তরুণদের সেচ্ছাসেবামূলক কাজ; উদ্দেশ্য প্রচার নাকি উপকার?

মঈনুল হোসেন টিপু…

অনেকেই ভাবেন আমাদের প্রজন্মের ছেলেরা শুধু প্রেম-ভালোবাসা, ঘুরাঘুরি, ফেসবুক, স্যোশাল মিডিয়া, মাস্তি, পার্টি এসব নিয়েই ব্যস্ত। অনেকের ধারণা এখনকার তরুণরা বেশিরভাগই নষ্ট, দিকভ্রান্ত, বেয়াদব, স্বার্থপর। এই মনে করার পেছনে খুব যুক্তিসঙ্গত কারণও আছে। যেভাবে আমাদের সামগ্রিক মূল্যবোধের পতন ঘটেছে, তাতে তরুণদের একটা অংশের জীবন ফেসবুক, ভার্চুয়াল লাইফ, নেশা, পার্টি এসবে সীমাবদ্ধ।
আবার তরুণদের মধ্যে একটা গ্রুপ আছে, যারা স্যোশাল মিডিয়াকে ব্যবহার করে দারুণ সব কাজ করছে। মানুষের জন্য কাজ করছে, মানুষের জন্য ভাবছে, অসহায়দের পাশে দাঁড়াচ্ছে, শত সমস্যার মধ্যেও এসবের মাঝে তারুণ্যের জয়গাঁথা রচনা করছে।
সত্যিকার অর্থে এখন রক্তের জন্য কেউ মরে না। ব্লাড ডোনেশন নিয়ে যারা কাজ করতেন কয়েকবছর আগে তারা জানেন ব্লাড ম্যানেজের কাজ আগে কতটা কষ্টসাধ্য ছিলো। কিন্তু ফেসবুকের মাধ্যমে ব্লাড ডোনেশনের ক্ষেত্রে রীতিমত একটা বিপ্লব ঘটে গেছে।
অনেক তরুণকে দেখি যারা রাতের একটা নাই, দুইটা নাই,  ব্লাডের জন্য ফোন করলে লিস্ট বের করে খুঁজে খুঁজে পাঁচ মিনিটের মধ্যেই ব্লাড ম্যানেজ করে দেয়। রেয়ার গ্রুপের ব্লাড হলে ডোনারকে প্রয়োজনে শহর থেকে গ্রামে, গ্রাম থেকে শহরে নিয়ে আসে। এই বিশাল কিন্তু মহৎ কাজটি তরুণরা একেবারে বিনে পয়সায় নিঃস্বার্থভাবে করছে।
এই যেযে এখন শীতের সময়। যে পরিমাণ শীতের জামা আর কম্বল তরুণরা বিভিন্ন এলাকায় দিচ্ছে, তাতে খুব কম মানুষই শীতে কষ্ট পাচ্ছে। শহরের গৃহহীন মানুষ থেকে শুরু করে প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষরাও শীতে উষ্ণতার পরশ পাচ্ছে তরুণদের মাধ্যমে।
সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের শিক্ষার ক্ষেত্রে অনেক বড় একটা অবদান রাখছে তরুণ ভলেন্টিয়াররা। আর কয়েক বছর পর শিক্ষার আলো রাস্তার টোকাই থেকে, চরের বিলে মাছ ধরা শিশু, একেবারে সবাই পাবে, এটা সম্ভব হচ্ছে অসংখ্য নিঃস্বার্থ তরুণের জন্য।
ঈদের সিজনে গরিব অসহায় শিশু-বুড়োদের নতুন জামা দেয়াটা এখন উৎসবে পরিনত হয়েছে। ঈদের খুশিতে সবাই হাসে এখন, এটাও তরুণদের দারুণ কাজের ফল।
এরকম অসংখ্য ক্ষেত্র আছে যেখানে এই প্রজন্মের তরুণরা দারুণ সব কাজ করে যাচ্ছে, সমাজের সাধারণ মানুষের জন্য,দেশের জন্য।
অনেকেই এসব কাজের উদ্দেশ্য নিয়ে প্রশ্ন তুলেন, অভিযোগ করেন শুধুমাত্র প্রচার কিংবা স্যোশাল মিডিয়ায় হিট হওয়ার জন্য এসব কাজ করে তরুণরা। এই প্রশ্নটা অবান্তর নয়, অনেকেরই হয়ত উদ্দেশ্য থাকে স্যোশাল মিডিয়ায় প্রচার করা।
কিন্তু উদ্দেশ্য যাই হোক, উপকারতো হচ্ছে, কাজতো হচ্ছে। আল্টিমেটলি লাভ তো অসহায় মানুষদের হচ্ছে। এরকম কাজ যত বেশি হবে, তত বেশি লাভ হবে সাধারণ মানুষের।
আবার কিছু প্রচার দৃষ্টকটু। কিছু সংগঠন গড়ে উঠে মানুষের উপকারের শপথ নিয়ে, কিন্তু কিছুদিন পর সেটা রাজনীতিবিদদের প্রচারের মাধ্যমে পরিনত হয়। উপকার না হয়ে কার্যক্রম সীমাবদ্ধ থেকে যায় আনুষ্ঠানিকতায়।
আবার অনেকেই প্রশ্ন তুলেন ভালো কাজ নিরবে করা উচিত, গোপনে করা উচিত। আমরা ভালো কাজ করব নিরবে, খারাপ কাজ করব সরবে, এই যুক্তিটা বোধগম্য না। স্যোশাল মিডিয়ায় সবকিছু প্রকাশের উদ্দেশ্য থাকে কাজের সত্যতার জন্য, আরো কিছু মানুষ দেখে উৎসাহিত হওয়ার জন্য, আরো কিছু মানুষ এসবে এগিয়ে আসার জন্য।
‘তিনশ টাকার এনার্জি লাইট একশ টাকা’ এটা প্রচার। কিন্তু ভালো কাজগুলো শেয়ার করা মানে শুধু প্রচার নয়, বরং এটা শেখানো, জানানো, উৎসাহিত করানো।
রাত তিনটায় যারা ব্লাড ম্যানেজ করে তাদের প্রচারের উদ্দেশ্য থাকে না। নিজের পকেটের টাকা দিয়ে, টিউশানির টাকা দিয়ে নতুন শীতের জামা যারা কিনে দেয় তাদের প্রচারের উদ্দেশ্য থাকে না। ছুটির দিনে মজা না করে, ঘুরার প্ল্যান বাদ দিয়ে যারা সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের অক্ষরজ্ঞান দান করে তাদের প্রচারের উদ্দেশ্য থাকে না, অসহায় রোগীর জন্য টাকা তুলে চিকিৎসা যারা করায় তাদেরও প্রচারের উদ্দেশ্য থাকে না। এসব কাজ নিজের ভেতর থেকে আসে, দায়িত্ববোধ থেকে আসে।
ভালো কাজগুলোকে আমাদের উৎসাহিত করা উচিত। আর যারা এসব কাজের সাথে যুক্ত তাদেরকে স্যালুট।

***লেখক-শিক্ষার্থীও সংগঠক

Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*