে মিথানলের ব্যবহার বৈজ্ঞানিকভাবে ক্ষতিকর ও বিপজ্জনক।
কেরানীগঞ্জের জিনজিরার লছমানগঞ্জ, বুড়িশুর, মান্দাইল ও কালিন্দিতে রয়েছে শতাধিক নকল কসমেটিকস কারখানা। অপর দিকে পুরান ঢাকার চকবাজার, মৌলভীবাজার, টঙ্গীসহ নারায়ণগঞ্জের পাগলায় বেশ কয়েকটি নকল কসমেটিকসের গুদাম ও কারখানা রয়েছে। যেখানে অবাধে তৈরি হয় নকল কসমেটিকস। আর তাই এ প্রক্রিয়ার বাইরেই থেকে যাচ্ছে বিপুলসংখ্যক নকলবাজ। দেশী-বিদেশী বিভিন্ন প্রসাধনে নানা ধরনের ক্ষতিকর রাসায়নিক ব্যবহার করা হয়ে থাকে, যা মানবদেহের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর।
বিভিন্ন ধরনের মেকআপ, ময়েশ্চারাইজার, সাবান, শ্যাম্পু, ফেসপাউডার, লিপস্টিক, নেইলপলিশ ইত্যাদি প্রসাধনসামগ্রীতে প্যারাবেন নামক এক ধরনের রাসায়নিক ব্যবহার হয়ে থাকে। মিথাইল প্যারাবেন, বিউটেল প্যারাবেন, প্রপেল প্যারাবেন, ইসোবিউটেল প্যারাবেন, ইথাইল প্যারাবেন ইত্যাদি নামে পাওয়া যায় এই রাসায়নিক। ব্যাপকভাবে বিষাক্ত এই রাসায়নিকের যথেষ্ট ব্যবহার রয়েছে, যা শরীরের হরমোন নিঃসরণে ব্যাঘাত ঘটাতে পারে। এর অধিক ব্যবহারে হতে পারে স্তন ক্যান্সার। প্যারাবেন সহজে ত্বকের ভেতরে প্রবেশ করে মানবদেহের অন্তঃক্ষরা (এন্ড্রোক্রিন) হরমোন ফাংশনকে সরাসরি বাধাগ্রস্ত করে। প্রাথমিকভাবে এটি নারীদের হরমোন নিঃসরণের মাত্রা কমিয়ে দেয়। এক গবেষণায়, মানুষের স্তন ক্যান্সার টিস্যুতে এই রাসায়নিক শনাক্ত হয়েছে। এ ছাড়া এটির ব্যবহারে পুরুষ প্রজননব্যবস্থা ব্যাহত করতে পারে। এমনকি ডিএনএ ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।
ক্রিম ও সেভিং ফোমজাতীয় কসমেটিকসে ডিইএ ব্যবহৃত হয়, যা শরীরে ক্যান্সার সৃষ্টিকারী কোষ গঠনে সহায়ক। মূলত ময়েশ্চারাইজার ও সানস্ক্রিনে ব্যবহৃত হয়। কিছু ক্ষেত্রে সাবান, ক্লিন্সার ও শ্যাম্পুতেও ব্যবহৃত হয়। ডিইএ এবং তার যৌগগুলো ত্বক ও চোখের জ্বালা সৃষ্টি করে। ল্যাবরেটরি পরীক্ষায় প্রমাণিত হয়েছে, এসব রাসায়নিক পদার্থের উচ্চমাত্রায় ব্যবহার লিভার ক্যান্সার এবং ত্বক ও থাইরয়েড পরিবর্তনে বিশেষ ভূমিকা পালন করে।
নখের প্রসাধনীতে দ্রাবক (পলিশ) হিসেবে এবং কিছু চুল স্প্রে করতে ডাইবিউটাইল থ্যালেট ব্যবহৃত হয়। নেইলপলিশকে দৃঢ় করতে মূলত এটির ব্যবহার করা হয়। ডাইবিউটাইল থ্যালেট চামড়ার মাধ্যমে শোষিত হয়। এটা জিনগত মিউটেশন ঘটাতে অন্যান্য রাসায়নিককে সহায়তা করে। ল্যাবরেটরি পরীক্ষা-নিরীক্ষায় দেখা গেছে, টেস্টিস ও প্রস্টেট পরিবর্তন এবং শুক্রাণুহ্রাস করার ক্ষেত্রে এটি ভূমিকা রাখে।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*