রোহিঙ্গাদের কি কোনো দেশ নেই


হামিদা আবেদীন…

এডলফ হিটলারের গণহত্যা অভিযানের অব্যবহিত পরে বিশ্ব সম্প্রদায় আর কখনো ওই ইতিহাসের যাতে পুনরাবৃত্তি ঘটতে না পারে সে ব্যাপারে দৃঢ় সঙ্কল্প ব্যক্ত করেছিল। কারণ হিটলারের ওই গণহত্যা অভিযানে গোটা ইউরোপ থেকে ইহুদিদের অস্তিত্ব প্রায় মুছে গিয়েছিল। বিশ্ব সম্প্রদায় গণহত্যা, জাতিগোষ্ঠীগত নির্মূল অভিযান, রাজনৈতিক কারণে ব্যাপক হয়রানি, নির্যাতন এবং মানবতার বিরুদ্ধে অন্যান্য অপরাধের মুখে ‘আর কখনো নীরব’ থাকবে না বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। প্রকৃতপক্ষে বিশ্ব সম্প্রদায়ের এই অঙ্গীকারের অন্যতম প্রধান কারণ হচ্ছে, জাতিসঙ্ঘ মানবতার বিরুদ্ধে ওই ধরনের অপরাধ প্রতিরোধে এগিয়ে এসেছিল। কিন্তু মধ্যপ্রাচ্য থেকে রুয়ান্ডা, দারফুরের কিলিং ফিল্ড এবং বলকানে জাতিগত নির্মূল অভিযান চালিয়ে এই প্রতিশ্রুতি বারবার ভেঙে ফেলার পরও এ পর্যন্ত বিশ্বকে উদাসীন ও বেদানাবোধহীন দেখা যাচ্ছে। মিয়ানমার তার মুসলিম সংখ্যালঘু রোহিঙ্গাদের ওপর বর্বর গণহত্যা চালানোর পরও একই ধরনের নীরবতা এবং হত্যাকাণ্ড প্রতিরোধে বিশ্ব সম্প্রদায়ের উদাসীনতা ও অনীহা পরিলক্ষিত হচ্ছে।
রোহিঙ্গা মুসিলমরা দীর্ঘ দিন ধরে বৌদ্ধ চরমপন্থী এবং মিয়ানমার সামরিক বাহিনী উভয়ের হত্যা, নির্যাতন ও চরম বর্বরতার লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হয়েছে। জাতিসঙ্ঘ জানিয়েছে, রোহিঙ্গারা হচ্ছে রাজনৈতিক কারণে বিশ্বের অত্যন্ত নির্যাতিত ও নিপীড়িত ধর্মীয় সংখ্যালঘু।
অনেকেই আশা করেছিলেন শান্তিতে নোবেল বিজয়ী অং সান সু চির নেতৃত্বে দেশটিতে রাজনৈতিক সংস্কার ও গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া শুরু হলে পরিস্থিতির উন্নতি হবে। এমনকি রোহিঙ্গারাও (যাদের নাগরিক বলে বিবেচনা করা হয় না এবং রাষ্ট্র ও সংখ্যাগরিষ্ঠ বৌদ্ধরা তাদের মানুষ হিসেবেও গণ্য করে না) ২০১৫ সালের নির্বাচনে সু চির বিজয়ের জন্য প্রার্থনা করেছে এবং তার বিজয় কামনা করেছে। তা সত্ত্বেও ক্যারিশমেটিক গণতান্ত্রিক আইকনের দ্বারা গণতান্ত্রিক কর্মকাণ্ডকে ভণ্ডামিপূর্ণভাবে শেষ করে দেয়া হয়েছে এবং এ ক্ষেত্রে অর্থায়নের মাধ্যমে পশ্চিমারা সামাজিক উৎসবাদির ব্যবস্থা করে তাকে সম্মানিত করেছে। এতে মিয়ানমারের মুসলিমদের অবস্থা খারাপ থেকে আরো অধিকতর খারাপের দিকে গেছে। রাখাইন প্রদেশে সামরিক বাহিনী বর্তমানে সন্ত্রাস দমনের নামে অসহায় মানুষের ওপর যেভাবে অত্যাচার নির্যাতনের স্টিমরোলার চালাচ্ছে, তা ভাষায় বর্ণনা করার মতো নয়।
সামরিক বাহিনীর দমনাভিযান এতই নিষ্ঠুর পর্যায়ে পৌঁছেছে, হাজার হাজার রোহিঙ্গা ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে সীমান্ত অতিক্রম করে পার্শ্ববর্তী দেশগুলোকে আশ্রয় দিতে বাধ্য হচ্ছে। ইতোমধ্যে ৩০ হাজারেরও বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ও বর্মী সন্ত্রাসীদের হত্যাকাণ্ড থেকে যারা পালিয়ে বাংলাদেশে আসতে সক্ষম হয়েছেন, তারা জানান, মিয়ানমারের সেনাবাহিনী সেখানে নির্যাতন ও গণহত্যা চালাচ্ছে। মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ স্যাটেলাইট ছবি বিশ্লেষণ করে দেখিয়েছে, শত শত ভবন আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়া হচ্ছে। রাখাইন রাজ্যের প্রত্যন্ত এলাকায় অবস্থিত পাঁচটি গ্রামের গত ১০ থেকে ১৮ নভেম্বরের মধ্যে ৮২০টি বাড়ি ধ্বংস করা হয়। আগে ৪৩০টি বাড়ি ধ্বংস করার খবর আসার পর আরো ৮২০টি বাড়ি ধ্বংস করা হলো। আগে ধ্বংস করে দেয়া বাড়িগুলোতে একাধিকবার আগুন লাগিয়ে দেয়ার প্রমাণ পাওয়া গেছে।
২০১৩ সাল থেকে রোহিঙ্গাদের জাতিগতভাবে নির্মূল করার জন্য মিয়ানমার কর্তৃপক্ষকে হিউম্যান রাইটস ওয়াচ বারবার দায়ী করে আসছে। রাখাইন রাজ্যের উত্তরাঞ্চলীয় মংডু অঞ্চলে গত চার বছরে সংখ্যালঘু রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সর্বাধিক সহিংসতা চালানো হয়েছে। ফোরটি রাইটস অ্যান্ড আলজাজিরার পৃষ্ঠপোষকতায় পরিচালিত ইয়ালি’স আলারডকে লুইন স্টেইন ইন্টারন্যাশনাল হিউম্যান রাইটস ক্লিনিক রিসার্চ এই তথ্য জানিয়েছে। সংস্থাটি জানায়, ১৯৪৮ সালে গণহত্যা সঙ্ঘটিত হওয়ার ব্যাপারে জাতিসঙ্ঘ কনভেনশনে যে চারটি কর্মকাণ্ডের উল্লেখ রয়েছে মিয়ানমারে গণহত্যা চালানোর প্রমাণ হিসেবে সেই চারটি কার্য কারণ খুঁজে পাওয়া গেছে।
নিজস্ব ভাষা, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের অধিকারী শত শত রোহিঙ্গাকে নিরাপত্তা বাহিনী অথবা সংখ্যাগুরু বৌদ্ধরা হত্যা করেছে। বহু রোহিঙ্গা নারীকে ধর্ষণ, নির্যাতন ও বিধিবহির্ভূতভাবে আটক করে তাদের ওপর নিপীড়ন চালানোসহ অন্যান্য অপরাধ সঙ্ঘটিত করা হচ্ছে। রোহিঙ্গাদের দেশ থেকে উচ্ছেদ তথা তাদের অস্তিত্ব মুছে ফেলার মতো অবস্থার সৃষ্টি করা হয়েছে। রোহিঙ্গাদের মধ্যে বিয়ে বন্ধ করে সন্তান জন্মদান থেকে বিরত রাখার অমানবিক উদ্যোগ নেয়া হয়।
জাতিসঙ্ঘ মানবাধিকার কমিশন (ওএইচসিএইচআর) দমনাভিযানের নিন্দা জানিয়ে এক বিবৃতিতে জুনে প্রকাশিত এক রিপোর্টের বিষয় পুনর্ব্যক্ত করে বলেছে, মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের ওপর যে নির্যাতন চালাচ্ছে তা ‘মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ’। মানবাধিকার সংস্থাটি তাদের বিবৃতিতে আরো বলেছে, জাতিসঙ্ঘ মানবাধিকার অফিস সরকারের প্রতি যেসব সুপারিশ বা পরামর্শ মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছিল, মিয়ানমার সরকার সে অনুযায়ী কাজ করতে সম্পূর্ণরূপে ব্যর্থ হয়েছে এবং এর মাধ্যমে তারা মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ করেছে। তারা রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন নিপীড়ন চালিয়ে যে সীমালঙ্ঘন করেছে তা মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধের সমতুল্য।
২০১২ সালে উগ্র তথা চরমপন্থী বৌদ্ধরা সহিংসতা ও নৈরাজ্য সৃষ্টির পর থেকে এ পর্যন্ত এক লাখ ২০ হাজারেরও বেশি রোহিঙ্গাকে তাদের ভিটেমাটি থেকে উচ্ছেদ করেÑ বিভিন্ন শিবিরে আটকে রাখা হয়। তাদের নাগরিকত্ব দিতে অস্বীকৃতি জানানো হয়। শুধু তাই নয়, তাদের স্বাস্থ্যসেবা, শিক্ষা থেকে বঞ্চিত করা হয় এবং তাদের চলাফেরার ওপর ব্যাপক নিষেধাজ্ঞা জারি করে রাখা হয়েছে। এ ছাড়াও তাদের ওপর নিয়মিত হামলা চালানো হয়।
এখন পর্যন্ত ইয়াঙ্গুনের গণতান্ত্রিক সরকার রোহিঙ্গাদের অস্বীকৃতি জানানোর মাধ্যমে কৌতূহল সৃষ্টি করে রেখেছে। তারা গণধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ড চালাচ্ছে বলে গণমাধ্যমে যে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে, তার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে মিয়ানমার। এমনকি মিয়ানমার রোহিঙ্গা মুসলমানদের বিরুদ্ধে জাতিগত নির্মূল অভিযান চালাচ্ছে বলে জাতিসঙ্ঘের একজন কর্মকর্তার বক্তব্যের ব্যাপারেও প্রতিবাদ জানিয়েছে। গণহত্যা ও জাতিগত নির্মূল অভিযানের দাবি যাতে প্রমাণ করা না যায়, সে জন্য তারা ওই এলাকায় বিদেশী সাংবাদিকদের প্রবেশ করতে দিচ্ছে না। এই বিপর্যয় বা দুঃখময় পরিণতির সময় অং সান সু চি ও তার ক্ষমতাসীন ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমোক্রেসির ভূমিকা অত্যন্ত হতাশাজনক। এখন এটা বিশ্বাস করতে কষ্ট হচ্ছে, এই গণতন্ত্রপন্থী আইকন ও তার প্রভাবশালী সংগঠনের জন্যই সারা বিশ্বের মানুষ এত হইচই করেছিল। প্রকৃত পক্ষে তিনি প্রায় ১৫ বছর গৃহবন্দী ছিলেন এবং অত্যন্ত নিষ্ঠুর সামরিক জান্তাদের অন্যতম বর্মী সামরিক জান্তা অত্যন্ত মর্যাদার সাথে সঙ্কটের সমাধান করে আমাদের মুগ্ধ করেছিলেন। এ কারণেই নোবেল কমিটির বিজ্ঞ ব্যক্তিরা তাকে সর্বোচ্চ সম্মানে সম্মানিত করার জন্য বাছাই করেছিলেন। ওই অঞ্চলের সর্বশেষ স্বৈরশাসকের বিরুদ্ধে মিয়ানমারের জনগণের সাথে অনেকেই সংহতি প্রকাশ করেছিল। কিন্তু সু চির নেতৃত্বে দীর্ঘ দিন পরে গণতন্ত্রের সূচনা হলেও মুসলিমদের ওপর স্বৈরাচারী শাসকের থাবা এখনো বলবৎ রয়েছে। সামরিক জান্তার অধীনে মুসলিম গণহত্যার ব্যাপারে সু চি ও তার গণতান্ত্রিক দল নীরব কেন? গণহত্যা বন্ধ করতে আগে সু চির হাতে কোনো ক্ষমতা ছিল না। বর্তমানে তারা ক্ষমতায় আছে এবং তারাই মিয়ানমারের কর্তৃপক্ষ। এখন তাদের নীরবতা ও নিষ্ক্রিয়তা মেনে নেয়া যায় না। এটা ফৌজাদারি অপরাধ।
এটা সত্য, সু চি এখনো সরকারপ্রধান নন। সামরিক বাহিনী এখনো ব্যাপক ক্ষমতার অধিকারী। তা সত্ত্বেও সবাই এখন বলছে এটা তার দলেরই সরকার এবং রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে তার দায়িত্ব নেয়ার সময় এসেছে।
যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) মিয়ানমার রাজনৈতিক সংস্কারের প্রতিশ্রুতি দেয়ার পর আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা দ্রুত প্রত্যাহারের কার্যকর ব্যাপারে ভূমিকা পালন করেছিল। এখন তাদেরই রাখাইন রাজ্যে বর্মী সৈন্যদের বর্বরতা বন্ধ করতে অবশ্যই চাপ প্রয়োগ করতে হবে। মিয়ানমারকে অবশ্যই আন্তর্জাতিক মিডিয়াকে রাখাইন রাজ্যে প্রবেশের অনুমতি দিতে হবে। রাজ্যটিকে মিডিয়ার জন্য খুলে দিতে হবে। আর জাতিসঙ্ঘকে সেখানে মানবতার বিরুদ্ধে যে ব্যাপক অপরাধ সঙ্ঘটিত হয়েছে তা প্রমাণ করার সুযোগ দিতে হবে। যুক্তরাষ্ট্র ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও মিয়ানমারের বড় প্রতিবেশী দেশ চীন এবং ভারতও প্রলুব্ধ হয়ে সেখানে শত শত কোটি ডলার বিনিয়োগ করেছে। এসব দেশ ইয়াঙ্গুনের অপরিসীম সম্ভাবনায় আকৃষ্ট হয়েছিল। এখন সময় এসেছে এসব দেশের তাদের অপরিসীম প্রভাবকে কাজে লাগিয়ে রোহিঙ্গা গণহত্যা বন্ধে উদ্যোগ গ্রহণের।
ব্রিটিশ জার্নাল ওয়াই ভোনি রিডলি জানিয়েছে, মিয়ানমারকে এখনো আন্তর্জাতিক চাপে কাবু করা সম্ভব। লন্ডনে একজন রাষ্ট্রদূতকে সাসপেন্ড করার হুমকি দেয়া হলে সামরিক জান্তার ক্ষমতার কেন্দ্রে কাঁপন শুরু হয়ে যাবে। দুর্নীতিবাজ জেনারেল বা সর্বশেষে যা করতে চায় সেটা হলো বিদেশে তাদের টাকা বানানোর এন্টারপ্রাইজগুলোকে হুমকি মুক্ত রাখা।
মিয়ানমারের মুসলিম গণহত্যার ব্যাপারে ইতোমধ্যে পার্শ্ববর্তী দেশগুলোতে প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। বিশেষত ইন্দোনেশিয়া এবং মালয়েশিয়ায় ব্যাপক প্রতিবাদ বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়েছে এবং এখনো তা অব্যাহত আছে। মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের নেতৃত্বে সম্প্রতি কুয়ালালামপুরে বিশাল এক প্রতিবাদ বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়েছে। কিন্তু বেশির ভাগ মুসলিম দেশ এ ব্যাপারে এখনো নীরব। এই অসহায় লোকদের ভাগ্যের উন্নয়ন ঘটাতে হলে মুসলিম বিশ্বকে সোচ্চার হতে হবে।
৫৭টি মুসলিম দেশ ১৭০ কোটি মানুষের প্রতিনিধিত্ব করছে। তারা চাইলে সহজেই মিয়ানমারের দুর্দশাগ্রস্ত রোহিঙ্গাদের মুখে হাসি ফুটাতে পারেন। মুসলিম বিশ্ব উদ্যোগ নিয়ে এগিয়ে এলে জীবনমৃত্যুর সন্ধিক্ষণে দাঁড়ানো অসহায় রোহিঙ্গারা আবার নতুন করে বাঁচার স্বপ্ন দেখতে পারবে।

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*