মানুষের ভাষা ও মাতৃভাষা

ড. আহমদ সাব্বির…

পৃথিবীতে মানুষের পক্ষে যা কিছু বিস্ময় চিহ্নিত ভাষা তার অন্যতম। ভাষার মতো এত আনন্দ এত মধুর এত প্রাণ আর কিসে? ভাষা বিনে মানুষের আনন্দ-বেদনা প্রকাশের মাধ্যম কি হতো? ভাষা না থাকলে মানুষ কিভাবে হাসত। কিভাবে কাঁদত! কিভাবে প্রকাশ করত তার ভালোবাসার কথা। তার বিরহ-বেদনার অনুভূতি। তার পাওয়ার উচ্ছ্বাস। না পাওয়ার দুঃখবোধ। হারানোর হাহাকার। যদি ভাষা না থাকত মানুষ কি কখনো জেগে উঠত প্রেমের আনন্দে! কিংবা শিকার হতো নির্মমতার! হয়তো নির্মমতা পাওয়া যেত। কিন্তু প্রেম! প্রেমের চিরন্তন মমতার প্রকাশ! তা কি সম্ভব ছিল? নিশ্চয় ছিল না। তাহলে এটা মানা করতেই হবে ভাষার মতো মধুর আনন্দ আর কোথাও নেই। কিছুতেই নেই।
ভাষা মানুষ পেয়েছে সৃষ্টিগতভাবে। যাকে বলা হয় জন্মগত অধিকার। এ অধিকার স্রষ্টাই দিয়েছেন মানুষকে। মানুষের এ অধিকার স্বতঃস্ফূর্ত। প্রকাশ্য ও সর্বজনীন। সৃষ্টিজগতে মানুষ শ্রেষ্ঠত্ব পাওয়ার গুণাবলির অন্যতম একটি ভাষা। অন্য প্রাণীদের ভাষা নেই। কারো নেই। কিছু অর্থহীন শব্দ ছাড়া আর কোনো শব্দও নেই। যদিও প্রতিটি প্রাণীর আলাদা স্বর, আলাদা কণ্ঠ এবং শব্দের ধরনও আলাদা। প্রাণীরা নিজেদের শব্দের দ্বারা নিজের কী বোঝায়। হয়তো প্রতিটি প্রাণীগোত্র তাদের নিজস্ব শব্দের অর্থ বুঝতে সক্ষম। হয়তো সক্ষম নয়। কিন্তু তারা প্রত্যেকে তাদের আলাদা আলাদা শব্দ প্রয়োগ করে থাকে। তার মাধ্যমেই তারা দলবদ্ধ হয়। দলছুট হয়। ছুটে চলে ঝাঁকে ঝাঁকে। নিজেদের রক্ষা করে অন্য প্রাণীর হিংস্রতা থেকে। আক্রমণ থেকে। আমরা ধরে নিতে পারি এটাও প্রাণীর একধরনের ভাষা। একধরনের সাংস্কৃতিক আদান-প্রদান। এর মাধ্যমেই জীবনকে টেনে নিয়ে যায় তারা। এটাও স্রষ্টারই দান। স্রষ্টা তাদের জীবনাচরণ এবং জীবন চালনার পদ্ধতি এভাবেই নির্ধারণ করেছেন। প্রাণীগুলো তা-ই করছে এবং তা-ই করবে। এর বাইরে কিছু করার কোনো ক্ষমতা অথবা শক্তি কিংবা সামর্থ্য কোনোটাই নেই তাদের। পৃথিবীর আদি থেকে এ পর্যন্ত সব প্রাণীর শব্দ একই ধরনের থেকে গেছে। শুধু মানুষ তার ভাষার জায়গায় তার শব্দের ভাণ্ডারে এক জায়গায় থেমে থাকেনি। এগিয়েছে মানুষ। বরাবরই এগিয়েছে। যুগে যুগে শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে নিয়ত মানুষ নিজেরা বদল করেছে নিজেদের ভাষা। উন্নত করেছে গত দিনের থেকে। আধুনিক করেছে অতীত থেকে। আধুনিকতার আনন্দে মানুষ জেগেছে চিরদিন। মুখর হয়েছে কর্মের ভেতর। জাগ্রত হয়েছে নতুনের দিকে। এগিয়েছে ভবিষ্যৎ নির্মাণ করার লক্ষ্যে।
মানুষের ভাষার ক্ষেত্রে এ এক বিস্ময়। এ এক আনন্দের পরিধি। এ এক আশ্চর্য বহমানতা। যে জাতির যে ভাষা তার আদি রূপ বর্তমানের রূপের মতো ছিল না নিশ্চয়ই। বাংলা ভাষার কথাই বলি। বাংলা ভাষার আদি চেহারা দেখলে বিশ্বাস বিদ্রোহ করে। মন যেন কিছুতেই মানতে চায় নাÑ এটি ছিল আমার ভাষা। কিন্তু তা-ই তো ছিল। তা থেকেই তো আমাদের আজকের ভাষা। আজকের আধুনিক ভাষার গতি। পৃথিবীর সব ভাষার প্রেক্ষিত এমনই। সব ভাষাই রূপান্তর হতে হতে বদল হতে হতে বর্তমানে এসে দাঁড়িয়েছে। এখান থেকে ফের এগিয়ে যাবে ভবিষ্যতের দিকে। ভবিষ্যৎ থেকে নতুন ভবিষ্যতের দিকে। এভাবে ভাষা এগিয়ে যাচ্ছে। যাবেই। যেতেই হবে তাকে। কেননা গতি যেমন প্রতিটি জীবনের জন্য অপরিহার্য, ভাষার জন্যও তাই। গতিহীন ভাষা বেঁচে থাকে না পৃথিবীতে। যার জন্য প্রতিদিন অথবা প্রতি সপ্তাহে অথবা মাসে কোনো না কোনো ভাষার মৃত্যু ঘটে যাচ্ছে। বিলুপ্ত হচ্ছে ভাষার শরীর। কালের গর্ভে তলিয়ে যাচ্ছে চির দিনের জন্য। হারিয়ে যাচ্ছে যেসব ভাষা সেসব ভাষা কেউ মুখে তুলবে না আর। কেউ বলবে না সেসব ভাষার প্রেমের কথা। প্রকাশ করবে না প্রেমবঞ্চিত বেদনার অনুভূতি। ভাষা ঝরে যায়। মরে যায়। আবার ভাষাই এগিয়ে যায় ভবিষ্যতের পৃথিবীতে।
ভাষা এগিয়ে যায় তার কিছু নিয়মে। পৃথিবীর সব ক’টি ভাষাই বদল হতে থাকে। বদল হয় নতুন শব্দ গ্রহণ করে। ঝেড়ে ফেলে পুরনো শব্দ। নতুনের সংযোগ, পুরনোর লুপ্তি-এভাবেই এগিয়ে যায় ভাষা।
তার সাদা অর্থ ভাষা নতুনকে গ্রহণ করে। গ্রহণ করে আপন প্রয়োজনেই। প্রকৃতি যেমন নিজেকে সাজিয়ে নেয়। যেমন একটি বৃক্ষ পুরনো পাতা ঝেড়ে নতুন পাতায় সজ্জিত থাকে, তেমনি ভাষাও। ভাষার এ বদল বেশ চমৎকার। ভাষা চিরতারুণ্যে দিপ্যমান। প্রদীপ্ত উজ্জীবিত। নদীর বহমানতা যেন জুড়ে আছে ভাষার শরীরে। ভাষা তাই ছোটে। ছুটছে এবং ছুটতেই থাকবে। ভাষা তার প্রয়োজনেই বদলে যেতে থাকে। ভাষা জানে তাকে তারুণ্যের সৌন্দর্য ধরে রাখতেই হবে। তাকে থাকতে হবে চির যৌবনা। রূপের মাধুরী ছড়াতেই হবে। সে জানে পৃথিবীর সব রূপের বন্দনা তাকে করতে হবে। সব প্রেমের গুণগান তাকেই গাইতে হবে। সব বেদনার ভার বহন করতে হবে তাকেই। সুতরাং তাকে তো হতে হবে চির আধুনিক। হতে হবে চির উন্মাদনার উৎস। মানুষ ভাষা ব্যবহার করে। ভাষাও ব্যবহার করে মানুষকে। জীবনের সবকিছু ভাষা ব্যবহারেই সম্পন্ন করে। আবার মানুষই নতুন নতুন শব্দের আবিষ্কার করে, যা যুক্ত হয় ভাষার সাথে। অবশ্য তাও হয়তো মানুষের প্রয়োজনে করে মানুষ। ভাষার প্রয়োজন তো মানুষেরই। মানুষ ভাষা ব্যবহারের উন্মাদনায় উজ্জীবিত। ভাষা ছাড়া মানুষের আর কোনো মাধ্যম নেই, যা দিয়ে মানুষ জীবনের রহস্য উন্মোচন করে নিতো।
মানুষ ভাষা ব্যবহার করে চেতন-অবচেতনে। শিক্ষিত অশিক্ষিত সবাই। একজন অশিক্ষিত কিংবা নিরক্ষর মানুষ যখন ভাষা ব্যবহার করে, তার মনের ভাব প্রকাশ করে, সত্যিই এটা বিস্ময়ের। তখন বোঝা যায় ভাষা প্রকৃতিরই দান। স্রষ্টারই অবদান। ভাষার মাধ্যমেই শ্রেষ্ঠত্বের ঘোষণা দিয়েছে মানুষ। মানুষ বলেছেÑ আমি পারি। আমি পারব এবং পারতেই হবে আমাকে। এ যে বিশ্বাস। এ যে দৃঢ়তা ভাষার মাধ্যমেই আবিষ্কার করেছে মানুষ। আজ তাই ভাবি ভাষা না থাকলে কী দশা দাঁড়াত মানুষের। কী অবয়বে নির্মিত হতো প্রেমের পৃথিবী। নিজের হৃদয় প্রকাশ করার মাধ্যম কী হতো তখন। সর্বত্র মানুষ বোবা হয়েই বিচরণ করত তখন। তাহলে মানুষ আর প্রাণীর মধ্যে ব্যবধান কী হতো। প্রাণীদের মতো মানুষেরও নির্দিষ্ট কিছু শব্দ থাকত মাত্র। যে শব্দ প্রয়োগ করে মানুষ দলবদ্ধ থাকত বন্যপ্রাণীর মতো। হয়তো তাই। হয়তো অন্য কোনো পদ্ধতি অবলম্বিত হতো। কিন্তু ভাষা ব্যবহারের সৌন্দর্য, মাধুর্য এবং বিস্ময় তো আর থাকত না। থাকত না মানুষের শ্রেষ্ঠত্বের গুরুত্ব।
কিন্তু বিস্ময়বোধ করি, মানুষই এর মর্মগুণ উপলব্ধি করে না। করতে পারে না। অবশ্য সবাই নয়। কেউ কেউ। কেউ কেউ যারা তারাই সমাজে বিপদ ডেকে আনে। তারাই মানুষকে মানুষ হিসেবে মূল্যায়ন করার যোগ্যতা হারায়। তারা কিছুটা বোধহীন। কিছুটা অবিবেচক। বাকিটা অসুন্দরে ভরা। তারা মানুষ হয়েও কাজ করে অমানুষের মতো। তারা কেড়ে নেয় অন্যের অধিকার। হরণ করে অন্যের স্বাধীনতা। অবমূল্যায়ন করে অন্যের মর্যাদার। নিজেরা মর্যাদার অধিকারী না হলে মর্যাদাবান মানুষের গুরুত্ব বোঝা যাবে কিভাবে। ভাষার মর্যাদা বোঝা উচিত। যারা বোঝে না তারা তো ভাষার মর্যাদা রক্ষা করার কথা ভাবে না। ভাবতে পারবে না। পারেও না। সুতরাং ভাষার মর্যাদা বোঝা জরুরি। ভাষার সম্মান রক্ষা করার আরো জরুরি। ভাষার মর্যাদা এবং সম্মান যারা রক্ষা করে না তারা মানবতার মর্যাদাও রক্ষা করতে ব্যর্থ। এ ব্যর্থতা ক্ষমার অযোগ্য।
ভাষার ওপর আঘাত মানুষ কেনো সইবে। ভাষা তো কোনো শাসক শোষকের দয়ার দান নয়। মাতৃক্রোড়েই ভাষার আনন্দ প্রকাশ পেয়ে যায়। উ. আ. কিংবা কান্না হাসির প্রকাশ একটি ছোট্ট শিশুর মুখেই প্রকাশ পেয়ে যায়। এমন যেখানে প্রকৃতির আয়োজন সেই আয়োজনে হাত দেয়ার কিংবা অন্যথা করার অধিকার কারো নেই। যদি কেউ এমন অনধিকার চর্চা করে সে ক্ষেত্রে তার প্রতিবাদ করতেই হবে। প্রতিবাদ ছাড়া এখানে বিকল্প আর কী থাকতে পারে। কী ব্যবস্থা নেয়া যেতে পারে। আমার ভাষা আমি বলব, আমার মায়ের ভাষায় ব্যক্ত করব আমার সব। আমি কেনো অন্যের হুকুম তামিল করতে বাধ্য হবো। কেনো আমাকে অন্যের ভাষায় রুদ্ধ করা হবে। কেনো আমার সহজকে আবৃত করা হবে কঠিনের আবরণে। সে কঠিনকে কেনো আমি উপেক্ষা করব না। কেনো ঘৃণা করব না। কেনো আমি বলব না আমার ভাষার কথা, বলার অধিকার আছে আমার।
আমি আমার অধিকারের কথা জোরগলায় বলবই। আমি কণ্ঠ উচ্চ করবই আমার পক্ষে। আমি আমার সাহসের কথা আমার ভয়ের কথা আমার আনন্দ-বেদনার কথা আমার ভাষায় আমি বলবই। কে বাধা দেয় আমাকে। কে ঠেকায় আমার স্বাধীনতা। আমার প্রকাশের উৎসমুখ। আমার ভাষা আমার। যেমন আমার মাটি আমার দেশ। আমার মাটির ঘ্রাণ আমি নেবই। আমার দেশের ভালোবাসা আমি পুষবই। আমার ভাষাও আমি লালন করবই। ভাষা আন্দোলন আমাকে এ চেতনাই তো দিয়েছে। এ আবেগই তো দিয়েছে আমার ঐতিহ্যের উত্তরাধিকার হিসেবে। ভাষা আন্দোলনের এ চেতনা আমাকে এগিয়ে দিয়েছে ভবিষ্যতের দিকে।
একটি রক্তাক্ত সংগ্রামের মাধ্যমে আমরা রক্ষা করেছি আমাদের ভাষার মর্যাদা। রক্ষার সংগ্রাম আমাদের অব্যাহত রাখতেই হবে। বাংলা ভাষা নিয়ে ষড়যন্ত্র চলছে আজো। এ ষড়যন্ত্র ভাষা বিকৃতির। এ ষড়যন্ত্র ভাষা ব্যবহারের। এ ষড়যন্ত্র ভাষা সর্বত্রকরণের ক্ষেত্রে। আমাদের উচ্চশিক্ষিত লোকেরা বাংলা ভাষা ব্যবহার সম্মানজনক ভাবেন না। তারা কারণে অকারণে ইংরেজির দ্বারস্থ হন। কথায় কথায় ইংরেজি আওড়ান। ইংরেজি বলার মধ্যে কোনো অপরাধ নেই। কিন্তু বাংলা ভাষাকে অবহেলা করে ইংরেজি বলা অথবা ইংরেজি বলে নিজেকে সুশীল মনে করার মানসিকতা ঘৃণার যোগ্য।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*