বেসরকারী বৃত্তির ইতি কথা (১ম পর্ব)

বেসরকারী বৃত্তির মান নিয়ে আমাদের কথা বলতে হচ্ছে। ছাত্র হিসেবে বৃত্তি পাওয়ার মত স্টুডেন্ট না হলেও রোল ১ থেকে ৫ এর কোটায় থাকায় পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেণিতে দুটো সরকারী বৃত্তির পাশাপাশি একটি বেসরকারী বৃত্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিলাম। সরকারী বৃত্তি এখন বিশাল পরিসরে পিএসসি ও জেএসসি পরীক্ষায় রূপ নিয়েছে। তবে নির্দিষ্ট ও হাতে গোনা কয়েকটা সংগঠন বেসরকারী বৃত্তি আয়োজন করলেও এখন বেসরকারী উদ্যোগে বৃত্তি আয়োজনের মহোৎসব চলছে।  স্বভাবতই বৃত্তি পরীক্ষার মাধ্যমে মেধাবী ছাত্রদের মেধার ধার বাড়ে। পাশাপাশি প্রতিযোগীতামূলক পরীক্ষার জন্য নিজেকে আরো শাণিত করার সুযোগ পায়। সেদিক থেকে বলা যায় সাধারণণের জন্য নয় অসাধারণের জন্যই এই আয়োজন। সেক্ষেত্রে এই বৃত্তি আয়োজনের পেছনে যারাই থাকবে তাদের হতে হবে সৃজনশীল, উদ্যমী। সংখ্যা বাড়িয়ে মানহীন ব্যবস্থাপনায় বৃত্তি পরীক্ষা নিয়ে এক ধরণের তামাশা শুরু হয়েছে। আমি বলব না যে এখানে মুনাফার বিষয়টা বড়। কথা হচ্ছে ব্যবস্থাপনা। বৃত্তি পরীক্ষার জন্য একটি মজবুত কাঠামো দাড় করাতে হবে।  প্রথমে প্রশ্নপত্রের মান, পরীক্ষার হলে সুন্দর ও সুশৃঙ্খল গার্ড। নিরপেক্ষভাবে উত্তরপত্র মুল্যায়নের পর নির্দিষ্ট সংখ্যক শিক্ষার্থীকে বৃত্তি প্রদান। পুরষ্কার হিসেবে সুন্দর, পরিপাটি সার্টিফিকেট প্রদানের পাশাপাশি অবশ্যই মান সম্মত টাকার একটি অংক শিক্ষার্থীকে প্রদান করতে হবে। কারণ একজন শিক্ষার্থী বৃত্তি পরীক্ষায় অংশ গ্রহনে একটি খরচ হয়ে থাকে।  এছাড়া যারা পাবে না তাদের মন খারাপের কিছু নেই। তবে বর্তমানে যেহেতু বেশিরভাগ পরীক্ষা এমসিকিউতে হয় সেহেতু সবার প্রাপ্ত নাম্বার মোবাইলে পাঠিয়ে দেয়া যায়। পরীক্ষার হলে যারা পর্যবেক্ষক থাকবে তাদের অবশ্যই স্মার্ট আচরণ করতে হবে। কারণ স্বভাবতই বাচাইকৃত শিক্ষার্থীরা বৃত্তি পরীক্ষায় অংশ নেয়। এ বছর একটি সংগঠনের বৃত্তি পরীক্ষায় দেখলাম পরীক্ষা চলাকালীন শিক্ষার্থীর সাথে সেলফি হল পর্যবেক্ষকের। বিষয়টি কেমন ভেবে দেখুন? ছবিটা ও আমার কাছে আছে।  যেহেতু এটি অলাভজনক ও সেবামূলক উদ্যোগ সেহেতু পরীক্ষার্থী অংশ গ্রহন বৃদ্ধির চাইতে নজর দিতে হবে পরীক্ষার মান বৃদ্ধিতে। শিক্ষার্থীদের জন্য যাতে বিভিন্ন দাতা গোষ্ঠী ও ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান স্পন্সর হিসেবে এগিয়ে আসে সে ব্যাপারে দায়িত্বশীল ভুমিকা রাখতে পারে আয়োজকরা। আর পুরুষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে অবশ্যই প্রধান অতিথিকে শেষ পর্যন্ত উপস্থিত থেকে শিক্ষার্থীর হাতে পুরষ্কার ও সার্টিফিকেট তুলে দিতে হবে। অযাচিত ও মানহীন বৃত্তি পরীক্ষা অবশ্যই বর্জ্যনীয়।

অচেনা পথ….

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*